Ad Space

তাৎক্ষণিক

  • চাঁপাইনবাবগঞ্জে জঙ্গি আটকের ঘটনায় ১৭ জনের বিরুদ্ধে মামলা– বিস্তারিত....
  • চাঁপাইনবাবগঞ্জে শিবিরের ঝটিকা মিছিল থেকে আটক ৭– বিস্তারিত....
  • পবিত্র রমজান শুরু রোববার– বিস্তারিত....
  • শ্রমিক ইউনিয়নের নির্বাচনে সংঘর্ষ, উদ্বিগ্ন সাংসদ বাদশা– বিস্তারিত....
  • ভোটের ‘ধর্মীয় সেন্টিমেন্টে’ ভাস্কর্য সরানোর ‘পক্ষে’ আ’লীগ-বিএনপি– বিস্তারিত....

চারঘাটে পুলিশের অভিযানে অবসরপ্রাপ্ত সার্জেন্টসহ ২২ জন গ্রেফতার

জানুয়ারি ১৩, ২০১৭

নিজস্ব প্রতিবেদক, চারঘাট : রাজশাহীর চারঘাটে পুলিশের বিশেষ অভিযানে সেনাবাহিনীর অবসরপ্রাপ্ত সার্জেন্টসহ বিভিন্ন মামলার ২২ জন আসামীকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। বৃহঃস্পতিবার রাত ১০টা থেকে ভোর ৬টা পর্যন্ত উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় অভিযান চালিয়ে তাদের গ্রেফতার করা হয়। শুক্রবার সকাল সাড়ে ১১ টায় গ্রেফতারকৃতদের জেল হাজতে প্রেরণ করা হয়েছে।

সংশ্লিষ্ট সুত্রে জানা যায়, বৃহঃস্পতিবার রাত ১০ টার দিকে মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা নিবারন চন্দ্র বর্মনের নেতৃত্বে ওয়ারেন্টসহ মাদকসেবনকারীদের ধরতে উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় চলে বিশেষ অভিযান। এ সময় চোর সন্দেহে নওগাঁ জেলার মান্দা থানা এলাকার জনৈক বাবলু নামের এক ব্যক্তিকে মারপিটের ঘটনায় মড়িয়া গ্রামের আবুল হোসেনের ছেলে সেনাবাহিনীর অবসরপ্রাপ্ত সার্জেন্ট রেজাউল করিম, একই এলাকার খলিলের ছেলে জলিল মন্ডল, ছালামের ছেলে কোরবান আলী, ইমান আলীর ছেলে সাখাওয়াত হোসেন, মাদকসেবনের অপরাধে মিয়াপুর গ্রামের মজিবার রহমানের ছেলে অস্ত্র মামলাসহ একাধিক মামলার আসামী মহিদুল ইসলাম, একই এলাকার নুরুল হকের ছেলে আরমান আলী, ছাত্তার আলীর ছেলে রাশেদুজ্জামান, ওমান আলীর ছেলে শহিদুল ইসলাম,মেরামতপুর এলাকার আব্দুর রাজ্জাকের ছেলে পান্ত চৌধুরী ও গৌরশহরপুর এলাকার মকবুল হোসেনের ছেলে বাহাদুর রহমানসহ বিভিন্ন মামলার ওয়ারেন্ট ভুক্ত ১২ জন সর্বমোট ২২ জন আসামীকে গ্রেফতার করে পুলিশ। গ্রেফতারকৃতদের শুক্রবার সকাল সাড়ে ১১ টার দিকে বিজ্ঞ আদালতে প্রেরন করেছে পুলিশ।

এ বিষয়ে মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা নিবারন চন্দ্র বর্মন জানান, মাদকসহ অপরাধ নিয়ন্ত্রনে চারঘাট মডেল থানা পুলিশ রয়েছে তৎপর। তারই ধারাবাহিকতায় মাত্র এক রাতে বিশেষ অভিযান চালিয়ে ২২ জনকে আটক করা হয়েছে। যা মাত্র ১৫ দিনের অভিযানের ফলাফল প্রায় দেড় শতাধিক আসামীকে আটক করতে সক্ষম হয়েছে পুলিশ। মাদকসহ চারঘাটকে অপরাধ মুক্ত করতে পুলিশের পক্ষ থেকে জিরো চলারেন্স দেখা হচ্ছে। কোন অবস্থাতেই অপরাধীদের ছাড় দেয়ার প্রশ্নইু আসেনা। তবে এসব করতে তথ্য দিয়ে পুলিশকে সহযোগীতার অনুরোধ জানিয়েছেন মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা নিবারন চন্দ্র বর্মন।