ইউপি চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে নানা অভিযোগ সদস্যদের


নিজস্ব প্রতিবেদক: রাজশাহীর দুর্গাপুর উপজেলার দেলুয়াবাড়ি ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান রিয়াজুল ইসলামের বিরুদ্ধে নানা অভিযোগ তুলে ধরেছেন আটজন সদস্য। বৃহস্পতিবার বেলা ১১টার দিকে রাজশাহী সাংবাদিক ইউনিয়ন কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলন করে তাঁরা এসব অভিযোগ তুলে ধরেন।

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে ইউপি সদস্য আবুল বাশার বলেন, ইউপি চেয়ারম্যান রিয়াজুল ইসলাম সম্প্রতি আড়াই মেট্রিক টন চাল আত্মসাত করেছেন। তিনি পরিষদে নিজের ইচ্ছেমতো যা খুশি করেন। নিষিদ্ধ থাকলেও এলাকায় অবৈধভাবে অনেক পুকুর খনন করেছেন। এ জন্য ভ্রাম্যমাণ আদালতে তাঁর কারাদণ্ডও হয়েছিল। সম্প্রতি মাদক মামলার আসামি এক ইউপি সদস্যকে জামিনে মুক্তির জন্য জীবিত মায়ের মৃত্যু সনদ দিয়েছেন ইউপি সদস্য।

বর্তমান পরিষদের আগের পরিষদে তিনি ২০১৬ থেকে ২০২১ সাল পর্যন্ত ১২ জন ইউপি সদস্যের ৩৫ মাসের মাসিক ভাতা ১৮ লাখ ৪৮ হাজার টাকা আত্মসাত করেছেন। তিনি ইউনিয়ন পরিষদের সরকারি টাকায় তার নিজ পুকুরে যাওয়ার জন্য পাকা রাস্তা তৈরী করেছেন। এসব অভিযোগ নিয়ে জেলা প্রশাসকের কাছে লিখিত অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে। এর আগেও একাধিকবার অভিযোগ করেও তাঁর কোন শাস্তি হয়নি বলে সদস্যরা জানান।

সংবাদ সম্মেলনে ইউপি সদস্য তাজুল ইসলাম, খলিলুর রহমান, আফসার আলী, আবুল খায়ের, রহিদুল ইসলাম, সংরক্ষিত নারী সদস্য স্বুদো খাতুন, লাবনী খাতুন প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

এসব অভিযোগের বিষয়ে জানতে চাইলে ইউপি চেয়ারম্যান রিয়াজুল ইসলাম সবই অস্বীকার করেছেন। তিনি বলেন, এখন যেসব সদস্য আছেন তারা আগের টার্মেও ছিলেন। ওই সময়ও তাঁরা আমার বিরুদ্ধে মিথ্যা অভিযোগ দিয়েছিলেন। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা তাদের অভিযোগ তদন্ত করে কোন সত্যতা পাননি। এবারও তারা মিথ্যা অভিযোগ করছেন। চেয়ারম্যানের একক স্বাক্ষরে কোন টাকা তোলা সম্ভব নয়। তাই আত্মসাতেরও কোন সুযোগ নেই। নিজের পুকুরের জন্য রাস্তা করার অভিযোগও অস্বীকার করেছেন তিনি।

এসবি/আরআর/এআইআর