বিএমডিএ কার্যালয়ে সাংবাদিকদের ওপর হামলা


নিজস্ব প্রতিবেদক : রাজশাহীতে বরেন্দ্র বহুমুখী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের (বিএমডিএ) কার্যালয়ে পেশাগত দায়িত্ব পালন করতে গিয়ে প্রতিষ্ঠানটির কর্মকর্তা- কর্মচারীদের হামলার শিকার হয়েছেন কর্মরত দুই সাংবাদিক। সোমবার (৫ সেপ্টেম্বর) সকাল সাড়ে ৮ টার বিএমডিএ কার্যালয়ের সামনে এই হামলার ঘটনা ঘটে।

পরে গুরুতর আহত অবস্থায় তাদের একজনকে রাজশাহী মেডিক্যাল কলেজ (রামেক) হাসপাতালের ৩৩ নম্বর ওয়ার্ডে ভর্তি করা হয়েছে। আহত সাংবাদিকরা হলেন— বেসরকারি টেলিভিশন চ্যানেল এটিএন নিউজের রাজশাহী প্রতিনিধি বুলবুল হাবিব ও ক্যামেরাম্যান রুবেল ইসলাম।

হামলার শিকার বুলবুল হাবিব জানান, সরকারি নির্দেশনায় সকাল ৮ টায় অফিস শুরু হবার কথা। সেই নির্দেশনা কতটুকু কার্যকর হয়েছে সেটির খোঁজ-খবর নিতে সকালে তারা বিএমডিএ সকালে যান। সকাল ৮টা ২০ মিনিটের এদিকে বিএমডিএ’র নির্বাহী পরিচালক (ইডি) আব্দুর রশিদ বিএমডিএতে প্রবেশ করেন। এর পরপরই তিনি সাংবাদিকদের ওপর চড়াও হন। বিনা অনুমতিতে কেন প্রবেশ করেছে এবং কেন ছবি তুলছে এই নিয়ে উত্তেজিত হয়ে উঠেন তিনি।

বুলবুল হাবিব আরও বলেন, ‘এক পর্যায়ে দ্বিতীয় তলায় তার দপ্তরে উঠে যান। কিছুক্ষণ পরে ১৫-২০ জন লোক আমাদের ঘিরে ধরে। আমাদের ওপর এলোপাতাড়ি হামলা চালায় এবং ক্যামেরা বুম ভেঙে ফেলে। তাদের হামলায় আমার ক্যামেরাম্যান রুবেল গুরুতর আহত হয়। রুবেলের শক্ত কোনো কিছু দিয়ে তারা জোরে আঘাত করে। বর্তমানে তার অবস্থা গুরুতর। এমন অবস্থায় তাকে রাজশাহী মেডিক্যাল কলেজ (রামেক) হাসপাতালের ৩৩ নং ওয়ার্ডে ভর্তি করা হয়েছে। এই ঘটনায় থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করা হবে।’

এদিকে পেশাগত দায়িত্ব পালন করতে গিয়ে শারীরিকভাবে লাঞ্ছিতের ঘটনার রাজশাহীতে কর্মরত সাংবাদিকরা বিএমডিএ কার্যালয়ের সামনে অবস্থান করছেন। সাংবাদিক নেতারা দাবি করেছেন৷ দোষীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা না নেয়া হলে সেখানেই অবস্থান করবেন।

রাজশাহী সাংবাদিক ইউনিয়নের (আরইউজে) সভাপতি রফিকুল ইসলাম বলেন, আমাদের সহকর্মীদের ওপর হামলা চালিয়ে বিএমডিএ কর্মকর্তা-কর্মচারিরা গণমাধ্যমের স্বাধীনতাকে পুরোপুরি হরণ করেছে। পেশাগত দায়িত্ব পালনে তারা শুধু বাধাই দেয়নি। তাদের ওপর হামলা চালিয়ে বিএমডিএ কার্যালয়ের সামনে থেকে বের করে দেয়ার চেষ্টা হয়েছে। অকথ্য ভাষায় করা হয়েছে গালাগাল। ঘটনার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছি। পাশাপাশি অনতিবিলম্বে দোষীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করছি। অন্যথায় বিএমডিএর বিরুদ্ধে কঠোর আন্দোলন কর্মসূচি গ্রহণ করা হবে।’

সাংবাদিকদের ওপর হামলার ঘটনায় একাধিক বার মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলেও বিএমডিএর নির্বাহী পরিচালক আব্দুর রশিদ ফোন রিসিভ করেননি।

আর বিএমডি’র চেয়ারম্যান আখতার জাহানের মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে অন্য একজন ফোন রিসিভ করে বলেন ,‘ম্যাডাম ব্যস্ত আছেন বলেই ফোনের সংযোগ বিচ্ছিন্ন করে দেন।’

নগরীর বোয়ালিয়া মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মাজহারুল ইসলাম বলেন, ‘সাংবাদিকদের ওপর হামলার ঘটনা ঘটেছে বলে শুনেছি। বিষয়টি খতিয়ে দেখা হচ্ছে।’

 

এসবি/এমই