Ad Space

তাৎক্ষণিক

রাজাকারপুত্র মাসুদ সাঈদী দিলেন মুক্তিযোদ্ধাদের সম্মাননা

ডিসেম্বর ১৭, ২০১৬

সাহেব-বাজার ডেস্ক : পিরোজপুরের জিয়ানগরে ১৬ ডিসেম্বর সকালে বিজয় র্যা লি বেরিয়েছে যুদ্ধাপরাধের দায়ে সাজাপ্রাপ্ত জামায়াত নেতা দেলাওয়ার হোসাইন সাঈদীর ছেলে উপজেলা চেয়ারম্যান মাসুদ সাঈদীর নেতৃত্বে।  ওইদিন সকালে মাসুদ সাঈদীর নেতৃত্বে র্যা লি শেষে শহীদ মিনারে উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে পুষ্পস্তবকও অর্পণ করা হয়। এ র্যা লিতে উপজেলা পরিষদ, মুক্তিযোদ্ধা সংসদ, আওয়ামী লীগ, প্রেসক্লাব, মানবাধিকার সংস্থাসহ বিভিন্ন রাজনৈতিক ও সামাজিক সংগঠনের নেতারা অংশ নেন। মাসুদ সাঈদীর সঙ্গে সেদিন র্যা লিতে ছিলেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা  জাকির হোসেন বাচ্চু, উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি অ্যাডভোকেট এম মতিউর রহমান, মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার বেলায়েত হোসেন, থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) একেএম মিজানুল হক, উপজেলা জেপির সভাপতি আসাদুল কবির তালুকদার স্বপন ও আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মৃধা  মনিরুজ্জামান।

index

সাইদীপুত্র মাসুদ ফেসবুকে র্যা লিতে অংশ নেয়ার ছবি পোস্ট করে লিখেছেন-“মহান বিজয় দিবস উপলক্ষে মুক্তিযোদ্ধা সংসদ জিয়ানগর উপজেলা কমান্ড কাউন্সিলের সকল বীর মুক্তিযোদ্ধাদের সংবর্ধনা ও পুরস্কার বিতরনী অনুষ্ঠান। পুরস্কার নিচ্ছেন মুক্তিযোদ্ধা সংসদের বর্তমান উপজেলা কমান্ডার বীর মুক্তিযোদ্ধা জনাব বেলায়েত হোসেন, বর্তমান উপজেলা ডেপুটি কমান্ডার বীর মুক্তিযোদ্ধা স্বপন কুমার রায়, সাবেক কমান্ডার মাহবুবুল আলম হাওলাদার (আমার আব্বার মামলার বাদী ও প্রথম স্বাক্ষী), মুক্তিযোদ্ধা খলিলুর রহমান, মুক্তিযোদ্ধা দেলোয়ার ফকির।”

রাজাকারপুত্রের এ কাণ্ডে ক্ষুব্ধ হয়েছেন ৭১ এ শহীদ বুদ্ধিজীবীদের সন্তানসহ আরও অনেকেই। কেউ কেউ একে স্বাধীনতা দিবসের প্রতি অবমাননার শামিল বলে মনে করছেন। ১৬ ডিসেম্বর বিজয় র্যা লিতে সাঈদীপুত্রের অংশগ্রহণের ছবি নিজের ফেসবুক পেইজে তুলে দিয়ে শহীদ আলতাফ মাহমুদের মেয়ে শাওন মাহমুদ লিখেছেন- ‘বিজয়ের ৪৬তম বছরের প্রথম সকাল হতবাক করেছে। রাজাকার পুত্র এবং মুক্তিযোদ্ধাদের একসাথে বিজয় দিবস উদযাপন করছে। আর আমরা দেখছি। কি সুন্দর সকাল হওয়ার কথা ছিল আজ তাই না!!’

untitled-1-copy

তার পোস্টটি দেখে সুরকার আহমেদ ইমতিয়াজ বুলবুল মন্তব্য করেন-‘শহীদ বীর আলতাফ মাহামুদ কন্যা কাঁদছে, কেন? সবইতো আগের মতোই আছে!’ সেখানে একজন তাকে প্রশ্ন করেন-‘আগের মতই আছে? পূর্ব পাকিস্তানের মতন? তাহলে ‘বাংলাদেশ’ নামটা হয়েছিল কোন দুঃখে?’

উত্তরে বুলবুল লেখেন- ‘আমি এখন যুদ্ধরত, জিতলে কথা হবে, অনেক।’

রাজকারপূত্রের হাত থেকে সংবর্ধনা নেয়ায় মুক্তিযোদ্ধাদেরও ভর্ৎসনা করেন অনেকে। পোস্টটিতে অরুনাভ পোদ্দার নামের একজন ফেসবুক ব্যবহারকারী মন্তব্য করেন- ‘মুক্তিযোদ্ধারা যারা পুরস্কার নিলেন এই ধিকৃত রাজাকার পুত্রের কাছ থেকে তাদের উদ্দেশ্যে…. মেরুদণ্ড খুলে এসে পুরস্কার নিয়েছেন তো? যত সব মেরুদণ্ডহীনের দল। সর্বশেষ মুক্তিযোদ্ধা যিনি আবার সাঈদীর মামলার সাক্ষী ছিলেন!! ধিক্….ধিক্। এত লোভ আপনার।। কাদের মোল্লার ভি চিহ্নের জবাব গণজাগরণ মঞ্চ দিয়েছিল….এই মাসুদ সাঈদীর জবাব কি বাঙালিরা দেবে?”