ডিম ভাজি দিয়ে ভাত খেতে পছন্দ করি

  • 1
    Share

সাহেব-বাজার ডেস্ক: বার্গার খেলে লিপস্টিকে লেগে যাওয়া, পেটি বের হওয়া ও ছড়িয়ে যাওয়ার বিড়ম্বনার সমাধান পেয়েছেন অভিনেত্রী জয়া আহসান।এমন সমাধান পেয়ে বেশ খুশি এই অভিনেত্রী। তা কোথায় পেলেন এর সমাধান? জয়া আহসান জানালেন, সম্প্রতি “ফর দ্য লাভ অফ ফুড” নামের একটি অনুষ্ঠানের তৃতীয় পর্বে হাজির হয়েছিলেন তিনি। সেখানেই মিললএ সমাধান ।

ঘরের নাকি বাইরের খাবার বেশি পছন্দ আপনার? এমন প্রশ্ন ছুড়ে দিলে বছর শেষে জয়া জানিয়ে দিলেন, বাংলাদেশের ঐতিহ্যবাহী সব খাবার তার ভালো লাগে।সেটা ঘরের হোক কিংবা বাইরের। পাশাপাশি মেক্সিকান, জাপানি ও কোরিয়ান খাবারও ভালো লাগে জয়ার।

জয়া বলেন, আমি খেতে ভালোবাসি, তাই খাওয়া নিয়ে এতো কিছু ভাবি না। বাংলাদেশের ঐতিহ্যবাহী সব খাবার সবই ভালো লাগে। সেটা ঘরের হোক কিংবা বাইরের। আবার মেক্সিকান, জাপানি ও কোরিয়ান খাবারও ভালো লাগে।

জয়া আহসান জানালেন তিনি ভালো দই-পান্তা বানাতে পারেন। ডিম ভাজি দিয়ে ভাত খেতে পছন্দ করেন। ছোট বেলায় জয়ার নানী তাকে প্রচুর তেতো খাবার খাওয়াতেন। এখনও সেই অভ্যাস রয়ে গেছে; কারন তেতো খেলে ত্বক ও শরীর দুটোই ভালো থাকে।

জয়া আহসান এসবই জানিয়েছেন ‘ফর দ্যা লাভ অফ ফুড’ শোতে। এতে টেকআউট রেস্টুরেন্টের স্বত্বাধিকারী ও শেফ জোবায়ের হোসেনের সহায়তায় বিশেষ বার্গার তৈরি করেছেন। আয়ত্ব করেছেন বার্গারসহ রেস্টুরেন্টের নানা বিষয়।

করোনা মহামারীতে ফুডপ্যান্ডা অ্যাপের মাধ্যমে অর্ডার করে খেয়েছেন প্রিয় রেস্টুরেন্টের খাবার। এখনও বাসা থেকে বের হতে না চাইলে সহজে ফুডপ্যান্ডা অ্যাপে অর্ডার করে পছন্দের রেস্টুরেন্টের খাবার সংগ্রহ করেন বলে জানান তিনি। যথা সময়ে পছন্দের খাবার পৌছে দেয়ায় ‘ফুডপ্যান্ডা’র প্রতি কৃতজ্ঞ তিনি।

দুই বাংলার জনপ্রিয় এই অভিনেত্রীর অভিনয় জীবনে বিশেষ টার্নিং পয়েন্ট হলো প্রথম টেলিভিশন থেকে চলচ্চিত্রে আসার সিদ্ধান্ত এবং চলচ্চিত্রে এসে আর টেলিভিশন নাটকে ফেরেননি। দ্বিতীয়ত টার্নিং পয়েন্ট কলকাতার চলচ্চিত্রে অভিনয় করতে যাওয়া ও সেই সময়গুলো।

খাওয়া-ধাওয়া, ঘুরাফেরা ও মুভি দেখা এই তিনে মিলেই জয়া আহসানের নতুন বছরের প্রত্যাশা হচ্ছে করোনা পরবর্তীতে সিনেমা হলগুলো আগের মতো খুলবে এবং দর্শকরা হল মুখী হবে। বাংলা সিনেমার অতীতের সোনালী অধ্যায় ফিরে আসবে।

এসবি/জেআর


  • 1
    Share