Ad Space

তাৎক্ষণিক

বাঘা উপজেলা চেয়ারম্যানসহ ১৩জনকে আসামী করে অস্ত্র মামলা

নভেম্বর ১, ২০১৬

নিজস্ব প্রতিবেদক, বাঘা : রাজশাহীর বাঘা উপজেলার আড়ানী পৌর এলাকায় বিদেশী পিস্তল ও জিহাদী বইসহ দুই জামায়াত নেতা গ্রেফতার মামলায় আসামী হয়েছেন বাঘা উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও উপজেলা জামাতের আমির জিন্নাত আলী। মঙ্গলবার সকালে বাঘা থানা পুলিশের পক্ষ থেকে এ মামলাটি দায়ের করা হয়। এ মামলায় এজাহার ভুক্ত মোট ১৩ জন আসামীসহ অজ্ঞাত আরো ১০জন অভিযুক্ত রয়েছে বলে থানা পুলিশের পক্ষ থেকে নিশ্চিত করা হয়।

সূত্রে জানা যায়, সোমবার রাত ৯ টার  সময় উপজেলার আড়ানী পৌর এলাকার বাসিন্দা ও পৌর জামায়াতের ইউনিট সভাপতি বেলাল হোসেনের বাড়িতে গোপন বৈঠক করছিল পৌর এবং উপজেলা জামায়াতের নেতা-কর্মীরা। এ সময় গোপন সংবাদের ভিত্তিতে সঙ্গীয় ফোর্স নিয়ে সেখানে হানা দেয় বাঘা থানা পুলিশ। এরপর জামায়াতের সুরা সদস্য বেলাল হোসেন ও আড়ানী পৌর জামায়াতের আমির মতিউর আজম জিঞ্জুরকে বিদেশি পিস্তল, তিন রাউন্ড গুলি, একটি ম্যাগজিন ও জিহাদী বইসহ গ্রেফতার করেন তারা।

তবে পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে পালিয়ে রক্ষা পান উপজেলা জামাতের আমির ও  বাঘা উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান জিন্নাত আলীসহ ২০১৪ সালে  পুলিশের হাত থেকে অস্ত্র কেড়ে নেয়া ও মারপিট মামলার প্রধান আসামী এবং পৌর জামাতের সাংগঠনিক সম্পাদক আবদুল্লাহ আল মামুন নহু ।

বাঘা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আলী মাহমুদ জানান, সোমবার রাতে বাঘা উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান জিন্নাত আলীসহ ওই বাড়িতে ২৫-৩০ জন জামায়াতের নেতাকর্মী বৈঠক করছিল। এ সময় গোপন সংবাদের ভিত্তিতে থানা পুলিশ সেখানে অভিযান চালালে  দু’জন ব্যতিত সবাই পালাতে সক্ষম হয়। পরে তাদের কাছ থেকে আগ্নেয়াস্ত্র, গুলি ও জিহাদী বই উদ্ধার করা হয়। মঙ্গলবার দুপুরে আটক দুই জামায়াত নেতাকে আদালতে সোপর্দ করা হয়েছে বলে ওসি উল্লেখ করেন।