গ্রুপ পর্ব থেকে বাদ পড়া এড়াতে পারবে ফ্রান্স?


সাহেব-বাজার ডেস্ক : কথায় আছে, বিজয়ের মুকুট অর্জনের চেয়ে সেটা ধরে রাখা আরও বেশি কঠিন। বিশ্বকাপ ইতিহাসে এই কথাটি সবচেয়ে ভালোভাবে বুঝেছে চারটি দল। ডিফেন্ডিং চ্যাম্পিয়ন হিসেবে খেলতে এসে প্রথম রাউন্ড থেকেই বিদায় নেওয়ার তিক্ত অভিজ্ঞতা হয়েছে তাদের।

গত পাঁচ আসরেই এ রকম ঘটনা ঘটেছে চারবার। এর মধ্যে গত তিন আসরে আবার প্রথম রাউন্ড থেকে টানা বিদায় নিয়েছে বিশ্ব চ্যাম্পিয়নরা। ২০০২ সালে ফ্রান্স, ২০১০ সালে ইতালি, ২০১৪ সালে স্পেন ও ২০১৮ সালে জার্মানি গ্রুপ পর্ব থেকেই বাদ পড়ে। শেষবার রাশিয়া বিশ্বকাপের চ্যাম্পিয়ন ফ্রান্সের পালা এবারে এই ধারা ভাঙার।

১৯৯৮ সালে ব্রাজিলকে হারিয়ে চ্যাম্পিয়ন হয় ফ্রান্স। ২০০২ আসরেরও তারা ছিল অন্যতম ফেভারিট। ডেনমার্ক, সেনেগাল ও উরুগুয়ের সঙ্গে গ্রুপ ‘এ’ তে পড়েছিল ফ্রান্স। সবাইকে অবাক করে দিয়ে গ্রুপ পর্বের তিন ম্যাচে একটিও জিততে পারেনি তারা। ফলে চার দলের মধ্যে সবার তলানিতে থেকে বিশ্বকাপ থেকে বিদায় নিতে হয় ফ্রান্সকে।

২০০৬ সালে ফ্রান্সকে টাইব্রেকারে হারিয়ে চ্যাম্পিয়ন হয় ইতালি। ২০১০ বিশ্বকাপে স্লোভাকিয়া, নিউজিল্যান্ড ও প্যারাগুয়ের সঙ্গে ‘এফ’ গ্রুপে পড়েছিল ইতালি। কিন্তু গ্রুপে তিন ম্যাচ খেলে ইতালি জিততে পারেনি একটিও। দুই ড্রয়ের পাশাপাশি হেরেছিল একটি ম্যাচ। ফলে ফ্রান্সের মতোই গ্রুপে সবার তলানিতে থেকে বিশ্বকাপ শেষ করতে হয়েছিল আজ্জুরিদের।

২০১০ সালে নেদারল্যান্ডসকে ০-১ গোলে হারিয়ে চ্যাস্পিয়ন হওয়ার গৌরব অর্জন করে স্পেন। পরে ২০১৪ বিশ্বকাপে তাদের গ্রুপ পর্ব থেকে বিদায় নিতে হয়। এই বিশ্বকাপে প্রথম ম্যাচে নেদারল্যান্ডসের কাছে ৫-১ গোলে বিদ্ধস্ত হওয়ার পর দ্বিতীয় ম্যাচে চিলির কাছেও ২-০ গোলে হেরে প্রথম রাউন্ড থেকেই বিদায় নেয় স্পেন। শেষ ম্যাচে অবশ্য অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে ৩-০ গোলের সান্ত্বনার জয় জুটেছিল তাদের।

২০১৪ সালে আর্জেন্টিনাকে কাঁদিয়ে চ্যাম্পিয়ন হয় জার্মানি। ২০১৮ সালে টানা দ্বিতীয় বিশ্বকাপ জয়ের জন্য ফেভারিট হিসেবেই রাশিয়ায় এসেছিল জার্মানি। কিন্তু মেক্সিকো ও দক্ষিণ কোরিয়ার কাছে হেরে গ্রুপ পর্ব থেকেই বিদায় নিতে হয়েছিল ডিফেন্ডিং চ্যাম্পিয়ন জার্মানিকে।

২০১৮ ফিফা বিশ্বকাপ ফাইনালে ক্রোয়েশিয়াকে হারিয়ে চ্যাম্পিয়ন হয় ফ্রান্স। এবার তারা ফেভারিট হিসেবে খেলতে গেছে কাতার বিশ্বকাপে। ইতিমধ্যে ইনজুরিতে বাদ পড়েছে তাদের ব্যালন ডি অর জয়ী খেলোয়াড় করিম বেনজামা। দিদিয়ের দেশমের ফ্রান্স এবার এই ধারা ভাঙতে পারবে কি না তার জন্য অপেক্ষ করতে হবে কয়েকদিন। এবার ফ্রান্সের গ্রুপে আছে অস্ট্রেলিয়া, ডেনমার্ক ও তিউনিসিয়া।

 

এসবি/এমই