রাজশাহীতে কমেছে মাছ ও সবজির দাম

  • 1
    Share

নিজস্ব প্রতিবেদক : গত কয়েক মাস ধরেই রাজশাহীতে সবজি এবং মাছের দাম ছিলো চড়া। বাড়তি দাম নিয়ে ভোগান্তিতে পড়েছিলেন নগরবাসী। তবে এবার কমেছে মাছ ও সবজির দাম। আর এতেই স্বস্তি মিলেছে ক্রেতাদের।

শুক্রবার নগরীর বাজার ঘুরে দেখা যায়, সব সবজির দামই কমেছে। কমেছে মাছের দামও। গত সপ্তাহে ঢেঁড়স ছিল ৮০ টাকা কেজি কিন্তু এই সপ্তাহে দাম কমে হয়েছে ৫০ টাকা। বরবটির দাম ছিলো ১০০ টাকা। কিন্তু এখন কমে দাম হয়েছে ৬০ টাকা। ঢেঁড়স এবং বরবটির মত দাম কমেছে ফুলকপি, গাজার, শিম এবং মুলারও। এখন ফুলকপি ৩০ টাকা কেজিতে পাওয়া যাচ্ছে। তবে কিছুদিন আগেও দাম ছিল ৫০ থেকে ৬০ টাকা কেজি। গাজরের দাম কেজিপ্রতি ২০ টাকা কমে ৬০ টাকায় পাওয়া যাচ্ছে। তেমনি শিমের দাম কমেছে কেজিপ্রতি ৪০ টাকা করে। এখন শিম ৪০ টাকা কেজিতে কিনতে পারছেন ক্রেতারা। মুলার দাম কমেছে কেজিপ্রতি ১০ টাকা করে। এখন মুলা ২০ টাকা কেজিতে বিক্রি করছেন বিক্রেতারা।

এই সপ্তাহে দাম কমেছে করলা, পটল এবং বেগুনেরও। করলা ২০ টাকা কমে ৬০ টাকা কেজিতে পাওয়া যাচ্ছে। পটল এবং বেগুনের দাম কেজিপ্রতি ১০ টাকা করে দাম হয়েছে ৩০ টাকা। লালশাক, পালং শাক এর দাম কেজিপ্রতি ১০ টাকা কমে হয়েছে ৩০ টাকা। তবে টমেটোর দাম আগের মতোই ১২০ টাকা কেজিতে বিক্রি করেছে বিক্রেতারা। এই সপ্তাহে কমেছে মাছের দামও। কোন কোন মাছের দাম কেজিপ্রতি ৫০ থেকে ২০০ টাকা পর্যন্ত কমেছে।

শোল মাছের দাম কমেছে কেজিপ্রতি ১০০ টাকা করে। গত সপ্তাহে ৫০০ টাকা কেজিতে পাওয়া গেলেও এই সপ্তাহে ৪০০ টাকা কেজিতে পাওয়া যাচ্ছে। পাবদার দাম কেজিপ্রতি ১০০ টাকা করে কমে হয়েছে ৩০০ টাকা। এই সপ্তাহে মাগুর মাছের দাম কমেছে কেজিপ্রতি ২০০ টাকা করে। মাগুর এখন ৫০০ টাকা কেজিতে কিনতে পারছেন ক্রেতারা। কমেছে রুই, কাতল এবং সিলভারের দামও। রুইয়ের দাম ২৫০ টাকা গত সপ্তাহে থাকলেও এখন ১৮০ টাকায় পাওয়া যাচ্ছে। কাতলের দাম কমেছে কেজিপ্রতি ৮০ টাকা করে। কাতল এখন ২২০ টাকা কেজিতে পাওয়া যাচ্ছে। সিলভারের দাম কেজি প্রতি ৫০ টাকা কমে ১০০ টাকা হয়েছে।

নগরীর সাহেব বাজারে এসেছিলেন আবরার হোসেন। তিনি বলেন, অনেকদিন পরে সবজির দাম কমেছে। গত সপ্তাহ থেকেই তুলানামুলক অনেক কম দামে সবজি কিনতে পাওয়া যাচ্ছে। সবজির দাম কমে যাওয়াতে খুব ভাল লাগছে। মাছ বিক্রেতা নাসির উদ্দীন টমি বলেন, গত সপ্তাহ থেকেই মাছের দাম তুলনামুলক কমেছে। শীতের সময় মাছ মানুষ তুলনামুলক কম কেনে। সবার সবজির প্রতিই চাহিদা বেশি থাকে। মাছের দাম কমেও ক্রেতা পাওয়া যাচ্ছে না।

এসবি/এসকে/এআইআর


  • 1
    Share