Ad Space

তাৎক্ষণিক

নাটোরে স্কুল ছাত্রী ধর্ষণ মামলায় একজনের যাবজ্জীবন

ফেব্রুয়ারি ৫, ২০১৭

নাটোর প্রতিনিধি : নাটোরে স্কুল ছাত্রী ধর্ষণ মামলায় মনিরুজ্জামান মনির (২৮) নামে এক ব্যাক্তিকে যাবজ্জীবন কারাদ- এবং ৫০হাজার টাকা জরিমানা করেছে আদালত। এছাড়া অপর এক আসামীকে বেকসুর খালাস দিয়েছে আদালত। রোববার বিকেল সাড়ে ৩টার দিকে নাটোর জেলা জজ আদালতের বিচারক রেজাউল করিম এই রায় দেন। এছাড়া ধর্ষিতার ছেলে সন্তানের বয়স ১৮ বছর না হওয়া পর্যন্ত যাবতীয় খরচ সরকারকে বহনের জন্য নির্দেশ দেন বিচারক। দ-প্রাপ্ত মনিরুজ্জামান মনির লালপুর উপজেলার ধুপইল এলাকার আবদুল কুদ্দুস এর ছেলে।

নাটোর জজ কোর্টের পিপি অ্যাডভোকেট সিরাজুল ইসলাম জানান, যাবজ্জীবন দ-প্রাপ্ত আসামী মনিরুজ্জামান মনির একই এলাকার কাদিরাবাদ ক্যান্টমেন্ট পাবলিক স্কুলের সপ্তম শ্রেণির ছাত্রী আয়েশা সিদ্দিকা রিফার বাড়িতে গিয়ে প্রাইভেট পড়াতো। এ সময় তাদের মধ্যে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে  উঠে। পরে বিয়ের প্রলোভনে ওই স্কুল ছাত্রীকে ধর্ষণ করে মনিরুজ্জামান মনির। ঘটনার প্রায় তিনমাস পর অর্থাৎ ২০১০ সালের ১১ জুলাই বিষয়টি জানাজানি হলে ছেলের পরিবারকে বিয়ের জন্য চাপ দেয় স্কুল ছাত্রীর পরিবার। কিন্তু বিষয়টি অস্বীকার করে ছেলের পরিবার।

পরে ২০১০ সালের ১২ নভেম্বর স্কুল ছাত্রীর মা রওশনারা বেগম বাদি হয়ে মনিরুজ্জামান মনির এবং তার বোন লিজা খাতুনকে আসামী করে লালপুর থানায় একটি ধর্ষণ মামলা দায়ের করে। এরই মধ্যে মেয়েটি একটি পুত্র সন্তান প্রসব করে। মামলার দীর্ঘ স্বাক্ষ্য প্রমাণে ধর্ষণের বিষয়টি প্রমানিত হওয়ায় আদালত রোববার বিকেলে আসামী মনিরুজ্জামান মনিরকে যাবজ্জীবন এবং ৫০ হাজার টাকা জরিমানা করে। এছাড়া মনিরের বোন লিজা খাতুনকে বেকসুর খালাস দেয় আদালত। বিচারের সময় আসামী এবং ভুক্তভোগি পরিবার আদালতে উপস্থিত ছিলেন।