Ad Space

তাৎক্ষণিক

  • কোয়ালিফায়ারে রাজশাহী, বিদায় তামিমদের– বিস্তারিত....
  • নাটোরে মুক্তিযোদ্ধার স্ত্রী ও সাংবাদিক নান্টুর মায়ের ইন্তেকাল– বিস্তারিত....
  • রাজশাহীতে ছাত্রমৈত্রীর প্রতিষ্ঠাবাষির্কী পালিত– বিস্তারিত....
  • রাজশাহীর সংবাদপত্রগুলোতে নিয়োগপত্রের দাবিতে আরইউজে’র স্মারকলিপি– বিস্তারিত....
  • নছিমনের ধাক্কায় ২ মোটরসাইকেল আরোহী নিহত– বিস্তারিত....

নাটোরে কবিরাজির আড়ালে ছাত্রীদের পর্ণ ভিডিও ধারণ

নভেম্বর ২৪, ২০১৬

নাজমুল হাসান, নাটোর : নাটোরের বড়াইগ্রাম উপজেলার চাঁন্দাই গ্রামে কবিরাজির আড়ালে পর্ণো ব্যবসা করে আসছেন আকিল আহম্মেদ নামের এক ভন্ড কবিরাজ। স্থানীয় এক ক্যাবল ব্যবসায়ীর সহায়তায় ভুক্তভোগীদের ভিডিওচিত্র ধারণ করে তা দিয়েই ব্যবসা করতো একটি সিন্ডিকেট।

এক স্কুল ছাত্রীকে কবিরাজির মাধ্যমে তার সাবেক প্রেমিককে পাইয়ে দেয়ার কথা বলে ধর্ষণ করে আকিল আহম্মেদ (৪৮) নামে ওই ভুয়া কবিরাজ। ধর্ষণের সেই ভিডিও ধারণ করে পরে তা প্রকাশ করার ভয় দেখিয়ে সে অসংখ্যবার ধর্ষণ করেছে ওই ছাত্রীকে।

এদিকে ওই ছাত্রীর সাথে অনৈতিক ঘটনা দেখে ফেলায় তার প্রতিবেশী এক কিশোরীকে কৌশলে প্রলোভনে জড়িয়ে ধর্ষণ করে তারও ভিডিও ধারণ করে লম্পট আকিল। এরপর থেকে এক বছর যাবৎ ওই ভিডিও প্রকাশের ভয় দেখিয়ে দুই কিশোরীকেই শারিরিক নির্যাতন করে আসছিল আকিল ও সিন্ডিকেটের সদস্যরা।

বিষয়টি প্রকাশ পাওয়ার পর এ তালিকা আরো দীর্ঘ হচ্ছে। এ রকম আরো অন্তত ৭/৮ জন কিশোরী যুবতীর সাথেও এমন ঘটনার খবর এখন এলাকায় আলোচনার স্থান করে নিয়েছে। তবে এ ঘটনায় এখনো থানায় কোন মামলা না হলেও এলাকায় উত্তেজনা দেখা দিয়েছে।

স্থানীয়রা বলেন, মঙ্গলবার সন্ধ্যায় কবিরাজির নামে কিশোরী ধর্ষণের ঘটনা প্রকাশ হয়ে পড়লে বুধবার রাতে বিক্ষুব্ধ গ্রামবাসী আকিল আহম্মেদের বাড়ি-ঘর ভাংচুর করেছে। এদিকে এ ঘটনার পর এলাকার মানুষ বিক্ষুদ্ধ হয়ে বুধবার রাতে আকিলের বাড়িতে হামলা করে ভাংচুর করেছে। এলাকার পরিস্থিতি শান্ত করতে এলাকায় পুলিশ পাঠানো হয়েছে।

ঘটনা জানাজানি হওয়ার পর থেকে আকিল আহম্মেদ ও রঞ্জু পলাতক রয়েছেন। চক্রের অন্য সদস্যদের ব্যাপারে অনেকে মুখ খুলছেন না লোকলজ্জার ভয়ে। আকিল আহম্মেদ চাঁন্দাই গ্রামের আবদুল বারী সরদার ঝুলনের ছেলে।

এলাকাবাসী ও ভূক্তভোগীরা জানান, এক বছর আগে চাঁন্দাই উচ্চ বিদ্যালয়ের ৯ম শ্রেনীর এক ছাত্রীকে (১৫) কবিরাজির মাধ্যমে তার সাবেক প্রেমিকের সঙ্গে মিলিয়ে দেয়ার প্রলোভন দেন আকিল আহম্মেদ। পরে তার কথামত রাত ১১টার দিকে মেয়েটি তার বাড়িতে আসলে কবিরাজির ভান করে এক পর্যায়ে তাকে ধর্ষণ করে। এ সময় স্থানীয় ক্যাবল ব্যবসায়ী রঞ্জুসহ কয়েক সহযোগীর সহায়তায় ধর্ষণের ভিডিও চিত্র ধারণ করে রাখে। পরে এ ভিডিও ছড়িয়ে দেয়ার ভয় দেখিয়ে গত এক বছর যাবৎ একাধিকবার মেয়েটিকে ধর্ষণ করে।

কিছুদিন আগে বিকাল বেলা অপর মেয়েটি (১৩) ছাত্রীর সাথে আকিলের শারীরিক মিলনে ব্যস্ত থাকার দৃশ্য দেখে ফেলে। বিষয়টি বুঝতে পেরে পরের দিন কৌশলে ওই মেয়েটিকেও আকিল আহম্মেদ তার বাড়িতে ডেকে নিয়ে ধর্ষণ করে ভিডিও করে রাখে।

সম্প্রতি মেয়ে দুটি তার আহ্বানে সাড়া না দিলে ক্ষিপÍ হয়ে মেয়ে দুটিকে ধর্ষণের ভিডিও চিত্র এলাকায় ছড়িয়ে দিয়েছে। বর্তমানে ফুটেজটি এলাকার উঠতি যুবকদের হাতে হাতে ছড়িয়ে পড়েছে। এছাড়া ইউটিউবেও ভিডিওটি ছড়িয়ে দেয়া হয়েছে বলে জানা গেছে।

ঘটনাটি জানাজানি হলে লোক লজ্জায় পড়ালেখা বন্ধ হয়ে যাওয়াসহ তারা ও তাদের পরিবারের সদস্যরা বাড়ি থেকে বের হতে পারছেন না। আকিল ও রঞ্জুদের আরো অপকর্মের প্রমাণ মিলছে এলাকা জুড়ে। ওই দুই ছাত্রী ছাড়াও আরো ৭/৮ জন স্কুল ছাত্রী কিশোরী যুবতিদের সাথে এমন আচরনের কথা প্রকাশ পেয়েছে।

জানা গেছে আকিল রঞ্জুসহ একটি চক্র প্রথমে কবিরাজি ও পরে গোপন ভিডিও ধারণ করে তার ফাঁদে ফেলে গ্রামের সহজ সরল মেয়েদের সর্বনাশ করতো। শুধু তাই নয় নানা ভাবে এ সব ভিডিও ধারণ শেষে তার সিডি তৈরি করে বিভিন্ন দোকানে বিক্রি করতো।

তবে জানা গেছে ওই দুই ছাত্রীর অভিভাবকরা থানায় মামলা করবেন।

এ ঘটনায় চাঁন্দাই উচ্চ বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক ইয়াহিয়া ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, বর্তমানে তারা আর স্কুলে আসছে না। লোক মুখে এমন কথা শুনতে পাচ্ছি। এমন নিন্দনীয় কাজ যাতে পুনরায় না হয় সে ব্যপারে সবার সজাগ থাকার কথাও বলেন তিনি।

চাঁন্দাই ইউপি চেয়ারম্যান আনিসুর রহমান জানান, এমন একটি ঘটনার কথা শুনেছি। তবে এখন পর্যন্ত আমার কাছে কেউ কোন অভিযোগ করেনি।

বড়াইগ্রাম থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শাহরিয়ার খান জানান, বিষয়টি মৌখিকভাবে শুনলেও কোন লিখিত অভিযোগ পাইনি। অভিযোগ পেলে দোষীদের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে। এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছিল।