Ad Space

তাৎক্ষণিক

  • ‘আপত্তিকর’ কাজে বাধা দেয়ায় প্রহরীকে মারধর– বিস্তারিত....
  • বামশক্তি কনসোলিটেড হয়ে দাঁড়াতে না পারলে ফিল ইন দ্য ব্লাংক করে ফেলবে ধর্মীয় শক্তি : আবুল বারকাত– বিস্তারিত....
  • মধ্যম আয়ের দেশ গড়তে হলে ভ্যাটের বিকল্প নেই : ভূমিমন্ত্রী– বিস্তারিত....
  • নাটোরে নির্মাণের ৯ মাসেই ভেঙে পড়েছে কালভার্ট– বিস্তারিত....
  • নাটোরে ইয়াবাসহ চার যুবক আটক– বিস্তারিত....

মুক্তিযোদ্ধার ওপর হামলাকারীদের শাস্তির দাবিতে মানববন্ধন

নভেম্বর ১৮, ২০১৬

নিজস্ব প্রতিবেদক, গোদাগাড়ী : রাজশাহীর গোদাগাড়ী উপজেলার নীলবোনা গ্রামের মুক্তিযোদ্ধা আবদুস সোবহানের (৬০) ওপর হামলাকারীদের শাস্তির দাবিতে মানববন্ধন করেছেন স্থানীয় মুক্তিযোদ্ধারা। শুক্রবার সকাল সাড়ে ১০টায় উপজেলার রাজাবাড়িহাটে রাজশাহী-চাঁপাইনবাবগঞ্জ মহাসড়কের পাশে এই মানববন্ধন কর্মসূচি পালিত হয়।

দেওপাড়া ইউনিয়ন মুক্তিযোদ্ধা সংসদ এই মানববন্ধনের আয়োজন করে। এতে উপজেলার বিভিন্ন স্থানের মুক্তিযোদ্ধারাসহ আবদুস সোবহানের প্রতিবেশী ও পরিবারের সদস্যরা অংশগ্রহণ করেন। উপজেলা আওয়ামী লীগ ও এর সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীরাও মানববন্ধনে একাত্মতা প্রকাশ করে এতে অংশগ্রহণ করেন।

মানববন্ধনে সভাপতিত্ব করেন দেওপাড়া ইউনিয়ন মুক্তিযোদ্ধা সংসদের সভাপতি কাবাজ উদ্দিন। অন্যদের মধ্যে বক্তব্য দেন, জেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের ডেপুটি কমান্ডার শাহাদুল হক মাস্টার, জেলা ওয়ার্কার্স পার্টির সভাপতি রফিকুল ইসলাম পিয়ারুল, উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি বদিউজ্জামান, সাবেক সাধারণ সম্পাদক মাহবুবুর রহমান, স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান আখতারুজ্জামান আকতার, উপজেলা যুবলীগের সহ-সভাপতি মাহমুদুল হাসান হিরো, সাধারণ সম্পাদক মাসুদ পারভেজ বিপ্লব, তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক এহসান কবীর রাজেস প্রমূখ।

এ সময় মুক্তিযোদ্ধার ওপর হামলার প্রতিবাদ জানিয়ে বক্তারা বলেন, মুক্তিযোদ্ধাদের জন্য আমরা এই দেশ পেয়েছি। এই দেশে মুক্তিযোদ্ধাদের ওপর হামলা মেনে নেওয়া যায় না। সবার ঐক্যবদ্ধ প্রচেষ্টায় হামলাকারীদের কঠোর শাস্তি নিশ্চিত করতে হবে।

গত ২ নভেম্বর পূর্ব শত্রুতার জেরে উপজেলার নীলবোনা গ্রামের মুক্তিযোদ্ধা আবদুস সোবহানকে বাড়িতে ডেকে নিয়ে গিয়ে কুপিয়ে গুরুতর আহত করে একই গ্রামের মিশ্রি, তার ছেলে মাসুম ও আজাদ নামে এলাকার এক জামায়াত নেতা। পরে তাকে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। এখনও পর্যন্ত তিনি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।

এদিকে ঘটনার পরদিন আহত মুক্তিযোদ্ধার ছেলে আবদুল গাফফার বাদী হয়ে থানায় একটি মামলা করেছেন। তবে মামলার আসামিরা আদালত থেকে জামিন নিয়েছেন।