কলকাতার আদালতে পরিচয় স্বীকার পিকে হালদারের


সাহেব-বাজার ডেস্ক : অর্থ আত্মসাৎ ও পাচারের অভিযোগে ভারতের কলকাতায় আটক এনআরবি গ্লোবাল ব্যাংকের সাবেক ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) প্রশান্ত কুমার হালদার ভরা আদালতে নিজের পরিচয় স্বীকার করেছেন।

মঙ্গলবার কলকাতার ব্যাঙ্কশাল আদালতের সিবিআই স্পেশাল কোর্ট-৩ এ হাজির করার পর আসামিদের পরিচয় পর্বের সময় কাঠগড়ায় দাঁড়িয়ে হাত তুলে তিনি নিজেকে প্রশান্ত কুমার হালদার বলে পরিচয় দেন। এ সময় পিকে হালদারসহ অভিযুক্ত ৬ সহযোগীও নিজেদের পরিচয় স্বীকার করেন। এতে আদালতে বিব্রত অবস্থায় পড়েন আসামিপক্ষের আইনজীবীরা।

আসামিপক্ষের আইনজীবীরা এতোদিন অভিযুক্তদের বাংলাদেশি পরিচয় অস্বীকার করে তাদের ভারতীয় পরিচয়কেই আদালতের সামনে নিয়ে আসছিলেন।

শুনানি শেষে আদালত পিকে হালদারসহ সব অভিযুক্তকে ফের ১৪ দিনের জেল হেফাজতের নির্দেশ দেন।

ভারতীয় গণমাধ্যম সূত্রে খবর, মঙ্গলবার সকাল ১০টা ৫০ মিনিটে কলকাতার ব্যাংকশাল আদালতে মূল অভিযুক্ত প্রশান্ত কুমার হালদার ও তার ভাই প্রাণেশ কুমার হালদার, ইমাম হোসেন ওরফে ইমন হালদার ওরফে পৃথ্বীশ হালদার, স্বপন মৈত্র ওরফে স্বপন মিস্ত্রি, উত্তম মৈত্র ওরফে মিস্ত্রি, আমানা সুলতানা ওরফে শর্মী হালদারসহ মোট ছয়জনকে আনা হয়। দুপুর ১২টার কিছু পর স্পেশাল সিবিআই কোর্ট-৩ এ তাদের সকলকে হাজির করা হয়।

নির্দিষ্ট সময়ে আসামি পক্ষের তিন আইনজীবী উপস্থিত থাকলেও ইডির আইনজীবী অরিজিৎ চক্রবর্তী উপস্থিত হতে পারেননি। প্রায় এক ঘণ্টার বেশি সময় আদালত কক্ষে বিচারক জীবন কুমার সাধু অপেক্ষা করার পর অবশেষে ইডির আইনজীবীকে ছাড়াই পিকে হালদারসহ অভিযুক্ত ছয়জনকে ফের ১৪ দিনের জেল হেফাজতের নির্দেশ দেন। আগামী ৫ জুলাই ফের অভিযুক্তদের আদালতে হাজির করা হবে।

পরে ইডির আইনজীবী অরিজিৎ চক্রবর্তী আদালতে হাজির হয়ে জানান, আরও প্রায় ৪৫টি নতুন সম্পত্তির হদিস পেয়েছে ইডি, যার অধিকাংশই বেনামে কেনা। এসব সম্পদের মালিকদের চিহ্নিত করার কাজ করছে ইডি।

এসবি/এআইআর