বঙ্গবন্ধুর ম্যুরাল করলে ‘পাপ হবে’ বললেন পৌর মেয়র

  • 60
    Shares

নিজস্ব প্রতিবেদক: বঙ্গবন্ধুকে কটূক্তি করে বেকায়দায় পড়েছেন গাজীপুর সিটি করপোরেশনের মেয়র জাহাঙ্গীর আলম। হারিয়েছেন আওয়ামী লীগের দলীয় পদ, মেয়রের পদটাও যায় যায় অবস্থা। সিটি মেয়র জাহাঙ্গীর আলমের মতো রাজশাহীর পবা উপজেলার কাটাখালী পৌরসভার মেয়র আব্বাস আলীরও দুটি অডিও রেকর্ড ছড়িয়ে পড়েছে বিভিন্নজনের হাতে।

এতে বঙ্গবন্ধুর ম্যুরাল করলে ‘পাপ হবে’ এমন কথা বলতে শোনা যাচ্ছে মেয়র আব্বাস আলীকে। সোমবার রাতে আব্বাস আলীর কোন এক বৈঠকের কথোপকথনের দুটি অডিও ছড়িয়ে পড়েছে। ১ মিনিট ৫১ সেকেন্ড এবং ১২ মিনিট ৩ সেকেন্ডের এ দুটি অডিও ক্লিপ নিয়ে রাজশাহীতে উঠেছে সমালোচনার ঝড়।

বিষয়টি নিয়ে জানার জন্য মঙ্গলবার মেয়র আব্বাস আলীকে কয়েকবার ফোন করা হলেও ধরেননি। তবে একটি সংবাদমাধ্যমের কাছে তিনি দাবি করেছেন, ওই অডিও ক্লিপ তাঁর নয়। বঙ্গবন্ধুর ম্যুরাল করতে দেওয়া হবে না বা করলে ‘পাপ হবে’ এ ধরনের কথা তিনি কাউকে বলেননি।

১ মিনিট ৫১ সেকেন্ডের অডিও ক্লিপটিতে শোনা যায়, আব্বাস আলী বলছেন, ‘হাইওয়েটাকে আমরা ডিজাইন করতে দিয়েছি। আমাদের যে অংশটা হাইওয়ে। সিটিগেট থেকে আমার অংশ। টোটালই একটা ফার্মকে দিয়েছি যে, তারা একদম বিদেশী স্টাইলে সাজায়ে দিবে ফুটপাত, সাইকেল লেন- টোটাল আমার অংশটা।’ কথার এই পর্যায়ে পাশে থেকে কেউ একজন যোগ করেন, ‘দুই পারে দুইটা গেট করার কথা আছে।’

তখন মেয়র বলেন, ‘একটু থাইমি গেছি গেটটা নিয়ে, একটু চেঞ্জ করতে হচ্ছে যে ম্যুরালটা দিছে বঙ্গবন্ধুর, এটা ইসলামী শরীয়াহ মোতাবেক সঠিক না। এ জন্য আমি ওকে থুব না। সব করবো, যা কিছু আছে, খালি শেষ মাথাতে যেটা মাইন্ড করবে না ওড্যাই। আমি দেখতে পাছি, আমাকে যেভাবে বুঝ্যালো আমি দেখতে পাছি যে ম্যুরালটি ঠিক হবে না দিলে। আমার পাপ হবে। তো কেন দিব? দিব না, আমি তো কানা লোক না আমাক বুঝাই দিছে।’

আব্বাস আলী বলেন, ‘যেভাবে বুঝাইছে তাতে আমার মুনে হইছে যে, ম্যুরালটা হইলে আমার ভুল হয়্যা যাবে। এ জন্য চেঞ্জ করছি। এই খবরটাও যদি আবার যায় তো আবার রাজনীতি শুরু হয়ে যাবে। ওই বঙ্গবন্ধুর ম্যুরাল দিত চাইয়া দিচ্ছে না! বঙ্গবন্ধুক খুশি করতে যাইয়া জায়গা নারাজ করব নাকি? এইডা লিয়েও রাজনীতি করবে কিন্তু আমি সিওর। তবে করলে কিছু করার নাই। মানুষেক সন্তুষ্ট করতে যাইয়া আল্লাক অসন্তুষ্ট করা যাবে না তো।’

১২ মিনিট ৩ সেকেন্ডের আরেকটি অডিও ক্লিপে স্থানীয় রাজনীতির নানা বিষয় নিয়ে কথা বলেন মেয়র আব্বাস। একপর্যায়ে রাজশাহী সিটি করপোরেশনের মেয়র ও সম্প্রতি আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলির পদ পাওয়া এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটনকেও কটূক্তি করতে শোনা গেছে। আছে অশ্লীল ভাষায় গালিগালাজও। তবে কথার একপর্যায়ে আব্বাস আলী বলেছেন, তিনি কারো রাজনীতি করেন না। রাজনীতি করেন বঙ্গবন্ধু এবং প্রধানমন্ত্রীর।

আব্বাস আলী কাটাখালী পৌর আওয়ামী লীগের আহ্বায়ক। ২০১৫ সালে তিনি আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পেয়ে প্রথমবার মেয়র নির্বাচিত হন। ২০২০ সালের ডিসেম্বরে অনুষ্ঠিত নির্বাচনেও তিনি নৌকা প্রতীক নিয়ে মেয়র নির্বাচিত হন। তাঁর এ ধরনের বক্তব্য নিয়ে মন্তব্য করতে চাননি রাজশাহী সিটি করপোরেশনের মেয়র খায়রুজ্জামান লিটন।

এদিকে বঙ্গবন্ধুকে অবমাননা করার প্রতিবাদে কাটাখালী পৌরসভার মেয়র আব্বাস আলীর বিরুদ্ধে বিক্ষোভের ডাক দিয়েছে আওয়ামী লীগ। বুধবার বেলা সাড়ে ১০টায় কাটাখালি বাজারে এ বিক্ষোভের কর্মসূচী ঘোষণার করেছেন পৌর আওয়ামী লীগের যুগ্ম আহ্বায়ক জহুরুল আলম রিপন। তিনি বলেন, আওয়ামী লীগ এবং অঙ্গ ও সহযোগি সংগঠনের পক্ষ থেকে এই বিক্ষোভের কর্মসূচী দেয়া হয়েছে। আমাদের দাবি, দ্রুত মেয়র আব্বাস আলীকে আওয়ামী লীগ থেকে স্থায়ীভাবে বহিস্কার করতে হবে। এছাড়াও তার বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নিয়ে মেয়র পদ থেকেও তাকে অপসারণ করার দাবি জানানো হবে কর্মসূচিতে।

রাজশাহী জেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি অনিল কুমার সরকার বলেন, মেয়র আব্বাস আলীর কথোকথনের অডিও রেকর্ড তিনি শুনেছেন। বিষয়টি নিয়ে সাধারণ সম্পাদকের সঙ্গে আলোচনা করেছেন। আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কমিটিকেও জানানো হয়েছে। কেন্দ্রীয় কমিটি এ ব্যাপারে পদক্ষেপ নেবে। তাঁরাও এ বিষয়ে চিন্তাভাবনা করছেন।

এসবি/আরআর/জেআর


  • 60
    Shares