Ad Space

তাৎক্ষণিক

র‌্যাবের দুই সদস্যসহ তিনজনের নামে বিচারকের মামলা

ডিসেম্বর ২, ২০১৬

নিজস্ব প্রতিবেদক : আসামির কাছ থেকে জব্দ করা মোটরসাইকেল মামলার এজাহার ও জব্দ তালিকায় উল্লেখ না করে তা আত্মসাতের চেষ্টায় র‌্যাবের দুই সদস্যসহ তিনজনের নামে রাজশাহীতে ফৌজদারি মামলা হয়েছে। রাজশাহীর অতিরিক্ত চীফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট এবং আমলী আদালত-৩ এর বিচারক আবদুস সালাম বৃহস্পতিবার মামলাটি দায়ের করেছেন।

মামলার অভিযোগে বলা হয়েছে, গত বুধবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে জেলার গোদাগাড়ী উপজেলার লালমাটিয়া নামক স্থানে মাদক বিরোধী অভিযান পরিচালনাকালে সামিরুল ইসলাম ওরফে চিন্তা (৩০) ও আবদুস সালাম ওরফে ঘুটু (৪৫) নামে দুই ব্যক্তিকে এক কেজি ৮০০ গ্রাম গাঁজাসহ আটক করা হয়। তাদের কাছ থেকে সামিরুলের ডিসকভার ১৩৫ সিসির একটি মোটরসইকেলও জব্দ করা হয়।

কিন্তু মামলার এজাহার এবং জব্দ তালিকায় মাদকের বিষয়টি উল্লেখ থাকলেও মোটরসাইকেলের বিষয়টি গোপন রাখা হয়। ওই দিন সন্ধ্যায় আসামি সামিরুলকে আদালতে হাজির করা হলে তিনি বিচারকের কাছে এ ব্যাপারে মৌখিক নালিস করেন।

পরবর্তীতে অভিযোগকারীর মৌখিক নালিশ, তার সমর্থনে গৃহিত জবানবন্দী, অন্য একজন স্বাক্ষীর জবানবন্দী, মামলার এজাহার, জব্দ তালিকা ও নথি পর্যালোচনা করে আদালতের কাছে প্রতীয়মান হয়, এজাহার বা জব্দ তালিকার কোথাও নালিশকারীর দাবি মতে তার নিকট মোটরসাইকেলের উল্লেখ নেই। ফলে র‌্যাব সদস্যরা শাস্তিযোগ্য অপরাধ করেছেন।

এ কারণে মামলার বাদী নায়েব সুবেদার আবদুস সোবহান, জব্দ তালিকা প্রস্তুতকারি উপ-পরিদর্শক (এসআই) মনিরুজ্জামান এবং তাদের সহযোগি শহিদুল ইসলামের বিরুদ্ধে মোটরসাইকেলের তথ্য গোপন রাখার অভিযোগে একটি মিস কেস খোলা হয়।

অভিযোগের বিষয়ে তদন্ত করে প্রাথমিক প্রতিবেদন দেয়ার জন্য র‌্যাব-৫ এর অধিনায়ককে আগামী ২৭ ডিসেম্বর পর্যন্ত সময় বেধে দিয়েছেন আদালত। ওই প্রতিবেদনের পরই পরবর্তী আদেশের জন্য দিন ধার্য্য  করা হবে।