Ad Space

তাৎক্ষণিক

দিয়াজ আত্মহত্যা করেছেন: ময়নাতদন্ত প্রতিবেদন

নভেম্বর ২৩, ২০১৬

সাহেব-বাজার ডেস্ক : চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রলীগ নেতা দিয়াজ ইরফান চৌধুরী আত্মহত্যা করেছেন বলে ময়নাতদন্ত প্রতিবেদনে উল্লেখ করেছেন চিকিৎসকরা। রবিবার (২০ নভেম্বর) রাতে বিশ্ববিদ‌্যালয় সংলগ্ন বাসায় ঝুলন্ত অবস্থায় দিয়াজের লাশ পাওয়ার পর সোমবার (২১ নভেম্বর) তার ময়নাতদন্ত হয় চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে।

বুধবার (২৩ নভেম্বর) সকালে তার পরিবার হত‌্যার অভিযোগ তোলার পর একই দাবি করে ‘হত‌্যায় জড়িতদের’ গ্রেফতারের দাবিতে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়গামী শাটল ট্রেন আটকে বিক্ষোভ করে তার সমর্থক ছাত্রলীগকর্মীরা। এর কয়েক ঘণ্টা পর ময়নাতদন্ত প্রতিবেদন পাওয়ার কথা জানান চট্টগ্রাম জেলার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (বিশেষ শাখা) রেজাউল মাসুদ।

তিনি সাংবাদিকদের বলেন, “চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ফরেনসিক বিভাগের তিন চিকিৎসকের দেওয়া প্রতিবেদনে ঝুলন্ত অবস্থায় থাকার কারণে শ্বাস বন্ধ হয়ে দিয়াজের মৃত্যু হয়েছে বলে উল্লেখ রয়েছে।”

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সাবেক সহসভাপতি দিয়াজ কেন্দ্রীয় কমিটির সহ-সম্পাদক ছিলেন। পরিবার ও সহকর্মীদের দাবি, বিশ্ববিদ‌্যালয় ছাত্রলীগের কোন্দল থেকে কেউ তাকে হত্যা করে লাশ ঝুলিয়ে রাখতে পারে। দিয়াজের মৃত্যুর পর তার লাশের সুরতহাল প্রতিবেদন দেন হাটহাজারী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আফছানা বিলকিস।

তাতে বলা হয়েছিল, লাশের গলায় দাগ ছাড়াও দুইহাতের কনুইয়ের আশে পাশে লালচে দাগ দেখা গেছে। এছাড়া বাম পায়ে সামান্য আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। রেজাউল জানান, সুরতহাল প্রতিবেদনে থাকা হাতের ‘কনুইয়ের দাগ’ কারও ‘নখের নয়’ বলে বলা হয়েছে ময়নাতদন্ত প্রতিবেদনে।

হাটহাজারী থানা পুলিশও ময়নাতদন্ত প্রতিবেদন পেয়েছে বলে জানিয়েছেন, থানার ওসি বেলাল উদ্দিন জাহাঙ্গীর। দিয়াজের লাশের ময়নাতদন্ত প্রতিবেদন প্রত্যাখান করেছে তার পরিবার ও অনুসারীরা।

দিয়াজের দুলাভাই সরওয়ার আলম সাংবাদিকদের বলেন, পরিবার মামলা দায়ের করছে এরকম খবর পেয়ে ‘তড়িঘড়ি করে’ ময়নাতদন্ত প্রতিবেদন দেওয়া হয়েছে। “প্রতিবেদনে দিয়াজের মৃত্যুর সময় উল্লেখ নেই। আমরা এ প্রতিবেদন নিয়ে কী করব তা আইনজীবীর সাথে আলাপ করে সিদ্ধান্ত নেব।”

দিয়াজের বন্ধু চবি ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি মামুন বলেন, “ময়নাতদন্ত প্রতিবেদন নিয়ে আগে থেকেই সন্দেহ ছিল। এটা কোনোভাবেই আত্মহত্যা নয়। দুইদিন ধরে প্রতিবেদন দিল না, আজকে কেন তড়িঘড়ি করে দিল। পুলিশ ও বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন আগে থেকেই পক্ষপাতদুষ্ট, বিশ্বাস নেই তাদের উপর।”

তিনি আরও জানান, দিয়াজের পরিবারের সঙ্গে কথা বলে পরবর্তী করণীয় ঠিক করা হবে।