Ad Space

তাৎক্ষণিক

  • ভোটের ‘ধর্মীয় সেন্টিমেন্টে’ ভাস্কর্য সরানোর ‘পক্ষে’ আ’লীগ-বিএনপি– বিস্তারিত....
  • আমরা আজ হেরে গেলাম : ভাস্কর মৃণাল হক– বিস্তারিত....
  • নতুনদের জন্য ভিডিও এডিটিং কোর্স নিয়ে এলো বিআইটিএম– বিস্তারিত....
  • সৌদিতে রোজা শুরু শনিবার, বাংলাদেশে রবিবার– বিস্তারিত....
  • পূর্ণ আত্মবিশ্বাস নিয়ে ইংল্যান্ডে বাংলাদেশ দল– বিস্তারিত....

২ জঙ্গি নিহত, ৪ জনের আত্মসমর্পণ : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

ডিসেম্বর ২৪, ২০১৬

সাহেব-বাজার ডেস্ক : রাজধানীর উত্তরার আশকোনায় জঙ্গি আস্তানায় আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর অভিযানে আত্মঘাতী গ্রেনেড বিস্ফোরণে ১ নারী ‘জঙ্গি’সহ ২ নিহত হয়েছেন। গুরুতর আহত হয়েছেন আরও ১ জন। আত্মসমর্পণ করেছেন ৪ জন। শনিবার বিকাল পৌনে চারটার দিকে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান ঘটনাস্থল পরিদর্শনে গিয়ে সাংবাদিকদের এ তথ্য দেন।

তিনি জানান, আশকোনার ৫০ নম্বর বাড়িটির ভেতর আর কোনো জঙ্গি নেই। অভিযানের প্রথম পর্ব শেষ। বাড়িটির ভেতর অনেক বিস্ফোরক দ্রব্য, গ্রেনেড ও অস্ত্র রয়েছে। সেগুলো উদ্ধার ও আলামত সংগ্রহ করছে পুলিশের ক্রাইম সিন ইউনিট।

এর আগে, অভিযান চলাকালে আশকোনার ৫০ নম্বর বাড়িটির নিচ তলায় গ্রেনেড বিস্ফোরণ ঘটান এক নারী ‘জঙ্গি’। শনিবার ভোর থেকে শুরু হওয়া অভিযানের এক পর্যায়ে দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে বাড়িটির নিচতলার দরজা খুলে মেয়ে শিশুর হাত ধরে বেরিয়ে আসেন তিনি। একপর্যায়ে বোরকার নিচে রাখা বিস্ফোরকের বিস্ফোরণ ঘটান। এতে তিনি ও জঙ্গি তানভীর কাদরীর ছেলে আফিফ কাদরী ওরফে আদর নিহত হন। গুরুতন আহত হন মেয়ে শিশুটি।

আত্মঘাতী নারী জঙ্গি সুমনের স্ত্রী বলে গোয়েন্দা কর্মকর্তারা জানিয়েছেন। মেয়েশিশুটি জঙ্গি ইকবালের মেয়ে।

সূর্য ভিলা’ নামের বাড়িটিতে জঙ্গি আস্তানা সন্দেহে শনিবার ভোর থেকে অভিযান শুরু করে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী। শুক্রবার দিবাগত রাত থেকেই বাড়িটি ঘিরে ফেলে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী।

সকাল সাড়ে ৯টার দিকে চার জঙ্গি আত্মসমর্পণ করে তিনতলা ওই বাড়িটি থেকে বেরিয়ে আসেন।

কাউন্টার টেররিজম ইউনিটের কর্মকর্তা অতিরিক্ত উপ-কমিশনার মো. ছানোয়ার হোসেন জানান, জাহিদের স্ত্রী ও মেয়ে আত্মসমর্পণ করেছে। তাদের সঙ্গে আত্মসমর্পণ করেছে নব‌্য জেএমবির এখনকার অন‌্যতম প্রভাবশালী নেতা মুসার স্ত্রী ও মেয়ে।

তাদের কাছ থেকে একটি পিস্তল ও ছয় রাউন্ড গুলি পাওয়া গেছে বলে জানিয়েছেন ঢাকা মহানগর পুলিশ কমিশনার মো. আছাদুজ্জামান মিয়া।