বইমেলা চলবে সাড়ে তিন ঘণ্টা!

  • 1
    Share

সাহেব-বাজার ডেস্ক : সংস্কৃতি প্রতিমন্ত্রী এক দিন আগেই জানিয়েছিলেন যে কোনো পরিস্থিতিতে বইমেলা চলবে। কিন্তু বইমেলা যে এভাবে চলবে সে ধারণা কারো ছিল না।  বইমেলার সময় নতুনভাবে নির্ধারণ করা হয়েছে বেলা ৩টা থেকে সন্ধ্যা সাড়ে ৬টা পর্যন্ত। বাংলা একাডেমির এ সিদ্ধান্তকে ‘হটকারী’ বলছেন প্রকাশকরা।

তারা বলছেন, বইমেলার যে সময়সীমা নির্ধারণ করা হয়েছে সে সময় মেলায় কোনো বিক্রিই হয় না। মেলার বিক্রিই হয় বিকাল ৫টা থেকে রাত ৯টা পর্যন্ত। এই সময়সীমায় বইমেলা খোলা রাখা প্রকাশকদের জোর করে ক্ষতির মুখে ফেলা হবে।

এ প্রসঙ্গে জ্ঞান ও সৃজনশীল প্রকাশক সমিতির সভাপতি ফরিদ আহমেদ বলেন, ‘বাংলা একাডেমি কোনো আলোচনা না করেই নতুন এ সময়সীমা নির্ধারণ করেছে। খবরটি জেনেছি সাংবাদিকদের কাছ থেকে। আজ বৃহস্পতিবার মহাপরিচালকের সঙ্গে বৈঠক করে আমরা পরবর্তী কর্মসূচি জানাব।’

এদিকে বইমেলার অন্যান্য প্রকাশক বলছেন, যে সময় নির্ধারণ করা হয়েছে সেটা অযৌক্তিক, অগ্রহণযোগ্য। প্রকাশকদের মেলার স্টল খরচের টাকাও উঠবে না। তারা মেলার সময়সূচি বিকাল সাড়ে ৪টা থেকে রাত ৯টা পর্যন্ত করার দাবি জানান। এ প্রসঙ্গে বইমেলা পরিচালনা কমিটির সদস্যসচিব ড. জালাল আহমেদ জানান, ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের সিদ্ধান্তে বইমেলার সময়সীমা তাৎক্ষণিক পরিবর্তন করা হয়েছে।

ধানমন্ডি থেকে বইমেলায় আসা পাঠক শাহনাজ পারভীন বলেন, ‘গাউছিয়া, বসুন্ধরা শপিংমল খোলা, বিসিএস পরীক্ষা নেওয়া হচ্ছে। সব চলছে, শুধু বইমেলার সময়সীমা কমানোর কোনো কারণ দেখি না।’

এদিকে সরকারের এ সিদ্ধান্তের আগে সংস্কৃতি প্রতিমন্ত্রী কে এম খালিদ জানান, বইমেলা বন্ধ হবে না। এখন পর্যন্ত বইমেলা স্বাস্থ্যবিধি মেনে ঠিকঠাক চলছে। যারা বইয়ের মূল প্রেমিক তারাই আসছেন বইমেলায়। কয়েক দিন ধরে বিক্রিও বেড়েছে। তাই বইমেলা বন্ধের কোনো সিদ্ধান্ত হয়নি।

বুধবার অমর একুশে বইমেলা ২০২১-এর ১৪তম দিনে নতুন বই এসেছে ৯৭টি। উল্লেখযোগ্য বইগুলো হচ্ছে—আগামী প্রকাশনী এনেছে রফিকুল ইসলামের ‘বঙ্গবন্ধু—মুক্তিযুদ্ধ’, মঞ্জু সরকারের ‘উজানযাত্রা’, অবসর এনেছে হায়াৎ মামুদের ‘কিশোর জীবনী নজরুল ইসলাম চিত্ররূপময় আলেখ্য’, নাগরী এনেছে আহমাদ মোস্তফা কামালের ‘যে পথে হেঁটে এসেছি’, আন্দালিব রাশদী অনূদিত ‘কাশ্মিরের কবিতা’, অনন্যা থেকে এসেছে হাবীবুল্লাহ সিরাজীর দিনলিপি ‘পরাজয় মানে না মানুষ’, অনিন্দ্য থেকে এসেছে আহমদ রফিকের প্রবন্ধগ্রন্থ ‘ বই পড়া: কাগজ পড়ার একান্ত ভুবন’, বিভাস থেকে এসেছে মহাদেব সাহার কাব্যগ্রন্থ ‘একুশ ও মুক্তিযুদ্ধের কবিতাসমগ্র’।

 

এসবি/এমই


  • 1
    Share