Ad Space

তাৎক্ষণিক

লেগিয়ার বিপক্ষে রিয়ালের হোঁচট

নভেম্বর ৩, ২০১৬

সাহেব-বাজার ডেস্ক : রিয়াল একটুর জন্য হারতে বসেছিল! ২-০ গোলের লিড হারিয়ে একপর্যায়ে তো পিছিয়েও গেল। ম্যাচে দুর্দান্তভাবে ঘুরে দাঁড়িয়ে স্কোর লাইন ৩-২ করে ফেলল চ্যাম্পিয়নস লিগ বিবেচনায় পুঁচকে লেগিয়া। পোলিশ দলটি তাদের ইতিহাসে স্মরণীয় জয়ের সুবাসই যখন পাচ্ছিল, কোভাচিচের গোলে শেষ পর্যন্ত ম্যাচ ৩-৩ ড্র হলো। দুই গোলের লিডই শুধু নয়, রিয়াল হারিয়ে ফেলল গতকালই দ্বিতীয় রাউন্ডে উঠে যাওয়ার সুযোগও।

ক্রিস্টিয়ানো রোনালদোর হতাশামাখা রাতে বেল কিন্তু শুরুটা করেছিলেন দুর্দান্ত। ঘড়ির কাঁটা তখনো ১ মিনিটও ছোঁয়নি। মাত্র ৫৫ সেকেন্ডেই গোলের খাতা খুলে ফেললেন গ্যারেথ বেল। চ্যাম্পিয়নস লিগের ইতিহাসে রিয়ালের দ্রুততম গোলটিই শুধু করেননি, ৩৫ মিনিটে করিম বেনজেমাকে দিয়ে গোল করিয়েছেনও। কিন্তু সেখান থেকেই পোলিশ দলটির ঘুরে দাঁড়ানোর শুরু। ৪০ মিনিটে ব্যবধান কমাল। ৫৮ মিনিটে ফেরাল সমতা। ৮৩তম মিনিটে গিয়ে স্কোর লাইন হয়ে গেল ৩-২!

ম্যাচের তখন মাত্র ৭ মিনিট বাকি। এর মধ্যে রিয়াল বেশ কয়বার বেঁচেও গেছে তাদের রক্ষণের দৃঢ়তায়। যে শ দুয়েক দর্শক স্পেন থেকে উড়ে এসেছিল রিয়ালকে সমর্থন জানাতে, তাদের তখন ঘাম ছুটে যাওয়ার দশা। তবে মাতেও কোভাচিচ দ্রুতই সমতা ফেরালেন।

ম্যাচের তখনো ৫ মিনিট বাকি। আরও কোনো নাটক? কেকের ওপর বরফকুচি ছড়াল যোগ করা সময়ে লুকাস ভাসকুয়েজের শট যখন ফিরে এল ক্রসবারে লেগে। শেষ পর্যন্ত ছয় গোলের ‘থ্রিলার’ হয়েই থাকল। আর এই ম্যাচ কিনা এমন ফাঁকা গ্যালারিতে হলো! বিশেষ করে লেগিয়ার সমর্থকেরা হয়তো মাথা কুটে মরছে। দায় তাদেরই। গ্যালারিতে আতশবাজি পোড়ানো, এটা-ওটা মাঠে ছুড়ে মারার দায়েই তো তাদের নিষিদ্ধ করেছে উয়েফা।

ম্যাচ শেষে বেল ফাঁকা গ্যালারির কথাটাই বললেন, ‘কোনো অজুহাত দেখাচ্ছি না, তবে এমন ফাঁকা গ্যালারির সামনে খেলাটা কেমন জানি অদ্ভুত।’ তবে এভাবে এগিয়ে গিয়েও রিয়ালের মতো দলের ড্র করার এ যে কোনো ব্যাখ্যা নয়, বেলও ভালো জানেন।

এই ড্রয়ের ফলে গ্রুপের শীর্ষে থাকা বরুশিয়া ডর্টমুন্ডের (১০ পয়েন্ট) চেয়ে ২ পয়েন্টে পিছিয়ে থাকল রিয়াল। অবশ্য তিনে থাকা স্পোর্টিংয়ের (৩ পয়েন্ট) চেয়ে ৫ পয়েন্টে এগিয়ে আছে তারা। এই ড্রয়ের অস্বস্তিটা তাই বাড়ছে না। আর বাকি আছে আরও দুটি ম্যাচ।