বিশ্বকাপের জন্য ডিপিএল দিয়েই প্রস্তুতি সারবে বাংলাদেশ


সাহেব-বাজার ডেস্ক : চলতি বছরে আইসিসির বৈশ্বিক আসর ও দ্বিপাক্ষিক সিরিজের কারণে ব্যস্ত সময় কাটবে বাংলাদেশ জাতীয় দলের। এর মাঝে টানাপড়েনে ছিল ঘরোয়া ক্রিকেট। করোনা মহামারির কারণে ভেস্তে যায় ঘরোয়া ক্রিকেটের সূচি। তবে সিদ্ধান্ত হয়েছে চলতি মাসের ৩১ তারিখ থেকে শুরু হতে যাচ্ছে বঙ্গবন্ধু ঢাকা প্রিমিয়ার লিগ।

ঘরোয়া ওয়ানডেতে জাঁকজমকপূর্ণ আসরটি এবার আর ওয়ানডে থাকছে না, অনুষ্ঠিত হবে টি-টোয়েন্টি ফরম্যাটে। তাই এটিকেই অক্টোবরে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের প্রস্তুতি হিসেবে ধরে নিচ্ছে ক্রিকেটাররা।

যেমনটা জাতীয় দলের অল-রাউন্ডার মোসাদ্দেক হোসেন সৈকত বলছেন, টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের আগে এই টুর্নামেন্টটা বেশ প্রয়োজন ছিল।

“টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের আগে ঘরোয়া ক্রিকেটের এমন একটি আসর খেলোয়াড়দের টেকনিক ও স্কিলের মান উন্নয়নে ভূমিকা রাখবে। আরেকটি কারণ হলো, টুর্নামেন্টটি মাঠে গড়ালে মহামারি কালে সে সকল ক্রিকেটারদের রুটি রুজির ব্যবস্থা হবে যারা জীবন ধারণের জন্য শুধুই ঢাকা প্রিমিয়ার লিগের উপরে নির্ভরশীল।”

ডিপিএলের আগে ৩ ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজ খেলতে বাংলাদেশ সফরে আসবে শ্রীলঙ্কা। এই সিরিজকে সামনে রেখে পুরোদমে অনুশীলনে নেমেছে প্রাথমিক দলে ডাক পাওয়া ক্রিকেটাররা।

এদিকে চোটের কারণে শ্রীলঙ্কা সফরে যেতে পারেননি মোসাদ্দেক হোসেন। তবে লঙ্কা সফরের প্রাথমিক দলে ফিরেছেন চোট কাটিয়ে। জানিয়েছেন, চোট কাটিয়ে ওঠার কথা।

“ইনজুরি থেকে সেরে ওঠার পর আমি ২-৩ দিন অনুশীলন করার সুযোগ পেয়েছি। এখানে আসার পরও দুইদিন অনুশীলন করলাম। অনেক ভালো অনুভব করতেছি। পায়ের যে অবস্থা ছিল সেখান থেকে অনেক উন্নতি হয়েছে। ব্যাটিং, বোলিং ও জিমও করলাম, কোনকিছুতেই সমস্যা মনে হচ্ছে না।”

অনুশীলনে ফিরে ব্যাটে-বলে ঝালিয়ে নেয়ার কাজটাও শুরু করে দিয়েছেন এই ডান-হাতি অল-রাউন্ডার। বলছেন, চোট থেকে সেরে উঠলেও আত্মবিশ্বাস আগের মতোই আছে।

“আগের থেকে অনেক বেশি আত্মবিশ্বাসী। কারণ এখন যখন আমি ব্যাটিং, বোলিং করতেছি আমার মনে হচ্ছে আগের চেয়ে ভালো শেপে আছি। এ জায়গা থেকে বলবো যে আমি আগের চেয়ে বেশি আত্মবিশ্বাসী।”

এসবি/এআইআর