Ad Space

তাৎক্ষণিক

  • কোয়ালিফায়ারে রাজশাহী, বিদায় তামিমদের– বিস্তারিত....
  • নাটোরে মুক্তিযোদ্ধার স্ত্রী ও সাংবাদিক নান্টুর মায়ের ইন্তেকাল– বিস্তারিত....
  • রাজশাহীতে ছাত্রমৈত্রীর প্রতিষ্ঠাবাষির্কী পালিত– বিস্তারিত....
  • রাজশাহীর সংবাদপত্রগুলোতে নিয়োগপত্রের দাবিতে আরইউজে’র স্মারকলিপি– বিস্তারিত....
  • নছিমনের ধাক্কায় ২ মোটরসাইকেল আরোহী নিহত– বিস্তারিত....

মসুল শিগগিরই মুক্ত হবে: ইরাকি প্রধানমন্ত্রী

নভেম্বর ৬, ২০১৬

সাহেব-বাজার ডেস্ক : বেঁচে থাকতে চাইলে অস্ত্র ত‌্যাগ করার জন‌্য মসুলে লড়াইরত তথাকথিত ইসলামিক স্টেটের (আইএস) জঙ্গিদের সতর্ক করেছেন ইরাকি প্রধানমন্ত্রী হায়দার আল আবাদি। মসুলের পূর্ব দিকের রণক্ষেত্র পরিদর্শনের পর শনিবার এক সংবাদ সম্মেলনে আবাদি এ হুঁশিয়ারি দেন বলে জানিয়েছে ইরাকের রাষ্ট্রীয় গণমাধ‌্যম।

এ সময় তিনি বলেন, সরকার নেতৃত্বাধীন বাহিনী পিছু হটবে না, ভেঙেও পড়বে না। তিনি আরো বলেন, মসুলের বাসিন্দাদের জন‌্য তার বার্তা হচ্ছে, আমরা শিগগিরই আপনাদের মুক্তি করছি। দুই বছরেরও বেশি সময় ধরে শহরটি আইএসের দখলে আছে। শহরটি পুনরুদ্ধারে গত মাস থেকে ব‌্যাপক অভিযান শুরু করে ইরাকি বাহিনীগুলো। অভিযানের এ পর্যায়ে মসুলের পূর্বদিকের শহরতলির একটি অংশে প্রবেশ করে সেখানে অবস্থান নিয়েছে ইরাকি সরকারি বাহিনী। এ অবস্থায় শহরটিতে অবস্থানরত আইএস জঙ্গিদের আত্মসমর্পণের আহ্বান জানিয়েছেন আবাদি।

সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেন, আইএসের প্রতি আমার বার্তা হচ্ছে, তারা যদি প্রাণ রক্ষা করতে চায়, তাদের এখনই অস্ত্র নামিয়ে রাখতে হবে। ওই দিন সরকারি বাহিনীগুলো মসুলের ১৫ কিলোমিটার দূরে তাইগ্রিস নদী তীরবর্তী টাউন হাম্মাম আল আলিল পুনরুদ্ধার করে। এ লড়াইয়ে তীব্র প্রতিরোধের মুখোমুখি হতে হয়েছিল বলে জানিয়েছে ইরাকি সেনাবাহিনী।

সেনাবাহিনীর কর্মকর্তা লেফটেন‌্যান্ট জেনারেল রায়েদ শাকির জাবদাত জানিয়েছেন, টাউনটির কেন্দ্রস্থলের নিয়ন্ত্রণ গ্রহণ করেছে নিরাপত্তা বাহিনীগুলো। তবে টাউনটি থেকে আইএস জঙ্গিদের পুরোপুরি হটিয়ে দেওয়া হয়েছে কিনা তা পরিষ্কার করেননি তিনি। মসুল পুনরুদ্ধারের অভিযানে শহরটির পূর্বদিকের এলাকাগুলো আগে পরিষ্কার করার চেষ্টা করছে সরকারি বাহিনী। এ প্রচেষ্টায় শুক্রবার ওই এলাকার আল যাহরা টাউনের নিয়ন্ত্রণ নিয়েছে তারা।

সরকারি বাহিনীগুলো ও আইএস যোদ্ধারা আবাসিক বাড়ির ছাদ থেকে পরস্পরের দিকে স্নাইপার রাইফেল থেকে গুলিবর্ষণ করছে। পাশাপাশি দুপক্ষের মধ‌্যে মর্টার গোলাও বিনিময় হচ্ছে। আল বকর এলাকায় দুপক্ষের মধ‌্যে তীব্র লড়াই চলছে। উপগ্রহ থেকে নেওয়া ছবিতে দেখা গেছে, মসুলের সবগুলো প্রবেশ পথে বহু ব‌্যারিকেড গড়ে তুলেছে আইএস জঙ্গিরা।

২০১৪ সালের জুনে মসুল দখল করে নিয়েছিল জঙ্গিরা। এই শহরটির একটি মসজিদ থেকেই তাদের নেতা আবু বকর আল বাগদাদি তাদের দখলকৃত এলাকায় ‘খিলাফত’ প্রতিষ্ঠার ঘোষণা দিয়েছিলেন। ১৭ অক্টোবর থেকে শহরটি পুনরুদ্ধারের অভিযানে নামে ইরাকি সরকারি বাহিনীগুলো ও কুর্দিদের পেশমেরগা বাহিনী। তখন ১৫ লাখ বাসিন্দার শহরটিতে আইএসের তিন হাজার থেকে পাঁচ হাজার যোদ্ধা রয়েছেন বলে ধারণা করা হচ্ছিল।- খবর বিবিসির