Ad Space

তাৎক্ষণিক

শিল্পকলার নতুন যাত্রী ‘একাঘ্নী’

জানুয়ারি ৫, ২০১৭

আকাশলীনা ডেস্ক : চলমান সময়ের বখে যাওয়া সময়ের সেবা না করে, নূতন সৃষ্টির প্রয়াসে একাঘ্নীর যাত্রা শুরু। কিন্তু কেনইবা এ প্রচেষ্টা আকাশবার্তার যান্ত্রিক যুগে? বিশ্বায়ন হাওয়া নিচুকে মাটিতে পিষে ফেলে, আর উঁচুকে আকাশে তুলে ধরে। চলে উঁচুতে নিচুতে দ্বন্দ্ব। অন্যদিকে সমগ্র মানবজাতির মধ্যে চলে শুভ-অশুভের যুদ্ধ। আমাদের শরীরে বিলাসিতার ভেতরে আরও একজন বাস করে। তাকে দেখা যায় না, অনুভব করতে হয়। লিটলম্যাগকর্মীদের বিবেকের কণ্ঠস্বর শুনে সকালে ঘুম ভাঙে, আর উঠেই প্রতিজ্ঞা করে বিবেকের বিরুদ্ধে কাজ করবো না। –এমন সম্পাদকীয় ভাষ্যের ইশতেহার নিয়ে ২ জানুয়ারি সোমবার বিকেলে আনুষ্ঠানিকভাবে শিল্পকলা বিষয়ক ছোটকাগজ একাঘ্নীর পথচলা শুরু হয়েছে। পত্রিকাটি সম্পাদনা করেছেন রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলা বিভাগের শিক্ষার্থী নাজ।
একাঘ্নী পরিবার এ উপলক্ষে সোমবার বিকেলে এক সাংস্কৃতিক আড্ডার আয়োজন করে। তারা চারুকলা চত্বরে একটি শিউলি ফুলের চারা রোপণ ও কেক কেটে একাঘ্নীর আনুষ্ঠানিক যাত্রার উদ্বোধন করেন। পরে মুক্তমঞ্চে সন্ধ্যাব্যাপী আড্ডায় আলোচনা, গান, কবিতাপাঠ চলে। প্রথমে একাঘ্নী নিয়ে আলোচনা পর্বে কথা বলেন, নওরোজ আলম, মিজানুর রহমান, কৌশিক আহমেদ, প্রদীপ দাশ, স্মৃতিদাস, সুজন হালদার প্রমুখ। তারা তাদের বক্তব্যে শিল্পকলা চর্চার প্রসঙ্গে একাঘ্নীর মতো ছোটকাগজের প্রয়োজনীয়তাকে গুরুত্ব দেন। তারা সকলেই একাঘ্নীর পথ চলায় আগামীর জন্য শুভ কামনা ব্যক্ত করেন। পরে সৃজনশীল এ আড্ডায় স্বরচিত কবিতাপাঠ করেন, কবি সুজন হালদার ও কবি নুসরাত নুসিন। কবিতার পরে গানের পর্ব শুরু হয়। সন্ধ্যা ঘন হয়Ñ বাঁকা চাঁদ উঁকি দেয়Ñ গানের প্রহর জমে ওঠে। প্রথমে দেশের গান। তারপর নজরুল, লালন ও লোকগীতির একেকটি পরিবেশনায় যেন সুরের মূর্ছনা ছড়িয়ে পড়ে। সে সুর বাস্তবকে ছাড়িয়ে দূরে কোথাও ছড়িয়ে যাচ্ছিল। মুগ্ধকর এ গানের পরিবেশ তৈরি করেন কৌশিক আহমেদ, মাসুদ রানা ও হারুন অর রশিদ।
একাঘ্নীর  প্রথম সংখ্যায় ‘রঙের ছোপ আর আঙুলের দাগ নিয়ে ছিটেফোঁটা কথাবার্তা’– এই শিরোনামে প্রবন্ধ লিখেছেন শহীদ ইকবাল। অন্যদের মধ্যে প্রবন্ধ লিখেছেন, হুমায়ন কবির, আঁখি সিদ্দিকা, নওরোজ আলম ও কাঞ্চন রায়। এছাড়া নিয়মিত বিভাগে আনকোরাদের হাঁটা আয়োজন নিয়ে লিখেছেন নাজ। ছবির চশমা নিয়ে লিখেছেন, শালভঞ্জিকা। রঙের নক্ষত্র বিভাগে লিখেছেন সুমন, বর্ণের আখর বিভাগে মুশফিকুন নেসা ও ক্ষিতির পেখম নিয়ে লিখেছেন স্মৃতিদাস।
একাঘ্নীর পরবর্তী সংখ্যার বিষয়– শিল্পের বর্তমান অবস্থা। ইমেল : akagniru@gmail.com