নভেম্বর ২৩, ২০১৭ ১:৪০ অপরাহ্ণ

Home / রাজশাহীর সংবাদ / বাঘায় দুই চেয়ারম্যানের কাণ্ডে উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান রুমি

বাঘায় দুই চেয়ারম্যানের কাণ্ডে উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান রুমি

নিজস্ব প্রতিবেদক, বাঘা : রাজশাহীর বাঘা উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও জামায়াত নেতা জিন্নাত আলী বিরুদ্ধে একাধিক মামলা এবং ভাইস চেয়ারম্যান শফিউর রহমান শফির বিরুদ্ধে হলফ নামায় তথ্য গোপন রাখাসহ গম চুরি মামলায় সাজা বহাল হওয়ায় এবার বাঘা উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যানে দায়িত্ব পাচ্ছেন নারী ভাইস চেয়ারম্যান ফারহানা দিল আফরোজ রুমি।

সোমবার সন্ধ্যায় স্থানীয় সরকার মন্ত্রনালয়ের উপ-সচিব ড. জুলিয়া মঈন স্বাক্ষরিত একটি পত্রের মাধ্যমে এ তথ্য যানা গেছে।

জেলা প্রশাসকের মাধ্যমে প্রেরিত ওই চিঠিতে বলা হয়েছে, বাঘা উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান জামাত নেতা জিন্নাত আলীর নামে নাশকতাসহ একাধিক মামলা রয়েছে বাঘা থানায়। এ সমস্ত মামলার চার্জসিট (চুড়ান্ত প্রতিবিদন) প্রেরিত হয়েছে আদালতে। তাই দ্বিতীয়বার উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান জিন্নাত আলীকে তার পদ থেকে অব্যাহতি দিয়েছেন স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়।

এর আগে উপজেলা চেয়ারম্যান জিন্নাত আলী প্রায় তিন মাস হাজতে থাকাকালীন ভাইস চেয়ারম্যান শফিউর রহমান শফিকে মন্ত্রণালয় থেকে প্রেরিত একটি চিঠির মাধ্যমে চেয়ারম্যানের দায়িত্ব দেয়া হয়েছিল। কিন্তু ১৯৯৫ সালে বাঘার ১ নং বাজুবাঘা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান থাকাকালীন ১৫ টন গম আত্মসাত মামলায় শফিউর রহমানের সাজা প্রাপ্তির রায় গোপন রাখায় সেটি নতুন করে আমলে আসে এবং গতমাসের শেষ সপ্তায় তাকে ফের কারাগারে যেতে হয়।

বাঘা থানা সুত্রে জানা গেছে, এ বছর ঈদুল আজহা’র পুর্বে মসজিদে বসে গোপন বৈঠক এবং নাশকতার মামলায় প্রায় তিন মাস জেলহাজতে ছিলেন বাঘা উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও জামায়াত নেতা জিন্নাত আলী। তার নামে রয়েছে পুলিশকে মেরে অস্ত্র কেড়ে নেয়াসহ তিনটি নাশকতা ও একটি অস্ত্র মামলা। সব মিলে একদিকে চেয়ারম্যান, অন্যদিকে ভাইস চেয়ারম্যান দু’জনের-ই এমন কর্মকাণ্ডে এলাকায় ব্যাপক চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে।

এ বিষয়ে মুঠফোনে সোমবার রাতে বাঘা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শাহিন রেজার সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, স্থানীয় মন্ত্রনালয়ের উপ-সচিব ড. জুলিয়া মঈন স্বাক্ষরিত একটি পরিপত্র এসেছে। সেই পরিপত্র মোতাবেক এখন থেকে বাঘা উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান (নারী ভাইস চেয়ারম্যান) ফারহানা দিল আফরোজ রুমি।

এসবি/এনজেড/এমই

Print Friendly, PDF & Email

Check Also

লুমের চাকা ঘুরল ১৫ বছর পর

নিজস্ব প্রতিবেদক : রাজশাহী রেশম কারখানার লুমগুলো সর্বশেষ চলেছিল ২০০২ সালের ৩০ নভেম্বর। সরকার কারখানা …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *