উপভোগ না করায় কোটি টাকার চাকরি ছাড়লেন লিন


সাহেব-বাজার ডেস্ক : মাইকেল লিন ২০১৭ সালে আমাজনের চাকরি ছেড়ে সিনিয়র সফটওয়ার প্রকৌশলী হিসেবে যোগ দেন নেটফ্লিক্সে। বার্ষিক বেতন ৪ লাখ ৫০ হাজার ডলার। যা বাংলাদেশি টাকায় প্রায় ৪ কোটি ১৫ লাখ টাকা। এরপরও তিনি সেই চাকরি ছেড়ে দেন। কারণ হিসেবে মাইকেল লিন বলেছেন, তিনি নেটফ্লিক্সের কাজটাকে উপভোগ করতে পারছেন না।

এ ব্যাপারে গণমাধ্যমকে মাইকেল লিন বলেন, ‘পদোন্নতি আর সান ফ্রান্সিসকোর সমুদ্রতীরবর্তী এলাকায় একটি বাড়ি পেয়ে আমি খুশিই ছিলাম। তখন মনে হয়েছিল পেশাজীবনের বাকি সময়টা নেটফ্লিক্সে কাটিয়ে দেব। প্রথমে প্রতিদিনই নতুন নতুন বিষয় শিখছিলাম। কিন্তু চাকরির দুই বছরের মাথায় সব কেমন যেন হতে থাকে। প্রকৌশলীর কাজ হয়ে যায় শুধু কপি ও পেস্ট করা।’ মূলত এমন হওয়ার পর থেকে চাকরি ছাড়ার কথা মাথায় আসে বলে জানান তিনি।

এরপর ২০২১ সালের এপ্রিলে ঘটে অস্বস্তিকর আরেক ঘটনা। যার অধীনে লিন কাজ করেন সেই ব্যবস্থাপক তার কাজের মূল্যায়ন করছিলেন। তখন লিনের সঙ্গে তার ব্যবস্থাপকের এ নিয়ে বাগ্‌বিতণ্ডা হয়। এর দুই সপ্তাহ পর নিজের ভবিষ্যৎ নিয়ে ভাবতে শুরু করেন লিন।

এরপর তিনি ব্যবস্থাপকের সঙ্গে আলোচনা করে নেটফ্লিক্সের সাথে সম্পর্কচ্ছেদের কথা জানান। নেটফ্লিক্স কর্তৃপক্ষ আসন্ন পরিস্থিতি বিবেচনায় তাকে চাকরিচ্যুত করার সিদ্ধান্ত নেয়। বরখাস্ত হওয়ার সব ধরনের সুবিধা পান লিন।

লিনের এমন কর্মকাণ্ডে তার আশপাশে যারা থাকেন, তারা মনে করেছিলেন লিন পাগল হয়ে গেছেন। লিনের মা ও বাবা বিষয়টা ভালোভাবে নেননি। যে কঠোর পরিশ্রম করে যুক্তরাষ্ট্রে অভিবাসী হিসেবে পাড়ি জমিয়েছিলেন, সেটা বুঝি ব্যর্থ হয়ে গেল বলে মনে হয় তাদের। তবে তাদের ধারণাকে মিথ্যা প্রমাণ করে চাকরি ছাড়ার ৮ মাস পরে এসে লিন এখন নিজে একটি প্রতিষ্ঠান খুলেছেন। নিজের জন্য কাজ করার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন তিনি। হয়ে উঠেছেন একজন উদ্যোক্তা। সূত্র: রিপাবলিক ওয়ার্ল্ড/টাইমস নাও

এসবি/এআইআর