Ad Space

তাৎক্ষণিক

ভারতে গরু আনতে গিয়ে পানিতে ডুবে নিখোঁজ চারঘাটের মুছাহাক

জানুয়ারি ৩, ২০১৭

নিজস্ব প্রতিবেদক, চারঘাট : জীবনের মায়া ত্যাগ করে টিনের তৈরী ডোঙ্গা যোগে ভারতে গরু আনতে গিয়েছিল মুছাহাক। এরপর ভারত থেকে গরু নিয়ে বাংলাদেশে ফেরার পথে পানিতে ডুবে যায় গরু বোঝায় ডোঙ্গাসহ মুছাহাক। ফলে পানিতে ডুবে প্রাণ হারায় দুই সন্তানের জনক মুছাহাক। নিহত মুছাহাকের বাড়ী রাজশাহীর চারঘাট উপজেলার রাওথা এলাকায়। তার পিতার নাম ইছারুদ্দিন। ১০ দিন যাবৎ পানিতে ডুবে নিখোজ হলেও এখন পর্যন্ত নিখোজ মুছাহাকের লাশের কোন হদিশ মেলেনি।

প্রত্্যক্ষদর্শীদের বরাত দিয়ে রাওথা এলাকার ইউপি সদস্য তজলু জানান, গত ২৫ ডিসেম্বর গভীর রাতে মুছাহাক দুটি গরু নিয়ে ভারতের কাগমারী চর থেকে ডোঙ্গা যোগে বাংলাদেশে ফিরছিলেন। এসময় গরু বোঝায় ডোঙ্গাটি মাঝ নদীতে পৌছলে ডোঙ্গাটি ডুবে যায়। এ সময় ডোঙ্গা থাকা মুছাহাক আলী বাঁচাও বাঁচাও করে চিৎকার দিলেও তাকে বাঁচাতে পারেনি কেউ। ফলে নদীর পানিতে ডুবে যায় মুছাহাক আলী। মুছাহাকের লাশের সন্ধানে তার পরিবারের সদস্যরা বিভিন্ন স্থানে খোঁজাখুঁজি করেও তার লাশের হদিশ মেলেনি।

পরিবারের একমাত্র উপার্জনক্ষম ব্যাক্তিকে হারিয়ে বাকরুদ্ধ মুছাহাকের স্ত্রী দুই সন্তানের জননী রেখা বেগম। কিভাবে দুটি সন্তান নিয়ে পরিবার চালাবেন। কে খাওয়াবেন তাদের। এই বলেই বাকরুদ্ধ হয়ে যাচ্ছেন রেখা বেগম।

এলাকাবাসী জানান, ভারত থেকে দুটি গরু বাংলাদেশে নিয়ে আসলে লেবার খরচ বাবদ পাওয়া যায় ৭ থেকে ৮ হাজার টাকা। আর এই কারণে মুছাহাকের মত রাওথা এলাকার অনেকেই জীবনের মায়া ত্যাগ করে রাতের আঁধারে সাতরিয়ে ভারতে যায় গরু আনতে।

এ বিষয়ে মীরগঞ্জ বিজিবি ক্যাম্পের নায়েব সুবেদার নজরুল ইসলাম জানান, মুছাহাক নামের একজন নিখোঁজ রয়েছেন বলে শুনেছি। তবে সে মারা গেছেন কিনা সেটা আমি নিশ্চিত করে বলতে পারছি না।

চারঘাট মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা নিবারন চন্দ্র বর্মন জানান, এমন ঘটনা সম্পর্কে কেউ থানায় অবগত করেনি।