Ad Space

তাৎক্ষণিক

  • কোয়ালিফায়ারে রাজশাহী, বিদায় তামিমদের– বিস্তারিত....
  • নাটোরে মুক্তিযোদ্ধার স্ত্রী ও সাংবাদিক নান্টুর মায়ের ইন্তেকাল– বিস্তারিত....
  • রাজশাহীতে ছাত্রমৈত্রীর প্রতিষ্ঠাবাষির্কী পালিত– বিস্তারিত....
  • রাজশাহীর সংবাদপত্রগুলোতে নিয়োগপত্রের দাবিতে আরইউজে’র স্মারকলিপি– বিস্তারিত....
  • নছিমনের ধাক্কায় ২ মোটরসাইকেল আরোহী নিহত– বিস্তারিত....

মহাসড়কে গরুর পরিবহন থেকে পৌরকর আদায়!

নভেম্বর ১৩, ২০১৬

নিজস্ব প্রতিবেদক, গোদাগাড়ী : রাজশাহীর গোদাগাড়ীতে গরু পরিবহনে পৌরকর দিতে হচ্ছে ব্যবসায়ীদের। রাজশাহী-চাঁপাইনবাবগঞ্জ মহাসড়কে উপজেলার সুলতানগঞ্জ নামক স্থানে গরু পরিবহনকারী গাড়িগুলোকে থামিয়ে এ কর আদায় করা হচ্ছে।

ব্যবসায়ীরা জানিয়েছেন, মহাসড়কে গরুর ট্রাকপ্রতি আদায় করা হচ্ছে ২০০ টাকা। আর নসিমন থেকে আদায় করা হচ্ছে ১০০ টাকা। অথচ পৌর কর্তৃপক্ষ মহাসড়ক থেকে এই কর আদায় করতে পারে না। পৌর এলাকায় শুধু পৌরসভা যেসব সংযোগ সড়ক নির্মাণ করেছে, সেসব সড়ক থেকে পৌর কর্তৃপক্ষ পৌরকর আদায় করতে পারে।

ব্যবসায়ীদের অভিযোগ, পৌরকরের নামে তাদের কাছ থেকে জোর করে চাঁদা আদায় করা হচ্ছে। চাঁদা না দিলে আদায়কারীরা গাড়ি আটকে রেখে হয়রানি করছেন। কখনও কখনও মারপিট করা হচ্ছে ব্যবসায়ীদের। চাঁদা আদায়কারীরা পৌরসভার নামেই রশিদ দিচ্ছেন। তবে রশিদে পৌরসভার কোনো কর্মকর্তা, মেয়র বা কাউন্সিলরের স্বাক্ষর নেই।

ব্যবসায়ীরা জানান, প্রতিদিন দুই শতাধিক গরুর ট্রাক ও নসিমন রাজশাহী-চাঁপাইনবাবগঞ্জ মহাসড়কের ওপর দিয়ে দেশের বিভিন্ন স্থানে যায়। এছাড়া সপ্তাহের প্রতি রবি ও বুধবার রাজশাহী সিটির হাটে আরও পাঁচ শতাধিক ট্রাক ও নসিমন গরু-মহিষ নিয়ে যায়। এসব পরিবহন থেকে অবৈধভাবে লাখ লাখ টাকা চাঁদা আদায় করছে একটি চক্র। গোদাগাড়ী পৌরসভার মেয়র মনিরুল ইসলাম বাবুর নেতৃত্বে চক্রটি পুরো টাকাই আত্মসাৎ করছেন বলে অভিযোগ রয়েছে।

রোববার সকালে সুলতানগঞ্জ এলাকায় গিয়ে রেজাউল, মমিন, নবীসহ আরও কয়েকজনকে গরুর পরিবহন থেকে টাকা আদায় করতে দেখা যায়। তাদের দাবি, পৌরসভা থেকে ইজারা নিয়ে তারা পৌরকর আদায় করছেন। মেয়র মনিরুল ইসলাম বাবু তাদের এই ইজারা দিয়েছেন।

তবে নাম প্রকাশ না করার শর্তে পৌরসভার একাধিক কাউন্সিলর জানান, মহাসড়ক থেকে পৌরকর আদায়ের বৈধতা নেই পৌর কর্তৃপক্ষের। কিন্তু কোনো ইজারা বিজ্ঞপ্তি ছাড়ায় মেয়র ব্যক্তিগতভাবে সুলতানগঞ্জে পৌরকর আদায়ের অনুমতি দিয়েছেন। আদায় করা এসব অর্থ বা ইজারার কোনো অর্থ পৌরসভার কোষাগারেও জমা হয়নি। পৌরসভার হিসাবরক্ষক হেলাল উদ্দীনও বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

উপজেলা শ্রমিক লীগের সভাপতি আবু সাইদ বলেন, সুতলতানগঞ্জে গরুর ট্রাক ও নসিমন থেকে পৌরকর আদায়ের সঙ্গে জড়িতরা বিএনপির রাজনীতির সঙ্গে জড়িত। মেয়র তাদের দিয়ে এ চাঁদা আদায় করাচ্ছেন। শ্রমিকেরা এর প্রতিবাদ করলে পুলিশ একদিনের জন্য পৌরকর আদায় বন্ধ রাখে। কিন্তু রোববার সকাল থেকেই আবার এ চাঁদা আদায় করা হচ্ছে।

এ ব্যাপারে জানতে চাইলে গোদাগাড়ী মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) হিপজুর আলম মুন্সি বলেন, সুলতানগঞ্জে চাঁদা আদায়কালে কয়েকদিন আগে একজনকে আটক করা হয়েছিল। কিন্তু পৌরসভার মেয়র তাকে জানিয়েছেন, পৌরকর আদায়ে তাদেরকে ইজারা দেয়া হয়েছে। এ জন্য তাদের বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা নেয়া যাচ্ছে না।

গোদাগাড়ী পৌরসভার মেয়র মনিরুল ইসলাম বাবু দাবি করেন, পৌরসভার নিয়ম অনুযায়ী ইজারা দেয়া হয়েছে। সে মোতাবেক পৌরকরও আদায় করা হচ্ছে। এসব টাকা পৌরসভার কোষাগারে জমা হবে।

সড়ক ও জনপথ (সওজ) বিভাগের রাজশাহীর নির্বাহী প্রকৌশলী নাজমুল হাসান বলেন, সওজের মহাসড়ক থেকে পৌর কর্তৃপক্ষের কর আদায় করার কোনো নিয়ম নেই। স্থানীয় সরকার (পৌরসভা) আইন-২০০৯ মতে, পৌর কর্তৃপক্ষ কেবল সেই সব সড়ক থেকে টোল আদায় করতে পারবে, যেগুলো পৌরসভার নির্মাণ করা।