পড়াশোনায় আগ্রহ হারিয়েছে ৭৫.৫ শতাংশ শিক্ষার্থী

  • 13
    Shares

 

সাহেব-বাজার ডেস্ক : দেশে মহামারি করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাবের সময় বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থীরা মানসিক বিপর্যয়ের শিকার হন। বিশেষ করে অধিকাংশ শিক্ষার্থী মন খারাপ থাকা, ঠিকমতো ঘুম না হওয়া, নিজেকে তুচ্ছ ভাবা ইত্যাদি মানসিক স্বাস্থ্য সমস্যার মুখোমুখি হয়েছেন। এরমধ্যে শহরের চেয়ে গ্রামে অবস্থানরত শিক্ষার্থীদের মানসিক বিপর্যয়ের হার তুলনামূলকভাবে বেশি ছিল।

এছাড়া বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যয়নরত তিন-চতুর্থাংশ শিক্ষার্থী পড়াশোনায় আগ্রহ হারিয়েছেন। তবে এই সংকটের সময়েও এক-চতুর্থাংশ শিক্ষার্থী পড়াশোনার আগ্রহ অক্ষুণ্ন রেখেছেন।

তরুণদের সংগঠন আঁচল ফাউন্ডেশনের ‘করোনায় বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থীদের মানসিক বিপর্যয়: একটি প্রায়োগিক জরিপ’ শীর্ষক এক প্রতিবেদনে এই তথ্য উঠে এসেছে। গত ১২ থেকে ২৬ সেপ্টেম্বর দেশের দুই হাজার ৫৫২ জন বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থী এই জরিপে অংশ নেন। আজ অনলাইনে আয়োজিত অনুষ্ঠানে প্রতিবেদনটি তুলে ধরা হয়।

জরিপের তথ্য বলছে, মহামারির সময় বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যয়নরত ৭৫ দশমিক ৫ শতাংশ শিক্ষার্থী পড়াশোনায় আগ্রহ হারিয়ে ফেলেছেন, যা মোট শিক্ষার্থীর প্রায় তিন-চতুর্থাংশ। তবে সংকটের এই সময়ে ২৪ দশমিক ৫ শতাংশ শিক্ষার্থী পড়াশোনার আগ্রহ অক্ষুণ্ন রেখেছেন, যা মোট শিক্ষার্থীর এক-চতুর্থাংশ। এছাড়া এ সময় বিশ্ববিদ্যালয়গুলোয় সশরীরে শিক্ষা কার্যক্রম বন্ধ থাকায় অনলাইনে বিকল্প পদ্ধতিতে শিক্ষা কার্যক্রম চালানো হয়। তবে অনলাইন শিক্ষা নিয়ে সন্তুষ্ট হওয়ার ব্যাপারে লাইকার্ট স্কেলে ১-৫ স্কোরের মধ্যে অসন্তুষ্টি প্রকাশ করেছেন ৫৩ দশমিক ৫ শতাংশ শিক্ষার্থী। এসব শিক্ষার্থীর মধ্যে ৩১ দশমিক ৯ শতাংশের অসন্তুষ্টির মাত্রা আবার অনেক বেশি।

জরিপে প্রাপ্ত তথ্য বিশ্লেষণ করে দেখা যায়, মহামারিতে অধিকাংশ শিক্ষার্থী মন খারাপ থাকা, ঠিকমতো ঘুম না হওয়া, নিজেকে তুচ্ছ ভাবা ইত্যাদি মানসিক স্বাস্থ্য সমস্যার সম্মুখীন হয়েছেন। এ সময় শিক্ষার্থীদের মধ্যে ৮৪ দশমিক ৬ শতাংশ মানসিক স্বাস্থ্য সমস্যার সম্মুখীন হয়েছেন। এছাড়া পুরুষ শিক্ষার্থীর ৮০ দশমিক ৩৮ শতাংশ এবং নারী শিক্ষার্থীর ৮৭ দশমিক ৪৪ শতাংশ এই মানসিক স্বাস্থ্য সমস্যার সম্মুখীন হয়েছেন। শহরের চেয়ে গ্রামে অবস্থানরত শিক্ষার্থীদের মানসিক বিপর্যয়ের হার তুলনামূলকভাবে বেশি ছিল।

জরিপের প্রতিবেদনে বলা হয়, বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের তুলনায় সরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা বেশি মানসিক স্বাস্থ্য সমস্যার সম্মুখীন হয়েছেন। এই সময়ে ৮৬ দশমিক ৮৪ শতাংশ সরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী এবং ৮০ দশমিক ৬ শতাংশ বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী মানসিক স্বাস্থ্য সমস্যার সম্মুখীন হয়েছেন। তবে শিক্ষার্থীদের এসব মানসিক স্বাস্থ্য সমাধানে প্রতিটি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে মনোরোগ বিশেষজ্ঞ নিয়োগ দেওয়া, সবাইকে মানসিক স্বাস্থ্যসেবার আওতায় আনতে একটি জাতীয় হটলাইন সেবা চালুসহ আঁচল ফাউন্ডেশনের থেকে ছয়টি প্রস্তাব দেওয়া হয়েছে।

মনোবিদ দীপন সরকার গণমাধ্যমে জানিয়েছেন, করোনাকালে দীর্ঘ সময় ধরে শিক্ষার্থীদের স্কুল কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধ থাকার ফলে তাদের বন্ধুদের মধ্যে পারস্পরিক যোগাযোগ কমে যায়। পাশাপাশি নিয়মিত পড়াশোনার ব্যাঘাত ঘটা এবং ক্যারিয়ার নিয়ে দুশ্চিন্তা ইত্যাদি শিক্ষার্থীদের ব্যক্তিগত জীবন ও সামগ্রিক মানসিক স্বাস্থ্যের ওপর বিরূপ প্রভাব ফেলে। এ অবস্থায় শিক্ষার্থীদের উচিত বন্ধু ও পরিচিতজনদের মধ্যে পারস্পরিক যোগাযোগ বাড়ানো এবং নিজের জীবনের লক্ষ্যের প্রতি ফোকাস করে এগিয়ে যাওয়া।

 

এসবি/এমই


  • 13
    Shares