নিকলী হাওর ভ্রমণের খুঁটিনাটি

  • 6
    Shares

সাহেব-বাজার ডেস্ক : “বাংলার মুখ আমি দেখিয়াছি তাই পৃথিবীর রূপ খুঁজিতে চাই না আর” কবি জীবনানন্দ দাশের উক্তির সঙ্গে মিলে বলতে হয় যে প্রকৃতির অকৃত্রিম, অনাবিল ও অফুরন্ত সৌন্দর্যের লীলাভূমি বাংলাদেশ। এর প্রতি পরতে পরতে ছড়িয়ে ছিটিয়ে রয়েছে পাহাড়, নদী ও হাওরের নির্মল উজ্জ্বলতা। এমনই এক অপরূপ সৌন্দর্যমন্ডিত স্থান কিশোরগঞ্জের নিকলী হাওর।

কিশোরগঞ্জের নিকলী উপজেলায় অবস্থিত এই হাওর সদর থেকে ২৫ কিলোমিটার দূরে অবস্থিত। বর্ষাকালে হাওরের দখিনা বাতাসে নৌকার ভেসে চলা, দ্বীপের মত গড়ে ওঠা ঘরবাড়ির সৌন্দর্য এক অপরূপ দৃশ্যপট তৈরি করে। আবার শুষ্ক মৌসুমে রূপ পাল্টিয়ে ভিন্ন সাজে সেজে ওঠে পুরো হাওর এলাকা। জ্যোৎস্না রাতে নিকলী হাওরের সৌন্দর্য কয়েকগুণ বেড়ে যায়। হাওরের তরতাজা মাছের স্বাদ পেতে, স্বচ্ছ পানির খেলা দেখতে, দ্বীপের বুকে ভেসে থাকা ছোট ছোট গ্রামের অপরূপ সৌন্দর্য উপভোগ করতে চাইলে ঘুরে আসতে পারেন নিকলী হাওর।

উপযুক্ত সময়

হাওরের পানির রূপ দেখতে হলে নিকলী ভ্রমণের উপযুক্ত সময় জুলাই থেকে আগস্ট মাস। বর্ষাকালে দিগন্ত বিস্তৃত জলরাশির বুকে নৌকায় ঘুরে বেড়ানো সবচেয়ে উপভোগ্য। হাওরের ভিন্ন রূপ দেখার জন্য যেকোনো সময় যেতে পারেন।

নিকলী যাওয়ার উপায়

ঢাকা থেকে বাস কিংবা ট্রেন দুই ধরনের যানবাহনই ব্যবহার করতে পারবেন নিকলী হাওরে যাওয়ার জন্য। তবে কিশোরগঞ্জ, ভৈরব কিংবা আশেপাশের এলাকা থেকে সিএনজি করে যাওয়া যায়।

ঢাকা থেকে ট্রেনে যাওয়ার উপায়: ঢাকা থেকে ট্রেনে গিয়ে একদিনে ঘুরে আসা সম্ভব নিকলী হাওর। এ জন্য আন্তঃনগর এগারো সিন্ধু ট্রেনে উঠতে হবে। এই ট্রেন বুধবার বন্ধ থাকে। সপ্তাহের ৬ দিনই কমলাপুর রেল স্টেশন থেকে সকাল ৬টায় ছেড়ে বিমানবন্দর, টঙ্গী, নরসিংদী ও ভৈরব স্টেশন হয়ে কিশোরগঞ্জ পৌঁছায়। শ্রেণি অনুসারে ট্রেনের টিকেট ভাড়া ১২৫-২৫০ টাকা। ট্রেনে গেলে সকাল ১১ টার মধ্যে গচিহাটা স্টেশনে পৌঁছানো সম্ভব। স্টেশন থেকে ইজিবাইকে জনপ্রতি ভাড়া নেবে ৩৫ টাকা। রিজার্ভ সিএনজি নিলে ৩০০-৩৫০ টাকা ভাড়া নেবে। এতে সময় লাগবে ১ ঘণ্টা। একদিনে ভ্রমণ করে ফেরার সময় বাসে আসতে হবে।

ঢাকা থেকে বাসে নিকলী ভ্রমণের উপায়:

বাসে নিকলী হাওরে যেতে হলে আপনাকে অবশ্যই ঢাকার গোলাপবাগ, শনির আখড়া, সাইনবোর্ড থেকে যাতায়াত কিংবা অনন্যা সুপার সার্ভিস বাসে উঠতে হবে। প্রতিদিন ভোর ৫.৩০ মিনিট থেকে ১৫ মিনিট পরপর বাস ছেড়ে যায়। বাস ভাড়া জনপ্রতি ১৯০-২২০ টাকা। বাসে আসলে কিশোরগঞ্জের কটিয়াদি স্টেশনে আসতে সময় লাগবে সাড়ে তিন ঘণ্টা, সেখান থেকে সিএনজি রিজার্ভে ভাড়া খরচ হবে ৩৫০-৪০০ টাকা এবং নিকলী যেতে সময় লাগবে ১ ঘণ্টা ২০ মিনিট। কিশোরগঞ্জ বা ভৈরব থেকেও রিজার্ভ সিএনজি নিয়ে যাওয়া যায় নিকলী হাওরে। এতে সময় ও ভাড়া খরচ হবে কম।

খাবার ব্যবস্থা:

নিকলী হাওরে ভাল মানের খাবার হোটেল আছে। এর মধ্যে হোটেল সেতু, ক্যাফে ঢেউ সবচেয়ে ভাল। হাওরের তাজা মাছ ও লোভনীয় অনেক খাবার দিয়ে পেট ভরে খেতে পারবেন এসব হোটেলে।

কীভাবে ঘুরবেন:

হাওরের সৌন্দর্য দেখতে হলে অবশ্যই আপনাকে নৌকা ভ্রমণ করতে হবে। নৌকা ভ্রমণ করার জন্য ছোট বা বড় নৌকা ভাড়া করতে পারেন। ছোট নৌকায় ঘণ্টায় ভাড়া ৪০০-৫০০ আর বড় নৌকায় ঘণ্টায় ভাড়া নিবে ৭০০-৮০০। নৌকায় ভাসতে ভাসতে হাওরের চারপাশের মনোমুগ্ধকর রূপ দেখতে দেখতে প্রথমে যাবেন ছাতিরচর গ্রামে। বর্ষায় পানি বেশি থাকে বিধায় হাওরে গোসল করতে পারেন। তবে নিরাপত্তার জন্য লাইফ জ্যাকেট নিয়ে যাওয়া ভাল। জলাবনের সৌন্দর্য উপভোগ করতে চলে যান মনপুরায়। আধো ভাসমান চরে কিছুক্ষণ সময় কাটান। উন্মুক্ত হাওরে শেষ বিকেলের চমৎকার দৃশ্য দেখতে পুনরায় ফিরে আসেন নিকলী বেড়িবাঁধে। ফিরে আসার জন্য কটিয়াদি বাস স্টেশন থেকে সন্ধ্যার বাসে উঠে পড়ুন।

থাকতে হলে করনীয়

নিকলী তে খুব ভাল মানের আবাসিক হোটেল নেই। রাত থাকতে হলে আপনাকে কিশোরগঞ্জ সদরে চলে আসতে হবে। চাইলে নৌকায় বা ক্যাম্পিং করে রাত কাটাতে পারেন। এতে নিরাপত্তার কথা মাথায় রাখতে হবে।

নিকলীর আরও কিছু দর্শনীয় স্থান:

গুরই শাহে জামে মসজিদ, নিকলী বেড়িবাঁধ, পাহাড় খার মাজার, গুরই প্রাচীনতম আখড়া।

 

এসবি/এমই


  • 6
    Shares