Ad Space

তাৎক্ষণিক

  • জেলা পরিষদ চেয়ারম্যানের সঙ্গে ইউপি ফোরাম নেতৃবৃন্দের মতবিনিময়– বিস্তারিত....
  • জীববৈচিত্র্য সংরক্ষণে অভয়াশ্রমের গুরুত্ব বিষয়ক প্রশিক্ষণ– বিস্তারিত....
  • প্রতিপক্ষকে ফাঁসাতে গিয়ে তিন অস্ত্র কারবারি আটক– বিস্তারিত....
  • মোহনপুরে মাদক, সাজাপ্রাপ্ত ও ওয়ারেন্টভুক্ত আসামি গ্রেফতার– বিস্তারিত....
  • মোহনপুরে গলায় ফাঁস দিয়ে গৃহবধুর আত্মহত্যা– বিস্তারিত....

৮ দিনের রিমান্ডে ‘রাজীব গান্ধী’

জানুয়ারি ১৪, ২০১৭

সাহেব-বাজার ডেস্ক : রাজধানীর গুলশানে স্প্যানিশ রেস্তোরাঁ হলি আর্টিসানে হামলার অন্যতম ‘পরিকল্পনাকারী’ জাহাঙ্গীর আলম ওরফে রাজীব গান্ধীর আট দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত। শনিবার বিকেল ৩টায় ঢাকা মুখ্য মহানগর হাকিমের আদালতে মামলার তদন্ত কর্মকর্তা হুমায়ুন কবির রাজীব গান্ধীকে হাজির করে ১০ দিন রিমান্ডে নেওয়ার আবেদন করেন। ঢাকা মহানগর হাকিম মাহমুদুল হাসান শুনানিশেষে আট দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন। আদালতে আসামির পক্ষে এ সময় আদালতে কোনো আইনজীবী ছিলেন না। গত শুক্রবার রাতে টাঙ্গাইল থেকে গুলশানে হলি আর্টিসানে হামলার অন্যতম ‘পরিকল্পনাকারী’ জাহাঙ্গীর আলম ওরফে রাজীব গান্ধীকে গ্রেফতার করে পুলিশ।

মামলার নথি থেকে জানা যায়, গত বছরের ১ জুলাই রাতে গুলশানের হলি আর্টিসান বেকারিতে হামলা চালিয়ে দেশি-বিদেশি বেশ কয়জনকে জিম্মি করে জঙ্গিরা। পরদিন সকালে সেনা কমান্ডো অভিযানে জিম্মিদশার অবসান হয়।

তার আগেই ১৭ বিদেশি নাগরিকসহ ২০ জনকে হত্যা করে জঙ্গিরা। জঙ্গিদের প্রতিরোধ করতে গিয়ে মারা যান দুই পুলিশ কর্মকর্তা। এ ছাড়া অভিযানে মৃত্যু হয় সন্দেহভাজন পাঁচ জঙ্গির। আইএস ওই হামলার দায় স্বীকার করে পাঁচ হামলাকারীর ছবি প্রকাশ করলেও পুলিশ এ ঘটনার জন্য দেশিয় জঙ্গি দল জামাআতুল মুজাহিদীন বাংলাদেশকে (জেএমবি) দায়ী করে আসছে। সেদিন অভিযান শেষে উদ্ধার ১৩ জনসহ ৩২ জনকে নেওয়া হয় গোয়েন্দা পুলিশ কার্যালয়ে। এর পরেই এ ঘটনায় গুলশান থানায় সন্ত্রাসবিরোধী আইনে মামলা করে পুলিশ।

গত বছরের ৩ আগস্ট রাতে বসুন্ধরা আবাসিক এলাকা থেকে এ মামলার সন্দেহভাজন তাহমিদ এবং গুলশান আড়ংয়ের সামনে থেকে নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক শিক্ষক হাসনাতকে গ্রেফতার করে গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি)। এরপর তাহমিদ ও হাসনাতকে ফৌজদারি কার্যবিধির ৫৪ ধারায় বিভিন্ন মেয়াদে রিমান্ডে নেয় পুলিশ। পরবর্তী সময়ে পুলিশ হাসনাতের বিরুদ্ধে গুলশানে হামলার সরাসরি অভিযোগ এনে মূল মামলায় গ্রেফতার দেখায়। অপরদিকে তাহমিদের বিরুদ্ধে পুলিশকে অসহযোগিতা করার অভিযোগ আনা হয়। এর পরে তাহমিদ ঢাকার মুখ্য মহানগর হাকিমের আদালত থেকে জামিন নেন এবং হাসনাতের জামিন চাওয়া হলে একাধিকবার জামিন নাকচ করা হয়। তিনি এখন কারাগারে আটক।