নভেম্বর ২২, ২০১৭ ৩:৩০ অপরাহ্ণ

Home / slide / বাঘায় বিয়ের প্রলোভনে ধর্ষণের অভিযোগ

বাঘায় বিয়ের প্রলোভনে ধর্ষণের অভিযোগ

নিজস্ব প্রতিবেদক, বাঘা : রাজশাহীর বাঘায় প্রবাস ফেরত এক যুবকের বিরুদ্ধে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে ধর্ষণ করার অভিযোগে মামলা দায়ের করেছে এক কলেজ ছাত্রী। মঙ্গলবার রাতে উপজেলার আলাইপুর গ্রামের বাসিন্দা শামিনুর রহমানের নামে বাঘা থানায় এ মামলাটি দায়ের করা হয়।

মামলা সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার আলাইপুর গ্রামের আমিরুল ইসলামের ছেলে শামিনুর রহমান ৬ বছর পূর্বে থেকে এই এলাকার এক কলেজ ছাত্রীর সাথে প্রেম করে আসছে। সেই প্রেমের সুবাদে তাকে বিয়ে করার প্রতিশ্রুতি দিয়ে ৫ বছর পূর্বে দৈহিক সম্পর্ক গড়ে তোলে এবং পরে প্রবাস চলে যায়।

এদিকে শামিনুর প্রবাসে যাওয়ার পর কলেজ ছাত্রীকে বিয়ে দিয়ে দেয় তার বাবা। কিন্তু বিয়ের পরেও সে প্রবাস থেকে মোবাইলে যোগাযোগ রক্ষা করে এবং প্রথম স্বামীকে ডিভোর্স দিয়ে তার জন্য অপেক্ষা করতে বলে। এর ফলে ওই ছাত্রী তার স্বামীকে ডিভোর্স দিয়ে বাবার বাড়ি চলে আসে।

সর্বশেষ গত কয়েক মাস আগে শামিনুর বাড়িতে চলে আসে এবং গত মাসের ২০ ও ৩০ তারিখ তাকে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে নিজ বাড়িতে এনে আবারো শারীরিক সম্পর্ক করে এবং গতকাল সন্ধ্যায় বিয়ে করার কথা বলে আবারও তাকে বাড়িতে ডেকে শারীরিক সম্পর্ক করতে চাই। এ সময় ভুক্তভুগী বিয়ের স্বীকৃতি চাইলে তাকে কখনো বিয়ে করবেনা বলে জানিয়ে দেয়। এর ফলে ওই বাড়িতে অনশন শুরু করে ওই কলেজ ছাত্রী । কিন্তু তার পরিবারের লোকজন তাকে লাঞ্চিত করে বাড়ি থেকে বের করে দেয়।

এ খবর পেয়ে কলেজ ছাত্রীর পিতা বিচ্ছাদ আলী স্থানীয়দের সহায়তায় তার মেয়েকে বাঘা স্বাস্থ্য কেন্দ্রে এনে চিকিৎসাদেন এবং ওই রাতেই বাঘা থানায় তিন জনকে অভিযুক্ত করে নারী ও শিশু নির্যান আইনে মিয়েকে দিয়ে একটি মামলা দায়ের করেন।

বাঘা থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আলী মাহামুদ জানান, অভিযোগ পাওয়ার পর বুধবার সকালে কলেজ ছাত্রীকে মেডিকেল করার জন্য রামেক হাসপাতালের ফরেন্সিক বিভাগে পাঠানো হয়েছে। এই মুহুর্তে আসামীরা পলাতক। তাদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।

Print Friendly, PDF & Email

Check Also

রাজশাহতে ছাত্রদলের কমিটি বিলুপ্ত ঘোষণা

নিজস্ব প্রতিবেদক : রাজশাহী মহানগরীর চার থানা, ৩৭টি সাংগঠনিক ওয়ার্ড এবং কলেজ শাখা ছাত্রদলের কমিটিগুলো …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *