Ad Space

তাৎক্ষণিক

  • মোহনপুরে বাস চাপায় ব্যবসায়ী নিহত, এসআই আহত– বিস্তারিত....
  • নাটোরে ত্রিমুখী সংঘর্ষে দুই মোটরসাইকেল আরোহীর মৃত্যু– বিস্তারিত....
  • রাজশাহীতে ঈদের জামাতে জঙ্গিবাদ পরিহারের আহ্বান– বিস্তারিত....
  • ঈদ শুভেচ্ছা কমেছে কার্ডে, বেড়েছে পোস্টারে– বিস্তারিত....
  • নাটোরে ব্যাংকের বুথে টাকা শূণ্য, ভোগান্তিতে গ্রাহকরা– বিস্তারিত....

ছোট্টমোট্ট তারা আর ছোট্ট মেয়ে । আশরাফুল আলম পিনটু

সেপ্টেম্বর ১, ২০১৬

এক যে ছিল তারা।

খুব খুউব ছোট। একেবারে ছোট্ট। ছোট্টমোট্ট তারা। তার গায়ের রঙ ভারি সুন্দর। সোনার মতো ঝকমকে। যেন ছোট্ট প্রজাপতি। আকাশে তার বাড়ি। দূরে বহুদূরের আকাশে।

ছোট্ট হলে কী হবে! তারাটা খুব ছটফটে। এখানে যেতে চায়। সেখানে যেতে চায়। ওখানে যেতে চায়। জানতে চায় এটা কী? সেটা কী? ওটা কী?

মা-বাবা কাছেপিঠে ঘুরিয়ে আনে কখনও সখনও। তাতে মন ভরে না ছোট্ট তারার। যেতে চায় দূরে বহুদূরে। আরও দূরে। ঘুরতে চায় একা একা। দেখতে চায় সব কিছু।

ছোট্ট তারার ভাবসাব বোঝে মা-বাবা। ভালো ঠেকে না। তাই যেতে দেয় না কোথাও। কখনও আদর করে আটকে রাখে, ‘তুমি এখনও ছোট্ট তারাসোনা। একা ঘুরতে গেলে হারিয়ে যাবে।’

কখনও ভয় দেখায়। কখনও ধমক দিয়ে বারণ করে,  ‘না না। তুমি খুব ছোট্ট তারা। এখন একা ঘোরার বয়স হয়নি।’

একদিন সেই ছোট্ট তারা দেখল কী!

কী দেখল?

দেখল একটা ছোট্ট গ্রহ। নীল রঙের গ্রহ। ভারি সুন্দর। দেখতে দেখতে মুগ্ধ ছোট্ট তারা। খুব খুউব মুগ্ধ। ভুলে গেল মায়ের বারণ। বাবার শাসন।

নীল গ্রহটা দেখতেই হবে। কাছে গিয়ে দেখতে হবে।

যেই ভাবা সেই কাজ। একা একা ছুটল ছোট্ট তারা। ছুটল জোরে। খুব জোরে। আরও জোরে। ছুটতে ছুটতে বহুদূর। একবার পেছন ফিরেও দেখল। মা বাবা কেউ ধরতে আসছে না। কোথাও দেখা যাচ্ছে না তাদের। বাড়িটাও দেখতে পেল না। হারিয়ে গেল নাকি সে? যাক গে!

নীল গ্রহে এসে নামল ছোট্ট তারা।

এক যে ছিল মেয়ে।

খুব খুউব ছোট। একবারে ছোট্ট। ছোট্টমোট্ট মেয়ে। ভারি সুন্দর সে মেয়ে। ভারি ফুটফুটে। নীল গ্রহে তার বাড়ি। মাটিতে তার বাড়ি। পৃথিবীর মাটিতে।

ছোট্ট হলে কী হবে! মেয়েটা খুব ছটফটে। এখানে যেতে চায়। সেখানে যেতে চায়। ওখানে যেতে চায়। জানতে চায় এটা কী? সেটা কী? ওটা কী?

মা-বাবা কাছেপিঠে ঘুরিয়ে আনে কখনও সখনও। তাতে মন ভরে না ছোট্ট মেয়ের। যেতে চায় দূরে বহুদূরে। আরও দূরে। ঘুরতে চায় একা একা। দেখতে চায় সব কিছু।

ছোট্ট মেয়ের ভাবসাব বোঝে মা-বাবা। ভালো ঠেকে না। তাই যেতে দেয় না কোথাও। কখনও আদর করে আটকে রাখে, ‘তুমি এখনও ছোট্ট লক্ষ্মীসোনা। একা ঘুরতে গেলে হারিয়ে যাবে।’

কখনও ভয় দেখায়। কখনও ধমক দিয়ে বারণ করে,  ‘না না। তুমি খুব ছোট্ট মেয়ে। এখন একা ঘোরার বয়স হয়নি।’

একদিন সেই ছোট্ট মেয়ে দেখল কী!

