Ad Space

তাৎক্ষণিক

  • রাবির আবাসিক হলে এইচএসসির অমুল্যায়িত খাতা!– বিস্তারিত....
  • জাতীয় পার্টি রাজনীতিতে বড় ফ্যাক্টর : এরশাদ– বিস্তারিত....
  • নাটোরে বৈশাখী মেলায় প্রকাশ্যে জুয়া ও অশ্লীল নৃত্য– বিস্তারিত....
  • প্রাণ ও প্রকৃতির প্রতি সহিংসতার বিরুদ্ধে নগরীতে প্রকৃতি বন্ধন– বিস্তারিত....
  • রাবি শিক্ষার্থীকে মারধরকারী যুবলীগ নেতার শাস্তি দাবি– বিস্তারিত....

পিতার নিষ্ঠুতার শিকার দুই শিক্ষার্থীর মা’কে দেয়া হলো সেলাই মেশিন

ফেব্রুয়ারি ৬, ২০১৭

নিজস্ব প্রতিবেদক, বাঘা : রাজশাহীর বাঘায় অভাব-অনটন আর পিতার নিষ্ঠুরতায় লেখাপড়া বন্ধ হয়ে যাওয়া রাবিয়া ও সাবিহা’র মায়ের হাতে সেলাই মেশিন তুলে দিয়েছেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা হামিদুল ইসলাম। সোমবার দুপুরে উপজেলা চত্বরে তাদের হাতে এই সেলাই মেশিন তুলে দেয়া হয়।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, উপজেলার চাকিপাড়া এলাকার কলেজ পড়ুয়া মেয়ে রাবিয়া (১৭) ও দশম শ্রেণীর শিক্ষার্থী সাবিহা (১৫) লেখাপড়া করে বড় হতে চাই। কিন্তু বাঁধা হয়ে দাঁড়ায় সংসারের অভাব-অনটন, বাবা ইউনুস আলী ও তার দ্বিতীয় স্ত্রী। তাঁদের ইচ্ছা দুই মেয়েকে বিয়ে দেওয়ার। আর এ প্রস্তাবে রাজি না হওয়ায় দুই মেয়েসহ প্রথম স্ত্রীর উপরে চলতে থাকে নির্যাতন। নিরুপায় হয়ে ওই দুই শিক্ষার্থী গতমাসের ৩০ তারিখ চোখের পানি ঝরিয়ে  উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার স্মরণাপন্ন হোন।

এদিকে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা তাদের অভাব-অনটন ও পিতার নিষ্ঠুরতার কথা শুনে ওই দুই শিক্ষার্থীর নিকট থেকে এ বিষয়ে একটি লিখিত অভিযোগ নেন এবং ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য বাঘা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাকে নির্দেশ দেন। এঘটনার পর বাড়ি থেকে পালিয়ে যায় অভিযুক্ত পিতা। যার সত্যতা নিশ্চিত করেন বাঘা থানার ওসি (তদন্ত) শ্রী ধীরেন্দ্রনাথ সরকার।

সর্বশেষ সোমবার তাদের অভাব-অনটনের কথা চিন্তা করে ওই পরিবারের মাঝে একটি সেলাই মেশিন তুলে দেন নির্বাহী কর্মকর্তা। এই সেলাই মেশিনটি গ্রহণ করেন রাবিয়া ও সাবিহার মা-রওশন আরা বেগম। এসময় উপস্থিত ছিলেন বাঘা উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) নাকিব হাসান, উপজেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা ওয়াহেদুজ্জামান, বাঘা প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক নুরুজ্জামান প্রমুখ।