দেশে তিনজনের একজন আক্রান্ত ফ্যাটি লিভারে


সাহেব-বাজার ডেস্ক : বাংলাদেশে প্রতি তিনজনে একজন ফ্যাটি লিভারে আক্রান্ত। প্রায় সাড়ে চার কোটি মানুষ ফ্যাটি লিভারে ভুগছেন। তাদের মধ্যে প্রায় এক কোটি মানুষ সিরোসিস বা লিভার ক্যানসারের ঝুঁকিতে আছেন। বিশ্ব ন্যাশ দিবস উপলক্ষে রাজধানীর সিরডাপ মিলনায়তনে এক বৈজ্ঞানিক সেমিনার ও সচেতনতামূলক ক্যাম্পেইনে এসব তথ্য জানান স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা।

তারা বলছেন, দেশে এক কোটি মানুষ ফ্যাটি লিভারজনিত প্রতিরোধযোগ্য লিভার সিরোসিস ও লিভার ক্যানসারের ঝুঁকিতে আছেন। অথচ শুধু খাদ্যাভ্যাস ও জীবনযাত্রার ধরন পরিবর্তন এবং ওজন কমানোর মাধ্যমে ফ্যাটি লিভার ও ন্যাশ প্রতিরোধ করা যায়।

হেপাটোলজি সোসাইটি এই সেমিনারের আয়োজন করে। সংগঠনের প্রেসিডেন্ট অধ্যাপক মবিন খানের সভাপতিত্বে সেমিনারে সাবেক তত্ত্বাবধায়ক সরকারের স্বাস্থ্য উপদেষ্টা মেজর জেনারেল ডা. এএসএম মতিউর রহমান, আইসিডিডিআর-বির নির্বাহী পরিচালক ড. তাহমিদ আহমেদ প্রমুখ বক্তব্য রাখেন।

বক্তারা বলেন, লিভার রোগজনিত মৃত্যুকে বিশ্বব্যাপী মারাত্মক জনস্বাস্থ্য সমস্যা হিসেবে দেখা হচ্ছে। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার তথ্যমতে, বাংলাদেশে মোট মৃত্যুর ২ দশমিক ৮২ শতাংশ লিভারের রোগ, সিরোসিস ও লিভার ক্যানসারের কারণে হয়ে থাকে। লিভার সিরোসিস ও ক্যানসারের অন্যতম প্রধান কারণ লিভারে চর্বি জমাজনিত প্রদাহ। চিকিৎসা বিজ্ঞানে একে স্টিয়াটো-হেপাটাইটিস বলা হয়।

অতিরিক্ত চর্বি জমা হওয়ার কারণে যকৃতে যে প্রদাহ সৃষ্টি হয় তাকেই স্টিয়াটো-হেপাটাইসিস বলে। ফ্যাটি লিভারের বিপজ্জনক পরিণতি হলো ন্যাশ। নির্ণয়হীন ও নিয়ন্ত্রণহীন অবস্থায় ফ্যাটি লিভার বিপজ্জনকভাবে ন্যাশের দিকে অগ্রসর হতে থাকে। লিভারে প্রদাহ সৃষ্টি করা ছাড়াও যকৃতে চর্বি জমার আরও কিছু খারাপ দিক রয়েছে।

এই রোগটি হৃদরোগ, ডায়াবেটিস ও শরীরে ইনস্যুলিন হরমোনের কার্যকারিতা কমে যাওয়ার সঙ্গে সরাসরি জড়িত। বিশ্বের মতো বাংলাদেশেও রোগটির প্রাদুর্ভাব আশঙ্কাজনক হারে বাড়ছে।

প্রসঙ্গত, বৃহস্পতিবার বিশ্বের অন্যান্য দেশের মতো বাংলাদেশেও পঞ্চম আন্তর্জাতিক ন্যাশ দিবস পালন করা হচ্ছে। দিবসটি উপলক্ষে হেপাটোলজি সোসাইটি এই সেমিনারের আয়োজন করে।

 

এসবি/এমই