৮ শর্তে সমাবেশের অনুমতি পেল বিএনপি


সাহেব-বাজার ডেস্ক: ৮ শর্তে আগামী ৩ ডিসেম্বর রাজশাহীর মাদ্রাসা মাঠে বিএনপির বিভাগীয় গণসমাবেশের অনুমতি দেওয়া হয়েছে। বুধবার দুপুরে নগর পুলিশ কমিশনার আবু কালাম সিদ্দিক এই অনুমতি দেন।

এর আগে এক সংবাদ সম্মেলনে সমাবেশ ঠেকাতে পুলিশ গ্রেপ্তার, মামলা দেওয়া ও হুমকি দিচ্ছে বলে অভিযোগ করে বিএনপি।

বুধবার পুলিশ কমিশনার আবু কালাম সিদ্দিক বলেন, ৮ শর্তে সমাবেশের অনুমতি দেওয়া হয়েছে। আপাতত মঞ্চ ও মাঠের কাজ করতে শুধু কর্মীরা মাঠে যেতে পারবেন। ৩ ডিসেম্বর দুপুর ২টা থেকে বিকেল ৫টার মধ্যে সমাবেশ শেষ করতে হবে।

শর্তগুলোতে আরও রয়েছে, মাদ্রাসা মাঠে সমাবেশ সীমাবদ্ধ রাখতে হবে। রাস্তায় সমাবেত হওয়া যাবে না; স্বধীনতা-সার্বভৌমত্ব ও সামাজিক, ধর্মীয় মূল্যবোধ বিনষ্ট করা যাবে না; সমাবেশে আসা যাওয়ার সময় পথে শোভাযাত্রা ও মিছিল করা সহ আইনশৃঙ্খলার অবনতি হবে এমন কিছু করা যাবে না; আজানের সময় শব্দ যন্ত্র বন্ধ রাখতে হবে; মঞ্চ তৈরির কর্মীরা আইডি কার্ড নিয়ে মঞ্চ করতে পারবেন, তারা বাদে কেউ মাঠে প্রবেশ করতে পারবে না; নিজস্ব ব্যবস্থায় সিসি ক্যামেরা স্থাপন করতে হবে; যানবাহন শহরের ভেতরে প্রবেশ করানো যাবে না।

এদিকে বুধবার দুপুরে এক সংবাদ সম্মেলনে বিএনপি নেতারা অভিযোগ করেন, আগামি ৩ ডিসেম্বর রাজশাহীতে বিএনপির বিভাগীয় গণসমাবেশ ঠেকাতে পুলিশ বিএনপির নেতাকর্মীদের নামে মিথ্যা মামলা, বাড়ি বাড়ি গিয়ে হুমকি ও গ্রেপ্তার করা হচ্ছে।

বিএনপির বিভাগীয় সমাবেশের সমন্বয়কারী ও বিএনপির সাংগঠনিক রুহুল কুদ্দুস তালুকদার দুলু বুধবার দুপুরে নগরীর মালোপাড়ায় অবস্থিত মহানগর বিএনপির কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনে এসব অভিযোগ করেন।

রুহুল কুদ্দুস তালুকদার দুলু বলেন, আগামী ৩ ডিসেম্বর রাজশাহীতে বিএনপির বিভাগীয় মহাসমাবেশ অনুষ্ঠিত হবে। ১ ডিসেম্বর থেকে মাদ্রাসা মাঠ ব্যবহারের অনুমতি দিয়েছে পুলিশ। ওইদিন থেকেই রাজশাহীতে শুরু হবে পরিবহন ধর্মঘট।

তিনি বলেন, আগামীকাল থেকে পরিবহন ধর্মঘট থাকায় ইতোমধ্যে বিএনপির নেতাকর্মীরা বিভাগের বিভিন্ন জেলা থেকে আসতে শুরু করেছেন। তাদের থাকার জন্য মাঠের বাইরে ফাঁকা জায়গায় প্যান্ডেল করা হয়েছিলো, তা ভেঙে দিয়েছে পুলিশ। পুলিশ কমিউনিটি সেন্টারের মালিকদের বাড়ি বাড়ি গিয়ে হুমকি দিচ্ছে যেন বিএনপির কাছে কমিউনিটি সেন্টার ভাড়া দেওয়া না হয়। পুলিশের কিছু উৎসাহী কর্মকর্তা এসব করছে। কিন্তু আমরা তাদের বলতে চাই, যত বাধাবিপত্তি আসুক না কেন আমরা ৩ ডিসেম্বরের সমাবেশ সফল করবোই।

এ সময় বিএনপির চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা মিজানুর রহমান মিনুসহ স্থানীয় নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

এসবি/জেআর