Ad Space

তাৎক্ষণিক

রামেকে ইন্টার্ন চিকিৎসক লাঞ্ছিত, অনির্দিষ্টকালের ধর্মঘট

ডিসেম্বর ২৬, ২০১৬

নিজস্ব প্রতিবেদক : রাজশাহী মেডিকেল কলেজ (রামেক) হাসপাতালে রোগির স্বজনদের হাতে ইন্টার্ন চিকিৎসক লাঞ্ছিত হওয়ার ঘটনা ঘটেছে। সোমবার সন্ধ্যায় এ ঘটনার পরে রাত থেকেই অনির্দিষ্ট সময়ের জন্য কর্মবিরতিতে গেছেন ইন্টার্ন চিকৎসকরা। এছাড়াও রাত ১০টা থেকে ১১টা পর্যন্ত এক ঘণ্টা হাসপাতালে জরুরি বিভাগের প্রধান ফটকে তালা ঝুলিয়ে এ ঘটনার প্রতিবাদ জানান ইন্টার্ন চিকিৎসকরা।

রামেক হাসপাতাল সূত্র জানায়, ২২নং ওয়ার্ডে ইতি নামের এক নারী ভর্তি আছেন। সন্ধ্যায় স্বজনরা ইতিকে দেখতে আসেন। ওই সময় আবু নাইম পরাগ নামে এক ইন্টার্ন চিকিৎসক রোগির কাছে স্বজনদের ভিড় দেখে গালাগালি শুরু করেন। এরই এক পর্যায়ে রোগির স্বজনদের সঙ্গে বাকবিতণ্ডা শুরু হয়। রোগির স্বজনরা ক্ষিপ্ত হয়ে ইন্টার্ন চিকিৎসক পরাগকে মারধর করেন। এতে পরাগের ডান হাতের কব্জির উপরে ভেঙে যায় ও ডান চোখে আঘাত পান। পরে তাকে হাসপাতালের ডক্টরস ওয়ার্ডে ভর্তি করা হয়।

এদিকে পরাগ লাঞ্ছিত হওয়ার ঘটনা ছড়িয়ে পড়লে ইন্টার্ন চিকিৎসকরা ক্ষিপ্ত হয়ে উঠে ও সন্ধ্যাতেই কর্মবিরতিতে যান।

রামেক হাসপাতালের পরিচালক এএফএম রফিকুল ইসলাম বলেন, ঘটনার পরে রামেক ইন্টার্ন চিকিৎসদের নিয়ে আলোচনায় বসেন। ঘটনার সঙ্গে জড়িতদের ব্যবস্থা নেয়ার আশ্বাস দেয়া হয়।

রাজপাড়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আমান উল্লাহ জানান, রাত ১০টার দিকে রাতে হাসপাতাল প্রশাসনের পক্ষ থেকে ইসমাইল মজুমদার বাদি হয়ে শাহিন ও জিমিকে বাদি করে থানায় মামলা করেন। এ মামলায় আসামী করা হয় রোগির ভাই শাহিন (২৫) ও স্বামী জিমিকে (৩০)। শাহিন নগরীর উপর ভদ্রা এলাকার মৃত আসাদের ছেলে ও জিমির বাড়ি নগরীর অলকার মোড়ে।