ডিসেম্বর ১৩, ২০১৭ ৫:২২ অপরাহ্ণ

Home / রাজশাহীর সংবাদ / ঠাণ্ডাজনিত রোগে আক্রান্ত হচ্ছে শিশুরা

ঠাণ্ডাজনিত রোগে আক্রান্ত হচ্ছে শিশুরা

চাঁপাইনবাবগঞ্জ প্রতিনিধি : চাঁপাইনবাবগঞ্জে ঋতু পরিবর্তনের প্রভাবে জেলায় ঘরে ঘরে ঠাণ্ডাজনিত বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা বেড়েই চলেছে। তারা ভিড় জমাচ্ছে হাসপাতালের বহির্বিভাগ ও চিকিৎসকদের চেম্বারে।

শীতের শুরুতেই সব বয়সী মানুষ আক্রান্ত হচ্ছে ঠাণ্ডাজনিত সর্দি, কাশি ও জ্বরে। তবে শিশু ও বৃদ্ধদের ক্ষেত্রে এ রোগের প্রবণতা দেখা দিচ্ছে বেশি। মৌসুমী এসব রোগ শিশু আর বৃদ্ধদের বেশি হলেও এতে আক্রান্ত রোগী ও অভিভাবকদের আতঙ্কিত না হওয়ার পরামর্শ দিয়েছেন বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকরা।

চাঁপাইনবাবগঞ্জ আধুনিক সদর হাসপাতালে ইনডোরে প্রতিদিন গড়ে ভর্তি থাকছে ৫০ থেকে ৬৫ জন শিশু। ২৫০ শয্যার চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর আধুনিক হাসপাতালে শিশু ওয়ার্ডে আসন সংখ্যা রয়েছে মাত্র ১৮টি। ফলে ভর্তি হওয়া ওইসব শিশুদের মায়ের কোলে বা মেঝেতেই থাকতে হচ্ছে। সর্দি-কাশিসহ ঠাণ্ডাজনিত এসব রোগে আক্রান্ত হয়ে প্রতিদিন এ হাসপাতালে চিকিৎসা নিচ্ছেন প্রায় দেড়শ রোগী।

চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর আধুনিক হাসপাতালের শিশু ওয়ার্ডের শিশু বিশেষজ্ঞ ডা. আবুল কাশেম জানান, এবার ঋতু পরিবর্তনের সাথে সাথে নিউমোনিয়া, ইনফ্লুুয়েঞ্জার, সর্দি-কাশিসহ ঠাণ্ডাজনিত বিভিন্ন রোগে শিশুরা আক্রান্ত হয়ে প্রতিদিন আউটডোরে চিকিৎসা নিচ্ছে ১৪০ থেকে ১৫০ জন। এরমধ্যে ইনডোরে ভর্তি থাকছে গড়ে ৫০ থেকে ৬৫ জন শিশু। ভর্তি হওয়া শিশুরা একটু সুস্থ হলেই তাদের ছেড়ে দেয়া হচ্ছে। ফলে সিংহভাগ শিশুকে মেঝেতেই থাকতে হচ্ছে।

তিনি বলেন, দেড় মাস ধরে শিশুরা এসব রোগে আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে আসছে। এখন পর্যন্ত কোন পবির্তন নেই। অন্য বছরের তুলনায় এবার শিশুরা বেশি আক্রান্ত হচ্ছে। আক্রান্ত শিশুদের মধ্যে শূন্য থেকে ১ বছর বয়সী শিশুই বেশি।

তিনি আরো জানান, আক্রান্ত শিশুদের এন্টিবায়োটিক দেয়া হচ্ছে। চাঁপাইনবাবগঞ্জ সিভিল সার্জন ডা. কাজী শামীম হোসেন বলেন, প্রতিবছর শীতের শুরুতে শিশুরা নিউমুনিয়াসহ ঠাণ্ডাজনিত বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত হয়। তবে ঠিকমতো চিকিৎসা ও যত্ন নিলে এ শিশুদের এ ঠাণ্ডাজনিত রোগ দ্রুত সেরে যাবে।

এসবি/এআই/এমই

Print Friendly, PDF & Email

Check Also

কুয়াশায় দুই বাসের সংঘর্ষ, নিহত ৩

নিজস্ব প্রতিবেদক : ঘনকুয়াশার কারণে রাজশাহীর গোদাগাড়ী উপজেলায় দুটি যাত্রীবাহী বাসের মুখোমুখি সংঘর্ষ ঘটেছে। এতে এক …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *