মিয়ানমারে মৃত্যুর মিছিল শুরুর আশঙ্কা জাতিসংঘের


সাহেব-বাজার ডেস্ক : মিয়ানমারে গণমৃত্যুর আশঙ্কা প্রকাশ করেছে জাতিসংঘ। সংস্থাটির বিশেষ দূত টম অ্যান্ড্রুজ জানিয়েছেন, দেশটির কায়াহ প্রদেশের বাস্তুচ্যুতরা গণমৃত্যুর ঝুঁকিতে আছেন। অবিলম্বে কোনো ব্যবস্থা না নিলে সেখানে মৃত্যুর মিছিল শুরু হবে।

আল জাজিরার খবরে বলা হয়েছে, সাম্প্রতিক সময়ে কায়াহ প্রদেশে সশস্ত্র গোষ্ঠী কারেন পিপলস ডিফেন্স ফোর্স (কেপিডিএফ) সেনাবাহিনীর সঙ্গে একাধিকবার সংঘর্ষে জড়িয়েছে। এই বিদ্রোহীরা দীর্ঘদিন ধরে স্বায়ত্তশাসনের দাবিতে সংগ্রাম করছেন।

মিয়ানমারের সেনাবাহিনী সর্বশেষ গত ২১ মে সেখানে বিমান হামলা চালায়। ঘটনার পর প্রদেশটির ১ লাখের বেশি মানুষ দু-পক্ষের সংঘর্ষ, গোলাগুলি, বিমান হামলা ও গোলা থেকে বাঁচতে বাড়িঘর ছেড়ে বনে-জঙ্গলে আশ্রয় নিয়েছেন।

জাতিসংঘের বিশেষ দূত টম অ্যান্ড্রুজ বলেন, দ্রুত কোনো ব্যবস্থা না নিলে কায়াহ প্রদেশের বাস্তুচ্যুতদের গণমৃত্যু দেখা দেবে। এটি এমন মাত্রায় যা আমরা কল্পনাও করতে পারব না। পূর্বে মিয়ানমারে এর থেকে ভয়াবহ মানবিক বিপর্যয়কর পরিস্থিতি আর দেখা যায়নি।

অ্যান্ড্রুজ বলেন, জীবন রক্ষার তাগিদে ইতোমধ্যে মানুষ সীমান্ত পার হয়ে প্রতিবেশি দেশগুলোতে ঢোকার চেষ্টা করছে। এই পরিস্থিতিতে মিয়ানমার ও তার প্রতিবেশী দেশগুলোর সীমান্তেও সংঘাত ছড়িয়ে পড়বে বলে আশঙ্কা প্রকাশ করে তিনি বলেন, জান্তার হাত থেকে মিয়ানমারের সাধারণ মানুষ ও তাদের জীবন-জীবিকা রক্ষায় দ্রুত পদক্ষেপ নেওয়া উচিত।

মিয়ানমারে গত ফেব্রুয়ারিতে অভ্যুত্থানের মাধ্যমে গণতান্ত্রিকভাবে নির্বাচিত অং সান সু চির সরকারকে উৎখাত করে সেনাবাহিনী। এরপর থেকে দেশটিতে ধারাবাহিকভাবে বিক্ষোভ হচ্ছে। দেশে স্থিতিশীলতা ফিরিয়ে আনতে জোর চেষ্টা করেও ব্যর্থ হচ্ছেন সেনা সরকার। অধিকার গোষ্ঠী বলছে, মিয়ানমারের নিরাপত্তা বাহিনীর গুলিতে এখন পর্যনত্ ৮৫০ জনের মৃত্যু হয়েছে। জান্তার হাতে আটক আছেন প্রায় ছয় হাজার।

এসবি/এআইআর