৩০ মিনিটেই হার টাইগারদের


সাহেব-বাজার ডেস্ক : অ্যান্টিগা টেস্টের তৃতীয় দিনশেষে জয়ের খুব কাছে ছিল ওয়েস্ট ইন্ডিজ। ৮৪ রান তাড়ায় স্বাগতিকরা দিনশেষ করেছিল ৩ উইকেটে ৪৯ রানে। গতকাল ছিল চতুর্থ দিনের খেলা। এদিন প্রথম সেশন শুরুর আধঘণ্টার (২৭ মিনিট) মধ্যে অনায়াস জয় (৮৮/৩) তুলে নেয় ক্যারিবীয়রা।

৭ উইকেটে পাওয়া জয়ে দুই ম্যাচের টেস্ট সিরিজে ১-০ তে এগিয়ে গেল ক্রেইগ ব্রাফেটের দল। আগামী ২৪ জুন থেকে সেন্ট লুসিয়ায় শুরু হবে দ্বিতীয় ও শেষ টেস্ট।

নতুন অধিনায়ক সাকিবের নেতৃত্বে এবার দুঃস্বপ্নের ভেন্যু স্যার ভিভিয়ান রিচার্ডস স্টেডিয়ামে ভালো খেলার আশা ছিল বাংলাদেশের। ২০১৮ সালের সফরে এই ভেন্যুতেই প্রথম ইনিংসে ৪৩ রানে গুটিয়ে গিয়েছিল টাইগাররা। ৩ দিনেই ম্যাচের ফল হয়। ইনিংস ও ২১৯ রানে হেরেছিল সফরকারীরা।

এবারও ব্যাটসম্যানদের ব্যর্থতায় ইনিংস হারের শঙ্কা জেগেছিল। শেষ পর্যন্ত সাকিব ও নুরুলের ব্যাটিং দৃঢ়তায় তা এড়ানো গেছে। সপ্তম উইকেটে রেকর্ড ১২৩ রান স্কোরকার্ডে যোগ করেন তারা। তবে চতুর্থ দিনের শুরুতেই বড় হারের তেতো স্বাদ নিয়ে মাঠ ছাড়তে হলো সাকিব-তামিমদের। দুই ইনিংস মিলিয়ে ৭ উইকেট নিয়ে ম্যাচসেরা হয়েছেন কেমার রোচ।

তৃতীয় দিনে ২ উইকেটে ৫০ রান নিয়ে ব্যাটিংয়ে নামা বাংলাদেশের দ্বিতীয় ইনিংস থামে ২৪৫ রানে। সাকিব (৬৩) ও নুরুল (৬৪) দুজনেই ফিফটি করেন। ওয়েস্ট ইন্ডিজের লক্ষ্য দাঁড়ায় ৮৪। জয়ের জন্য চতুর্থ দিনে স্বাগতিকদের দরকার ছিল ৩৫ রান; আর বাংলাদেশের ৭ উইকেট।

তবে এদিন আর কোনো উইকেটের পতন ঘটতে দেননি জন ক্যাম্পবেল (৫৮*) ও জারমেইন ব্ল্যাকউড (২৬*) জুটি। চতুর্থ উইকেটে তারা স্কোরকার্ডে ৭৯ রান যোগ করেন। এদিন তারা ৭ ওভার ব্যাটিং করেছেন। খালেদ পান ৩ উইকেট। দুই ইনিংস মিলিয়ে বাংলাদেশের পেসারের শিকার ৫ উইকেট।

ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে অ্যান্টিগা টেস্ট বাজেভাবে হারের জন্য মূলত ব্যাটসম্যানরা দায়ী। প্রধান কোচ রাসেল ডমিঙ্গো তো বলেছেন, ‘ব্যাটসম্যানদের আত্মবিশ^াসের ঘাটতি ছিল।’ প্রথম ইনিংসের পর দ্বিতীয় ইনিংসেও সাকিব ছিলেন উজ্জ্বল। তামিম, শান্ত, মুমিনুল, লিটনদের মতো বিশেষজ্ঞ ব্যাটসম্যানদের বিবর্ণ পারফরম্যান্সের কারণেই ১০৩ ও ২৪৫ রানে অলআউট হওয়ার পর চতুর্থ দিনেই হারের তেতো স্বাদ পেতে হলো টাইগারদের।

তবে বোলাররা তুলনামূলক ভালো বোলিং করেছেন। প্রথম ইনিংসে সফল ছিলেন অফস্পিনার মেহেদী মিরাজ। একাই পান ৪ উইকেট। আর দ্বিতীয় ইনিংসে পেসার খালেদের শিকার ৩ উইকেট। বোলারদের পারফরম্যান্সে তাই গর্বিত প্রধান কোচ রাসেল ডমিঙ্গো।

আইসিসি টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের ম্যাচ হওয়ায় প্রতিটি ম্যাচই গুরুত্বপূর্ণ। শক্তির বিচারে এগিয়ে থাকার পরও ওয়েস্ট ইন্ডিজের কাছে হেরে পয়েন্ট খোয়াল বাংলাদেশ! তবে দ্বিতীয় টেস্ট জিতে পূর্ণ পয়েন্ট পেতে চাইবেন সাকিবরা। শেষ টেস্টে সতীর্থদের কাছে সেরাটাই আশা করবেন নতুন টেস্ট অধিনায়ক।

 

এসবি/এমই