Ad Space

তাৎক্ষণিক

রবিনের ইকু মামা । সোহেল বীর

খেলতে খেলতে মামা হঠাৎ চিৎকার করে ওঠে। কি হলো জানার জন্য সবাই মামার কাছে ছুটে যায়। মামা কিছু না বলে থুথু ফেলতে থাকে- ওয়াক থু, ওয়াক থু। কিছুক্ষণের মধ্যেই জানা গেল মামার গলার মধ্যে মাছি ঢুকে গেছে। গলা দিয়ে ঢুকে মাছি এতক্ষণে মামার পেটে চলে গেছে। খেলা বন্ধ করে সবাই ব্যস্ত হয়ে পড়লো মামাকে নিয়ে। বিস্তারিত…

অদ্ভুতুড়ে । এম. আসলাম লিটন

পর্ব-১ মানুষের কখন যে কী ইচ্ছে করে কে জানে। কত্তরকম কত্ত বিচিত্র সে সব ইচ্ছা! কারো পাহাড়ে যেতে ইচ্ছে করে, কারো ইচ্ছে সৌরজগতের পথে পথে ঘুরবে! কারো ইচ্ছে পাখি হয়ে ডানা মেলে নীল আকাশে উড়ে বেড়াবে। কিন্তু টিটনের  ইচ্ছেটা যেমন ভয়ংকর, তেমনি অদ্ভুতুড়ে। তার মনে ভূত হবার ইচ্ছে জেগেছে। ভূতের গল্প পড়তে পড়তে একবার অদ্ভুতুড়ে বিস্তারিত…

পাখির ছড়া । সাঈদ সাহেদুল ইসলাম

শালিক-শ্যামা-কাকাতুয়া-ময়না-টিয়ে পাখি, পোষ মানালে মধুর কথায় করে ডাকাডাকি। বউ কথা কও-কোয়েল-মোরগ এবং কবুতর, পোষ সহজে মেনে মুখর রাখে ঘর ও দোর।   দোয়েল-ঘুঘু-টুনটুনি বেশ ডাকে মধুর শিসে বুলবুলি-কোকিলের গানের কণ্ঠে সুধা মিশে। কুড়া-কোড়া-করকরে-কাঠঠোকরা নাচে-গায়, ফিঙে-ময়ুর ও বাঁশপাতির নাচন দেখা যায়।   ছোট্ট চড়–ই বানায় বাসা ঘরের চালে-কোণে, বৃক্ষ ডালে ঝুলিয়ে রেখে বাবুই বাসা বোনে। মেঘের বিস্তারিত…

দুটি ছড়া : এম এ কাইউম । আসাদুজ্জামান খোকন

ফাঁদ । এম এ কাইউম   কমলা বিলের কালো জলে ডিঙি তালের সারি পদ্ম–ভাটে জলপিপিদের মুক্ত আকাশ বাড়ি।   নিঝুম দুপুর সিই–কিরি–কির ডাকছে উড়াল ডানায় তিনটে ছানা হা করেছে জল টুবটুব পানায়।   চোখ পড়লো তিন শিকারির জলপিপিদের ডেরায় মুক্ত আকাশ হারিয়ে গেল খোপ পাতা সব ঘেরায়।   আরশিনগর । আসাদুজ্জামান খোকন   অচিন দেশে বিস্তারিত…

শামীম হোসেনের ভূতের ছড়া

ভূতের ভয়   ভূতের মাথায় চুল ছিলো না মস্ত ছিলো দাড়ি দুষ্টু ছেলে দাড়ি বেয়ে উঠতো ভূতের বাড়ি।   বাড়ির ভেতর ইয়া বড় ছিলো খেলার মাঠ মাঠের কোণে এত্তটুকুন ছিলো পুকুর ঘাট।   পুকুরভরা মাছ ছিলো না ভাসতো ভূতের ছানা পুকুরপাড়ে তাইতো সবাই করতো যেতে মানা।   দুষ্টু ছেলে গিয়ে দেখে ওসব কিছু নয় এখন বিস্তারিত…

আমকথন ।। আশরাফুল আলম পিনটু

থাম থাম ওই দেখ আম ঝুলে আছে গাছে- বল দেখি এ বাগানে কী কী আম আছে? লোহাচুর চেপি কালা ভরে আছে ডালপালা গোপাল-মোহনভোগ আর আছে কাঁচামিঠা সিঁদুরকুসুম যেন আমপিঠা টিয়েঠুঁটি ও আম্রপালি কোনো গাছ নেই খালি। শোন ওরে চ্যাঙড়া দুটো নাম বাদ দিলি- ফজলি ও ল্যাঙড়া।  

মেঘ দেখা খেলা ।। ধ্রুব এষ

ভাই বলল, ‘এটা কীরে?’ বোন বলল, ‘কোনটারে বনু?’ ভাই বলল, ‘উই যে দূরে।’ বোন বলল, ‘উই না, ওই। বল, ওই। বল, ওই যে দূরে।’ ভাই বলল, ‘উ… ওই যে দূরে।’ ‘আরেকবার বল।’ ‘ওই যে দূরে।’ ‘হয়েছে। এখন বল, কী বলছিলি?’ ‘উটা কী?’ ‘উফ্ফ্। উটা মানে? উটা মানে কী? বল, ওটা। বল। বল। না হলে বল বিস্তারিত…

জি এম হারূন-এর ছড়া

ঋতু ভেদে সুখ ফাগুন শেষে আগুন ঝরা রৌদ্র কুসুম হাসে নদীর কূলে ফুলেল ফুলে দোদুল উল্লাসে। আম কাঁঠালের আমন্ত্রণে বুড়ো শিশু সকলে আম কুড়োতে আমবাগানে যাচ্ছে দলে দলে। রূপকুমারী গেলই গেল এলো মধু মাস মধুমাসে মধুর রসে ভরে মনের আশ। এমনি করে বারো মাসে বারো রকম সুখ নিত্য এসে অনায়াসে ভরিয়ে রাখে বুক।

সুমন মাহমুদ-এর একগুচ্ছ ছড়া

লাট্টিম মাঠ, টিম লাট্টিম শুরু হলো খেল- লাট্টিম কার টিম হয়ে গেল ফেল? যার টিম লাট্টিম করে চুরমার তার টিম লাট্টিম খেলায় উইনার। মাকে ভালোবেসে মায়ের আঁচল ছড়ায় মধুর সোহাগ আদর সুখ ফিঙ্গে পাখি মায়ার টানে হয়েছে উন্মুখ। মিষ্টি সুরে দোয়েল বলে একটুও না ভাববো মাকে ঘিরে বুকের নীড়ে লিখবো মধুর কাব্য। আলতো চুমোয় দখিন বিস্তারিত…

ইচ্ছেপরি ।। শুভেচ্ছা রহমান

ভারী স্কুলব্যাগ ঘাড়ে নিয়ে বাসায় ঢুকল ক্লান্ত অরণী। এখন একটু বিশ্রামের পর আবার সামি ভাইয়া পড়াতে আসবে। ইশ! যদি পৃথিবীতে পড়ালেখা বলে কিছু না থাকত ভাবল অরণী। না না। কেবল একটা দিন যদি পেত সেদিন অরণী নিজের মনের মত করে গান গাইতে, ঘুরতে, মনের মত ছবি আঁকতে পারত। মায়ের ডাকে ভাবনায় ছেদ পড়ল তার। “কি বিস্তারিত…