কী দেখল?

দেখল একটা ছোট্ট প্রজাপতি। সোনা রঙের প্রজাপতি। ভারি সুন্দর। দেখতে দেখতে মুগ্ধ ছোট্ট মেয়ে। খুব খুউব মুগ্ধ। ভুলে গেল মায়ের বারণ। বাবার শাসন।

সোনালি প্রজাপতিটা দেখতেই হবে। কাছে গিয়ে দেখতে হবে।

যেই ভাবা সেই কাজ। একা একা ছুটল ছোট্ট মেয়ে। ছুটল জোরে। খুব জোরে। আরও জোরে। ছুটতে ছুটতে বহুদূর। একবার পেছন ফিরেও দেখল। মা বাবা কেউ ধরতে আসছে না। কোথাও দেখা যাচ্ছে না তাদের। বাড়িটাও দেখতে পেল না। হারিয়ে গেল নাকি সে? যাক গে!

বাড়ি থেকে বেরিয়ে ছুটল প্রজাপতির পিছু। প্রজাপতিটাও ভীষণ ছটফটে। এক জায়গায় থাকে না। এ ফুলে ও ফুলে। এ ডালে ও ডালে। এখান থেকে ওখানে। ওখান থেকে সেখানে। ছোটাছুটিই যেন কাজ।

ছোট মেয়েটাও ভীষণ ছটফটে। পিছু ছাড়ল না ওর।  ছুটল ছোট্ট মেয়ে। জোরে। খুব জোরে। আরও জোরে।

ছুটতে ছুটতে মাঠান্তর।

ছুটতে ছুটতে ঘাটান্তর।

ছুটতে ছুটতে তেপান্তর।

ছুটতে ছুটতে দুজনেই ক্লান্ত।

সবুজ ঘাসে ছোট্ট মেয়ে বসে পড়ল ধপ ধপ। ধপাস।

সবুজ ঘাসে ছোট্ট তারা বসে পড়ল ধপ ধপ। ধপাস।

ছোট তারাটা দেখল ছোট্ট মেয়েকে।

ছোট মেয়েটা দেখল ছোট্ট তারাকে। হাসতে হাসতে বলল, ‘ও ভাই প্রজাপতি। আজব প্রজাপতি।’

‘আমি প্রজাপতি নই।’

‘তাহলে কি জোনাকি!’

‘তাও নই। আমি তারা। ছোট্ট তারা। দূর আকাশে থাকি। তুমি কে?’

‘আমি ছোট্ট মেয়ে। এই পৃথিবীর! ছোট্ট মেয়ে।’

‘তোমাদের পৃথিবীটা খুব সুন্দর!’

‘তোমাদের আকাশটাও খুব সুন্দর!’

ছোটমোট্ট তারা আর ছোট্ট মেয়ের ভাব হয়ে গেল। ওরা এখানে গেল, ওখানে গেল। সেখানে গেল। এটা বলল। সেটা বলল। ওটা বলল। হাসল আর হাসল।

তারপর?

তারপর সন্ধে নামল।

আর সন্ধে নামতেই ভয় পেল ওরা। মা বাবার কথা মনে পড়ল। বাড়ির কথা মনে পড়ল। কিন্তু ফিরবে কী করে? ওরা তো হারিয়ে গেছে! পথ হারিয়ে ফেলেছে। অন্ধকারে ফিরবে কী করে? মা বাবার বারণ শোনেনি। কী ভুলই না করেছে! কী বিপদেই না পড়েছে! এরকম আর কখনও করবে না। করবে না। করবে না।

ভাগ্যিস ছোট্ট তারা ছিল। ছোট্ট তারার আলো পথ দেখালো। বাড়ি ফিরল ছোট্ট মেয়ে।

ভাগ্যিস ছোট্ট মেয়ে ছিল! দূর আকাশের পথ দেখালো সে। বাড়ি ফিরল ছোট্ট তারা।

সেই থেকে ওরা আর একা কোথাও যায় না। মা-বাবার বারণ শোনে। বড় হোক তখন যাবে।

রাতের আকাশে তাকায় ছোট্ট মেয়ে। হাসে ছোট্ট তারার দিকে।

আর নীল গ্রহে তাকায় ছোট্ট তারা। হাসে ছোট্ট মেয়ের দিকে।

হাসে ছোট্ট মেয়ে। হাসে ছোট্টমোট্ট তারা।

কী উজ্জ্বল তাদের হাসি!

অলংকরণ : শিলা আকতার