Ad Space

তাৎক্ষণিক

  • ‘আপত্তিকর’ কাজে বাধা দেয়ায় প্রহরীকে মারধর– বিস্তারিত....
  • বামশক্তি কনসোলিটেড হয়ে দাঁড়াতে না পারলে ফিল ইন দ্য ব্লাংক করে ফেলবে ধর্মীয় শক্তি : আবুল বারকাত– বিস্তারিত....
  • মধ্যম আয়ের দেশ গড়তে হলে ভ্যাটের বিকল্প নেই : ভূমিমন্ত্রী– বিস্তারিত....
  • নাটোরে নির্মাণের ৯ মাসেই ভেঙে পড়েছে কালভার্ট– বিস্তারিত....
  • নাটোরে ইয়াবাসহ চার যুবক আটক– বিস্তারিত....

গোদাগাড়ীতে মুক্তিযোদ্ধাকে কুপিয়ে হত্যার চেষ্টা

নভেম্বর ২, ২০১৬

নিজস্ব প্রতিবেদক : রাজশাহীর গোদাগাড়ীতে আবদুস সোবহান (৬০) নামে এক মুক্তিযোদ্ধাকে কুপিয়ে হত্যার চেষ্টা করেছে প্রতিপক্ষরা। বুধবার সকালে উপজেলার নীলবোনা গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। আশঙ্কাজনক অবস্থায় আহত মুক্তিযোদ্ধাকে রাজশাহী মেডিক্যাল কলেজ (রামেক) হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

স্থানীয়রা জানান, নীলবোনা গ্রামের বাসিন্দা ওই মুক্তিযোদ্ধার স্বজনদের সঙ্গে বিরোধ চলছিল একই এলাকার সাগর ওরফে মিশ্রি নামের এক ব্যক্তির সঙ্গে। বুধবার সকালে মুক্তিযোদ্ধা আবদুস সোবহান তার জমিতে যাচ্ছিলেন। এ সময় সাগর তাকে কৌশলে তার বাড়িতে ডেকে নিয়ে যান। তাকে ঘরে বসতেও দেয়া হয়।

এরপর মিশ্রি, তার ছেলে মাসুম ও আজাদ নামে এলাকার এক জামায়াত নেতা মুক্তিযোদ্ধা আবদুস সোবহানকে হাঁসুয়া দিয়ে কোপাতে শুরু করেন। পরে ওই মুক্তিযোদ্ধার চিৎকারে স্থানীয়রা এগিয়ে গিয়ে তাকে উদ্ধার করেন। এরপর তাকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

স্থানীয়রা আরও জানান, মুক্তিযোদ্ধা আবদুস সোবহান আওয়ামী লীগের রাজনীতির সাথে যুক্ত । গত ইউপি নির্বাচনে ওই ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের প্রার্থী জয়লাভ করায় জামায়াত নেতা আজাদ তার ওপর ক্ষিপ্ত ছিলেন। অন্যদিকে আলম নামে মিশ্রির এক আত্মীয়র সঙ্গে মুক্তিযোদ্ধা সোবহানের ভাতিজা খুরশিদের বিরোধ ছিল। বিষয়টি নিষ্পত্তির চেষ্টা চালাচ্ছিলেন মুক্তিযোদ্ধা সোবহান। কিন্তু সেটি না করতে ওই মুক্তিযোদ্ধাকে কুপিয়ে হত্যার চেষ্টা চালানো হয়।

এদিকে মুক্তিযোদ্ধার ওপর এমন বর্বর হামলার তীব্র নিন্দা জানিয়েছেন উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের ভারপ্রাপ্ত কমান্ডার অশোক কুমার চৌধুরী। তিনি হামলার সঙ্গে জড়িতদের দ্রুত গ্রেফতারেরও দাবি জানিয়েছেন।

এ ব্যাপারে গোদাগাড়ী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) হিপজুর আলম মুন্সি বলেন, তিনি একটি লিখিত অভিযোগ পেয়েছেন। বিষয়টির প্রাথমিক তদন্তও হয়েছে। এ বিষয়ে মামলা হবে। হামলার সঙ্গে জড়িতদেরও গ্রেফতার করে আইনের আওতায় আনা হবে।