Ad Space

তাৎক্ষণিক

১৪ বছর কারাদণ্ড রাগীব আলী ও ছেলের

ফেব্রুয়ারি ২, ২০১৭

সাহেব-বাজার ডেস্ক : ভূমি মন্ত্রণালয়ের স্মারক জালিয়াতির মামলায় সিলেটের ব্যবসায়ী রাগীব আলী ও তার ছেলে আবদুল হাইকে চারটি ধারায় মোট ১৪ বছর কারাদণ্ডের রায় দিয়েছে আদালত। বৃহস্পতিবার সিলেটের মুখ্য মহানগর হাকিম সাইফুজ্জামান হিরো এই রায় ঘোষণা করেন। অতিরিক্ত পিপি মাহফুজুর রহমান রায়ের পর জানান, এ মামলায় পাঁচটি ধারায় দুই আসামির বিরুদ্ধে অভিযোগ আনা হয়েছিল। এর মধ‌্যে ৪৬৬ ধারায় ৬ বছর, ৪৬৮ ধারায় ৬ বছর, ৪৭১ ধারায় ১ বছর এবং ৪২০ ধারায় ১ বছরের সশ্রম কারাদণ্ডের রায় হয়েছে।

রায়ের সময় রাগীব আলী ও তার ছেলে আদালতেই উপস্থিত ছিলেন। গত ০১ ফেব্রুয়ারি (বুধবার) দুপুরে সিলেটের মুখ্য মহানগর হাকিম সাইফুজ্জামান হিরোর আদালতে মামলায় যুক্তিতর্ক শেষে রায়ের দিন ঠিক করা হয়।

প্রসঙ্গত, ১৯৯০ সালে ভুয়া সেবায়েত সাজিয়ে সিলেটের তারাপুর চা বাগানের দেবোত্তর সম্পত্তি দখল নেন রাগীব আলী। বাগানের একাংশে রাগীব আলী ও তাঁর স্ত্রীর নামে মেডিকেল কলেজ ও নার্সিং কলেজ স্থাপন করা হয়। দেবোত্তর সম্পত্তির চা বাগান বন্দোবস্ত নেওয়া ও চা-ভূমিতে বিধিবহির্ভূত স্থাপনা করার অভিযোগে ২০০৫ সালের ২৫ সেপ্টেম্বর সিলেটের তৎকালীন সহকারী কমিশনার (ভূমি) তথা এসি (ল্যান্ড) এস এম আবদুল কাদের বাদী হয়ে ভূমি মন্ত্রণালয়ের স্মারক জালিয়াতি ও সরকারের এক হাজার কোটি টাকা আত্মসাতের অভিযোগে দুটি মামলা করেন।

এই দুই মামলায় গত ১০ জুলাই আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল হলে ১২ আগস্ট আসামিদের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি হয়। ওই দিনই পালিয়ে ভারতের করিমগঞ্জ চলে যান রাগীব আলী ও তাঁর ছেলে।

এরপর ২৩ নভেম্বর ভারতের করিমগঞ্জ ইমিগ্রেশন পুলিশের হাতে গ্রেপ্তার হন রাগীব আলী। ওই দিনই তাকে দেশে পাঠানো হলে মামলায় গ্রেপ্তার দেখিয়ে কারাগারে পাঠানো হয়। এর আগে ১২ নভেম্বর ভারত থেকে জকিগঞ্জ ইমিগ্রেশন হয়ে দেশে ফেরার সময় আবদুল হাই গ্রেপ্তার হন।