ডিসেম্বর ১৭, ২০১৭ ৭:৫৭ অপরাহ্ণ

Home / slide / আসছে পহেলা বৈশাখ, প্রস্তুতি এখনই

আসছে পহেলা বৈশাখ, প্রস্তুতি এখনই

মর্তুজা নুর : আসছে বাঙ্গালীর প্রাণের উৎসব পহেলা বৈশাখ ১৪২৩। বাংলা নববর্ষ পহেলা বৈশাখ উপলক্ষে নানা আয়োজন নিয়ে এখন মহাব্যস্ত বাংলাদেশের মানুষ।  রাজশাহী বিশ্ববিদ্যলয়সহ দেশের সব বিভাগ ও জেলা-উপজেলা ছাড়িয়ে পহেলা বৈশাখ ছড়িয়ে পড়েছে দেশজুড়ে। পুরানো বছরের গ্লানি মুছে নতুন বছর, নতুন দিন, নতুন প্রত্যাশায় বাংলা নববর্ষ উপলক্ষে পহেলা বৈশাখকে বরণ করতে বাঙ্গালী জাতির আবেগের যেন কমতি নেই।

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে সাংস্কৃতিক অঙ্গনে এই প্রাণের উৎসবকে ঘিরে নাটক, কবিতা, নৃত্য, আবৃত্তি ও সংগীতের জোর মহড়া চলছে গত কয়েকদিন থেকে। রাবির সাংস্কৃতিক অঙ্গনে বিভিন্ন সংগঠন তাদের স্বকীয়তা বজায় রাখতে নানা বৈচিত্রের সমন্বিত উদ্যোগ নিয়েছে।
আসছে পহেলা বৈশাখ, প্রস্তুতি এখনই (1)
রাবিতে পহেলা বৈশাখের মুল আকর্ষণ থাকে চারুকলা বিভাগকে ঘিরে। চারুকলা বিভাগকে কেন্দ্র করেই শুরু হয় দিনের প্রথম কর্মসূচি। চারুকলা বিভাগের শিক্ষার্থী মৌমিতা চৌধুরী বলেন, তারা এরই মধ্যে বিভিন্ন রং এর মুখ ও মুখোশ, ফুল ও পরী, প্রকৃতি রং তুলিতে তুলে প্রকৃতির রুপ তুলে ধরার কাজ শুরু করেছেন। পহেলা বৈশাখ উপলক্ষে বাংলা নববর্ষের শুভেচ্ছা জানিয়ে বিভিন্ন ব্যক্তি ও বিভাগের মধ্যে শুভেচ্ছা কার্ড বিতরণে ধুম পড়েছে।

সময়ের সাথে মানানসই পোশাক এসেছে বাজারে। শিক্ষার্থীদের অনেকেই ব্যস্ত পোশাক ক্রয় করতে। গরমের কথা বিবেচনায় সুতি কাপড়ই ফ্যাশন হাউজগুলো বেছে নিয়েছে তাদের ডিজাইনে। এসেছে হাল ফ্যাশনের পোশাক। তাই শিক্ষার্থীরা রাজশাহী নগরীর বিভিন্ন শপিং সেন্টারে গিয়ে করছেন কেনা কাটা। বিনোদপুরবাজার, সাহেববাজারের আরডিএ মার্কেট,গনকপাড়া, এসএস টাওয়ার, নিউ মার্কেটসহ রাজশাহী নগরীর বিভিন্ন মার্কেটে পাওয়া যাচ্ছে বৈশাখের ফতুয়া, পাজ্ঞাবি, শাড়ি ।

আনিকা আক্তার, পড়েন প্রাণী বিদ্যা অনুষদে, তিনি এরই মধ্যে সেরে নিয়েছেন কেনাকাটার কাজ। তিনি বলেন, বাজার ঘুরে দেখলাম এবারের বাজারে বৈশাখের শাড়িতে আছে নতুনত্ব। বৈশাখের শাড়ি ৩শ’ টাকা থেকে শুরু করে ৩ হাজার টাকা মূল্যে রাজশাহীর বাজার দখল করেছে।

আসছে পহেলা বৈশাখ, প্রস্তুতি এখনই (3)

বিনোদপুর বাজারে কথা হলো একজন কাপড় ব্যবসায়ীর সাথে, তিনি বলেন লাল-সাদার মিশেলে শাড়ি-কামিজ ইত্যাদি রং বেরঙের কাপড় বুনন এবং মাটির তৈজস বানানোর কাজে মহাব্যস্ত সবাই। বাঙ্গালীর সর্বজনীন উৎসব পহেলা বৈশাখ পালনের প্রস্তুতি এখনই শুরু হয়েছে। দিন ও রাতে সর্বত্রই চলছে বৈশাখের শাড়ি, কাপড়, গামছা, লুঙ্গি তৈরির কাজ।

রাবির গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের শিক্ষার্থী জহুরুল বলেন, বৈশাখে বাঙালিয়ানা শতভাগ ফুটিয়ে তুলতে আমরা অনেক কিছুই করে থাকি। যার মধ্যে অন্যতম হলো, চিরায়ত বাংলার রীতি অনুসরণ করে পহেলা বৈশাখের প্রভাত বেলায় বাংলার ঐতিহ্য পান্তা ইলিশ খাওয়া। বিগত বছরের ন্যায় এ খাবার পরিবেশনে ফুঠে উঠবে বৈশাখী আমেজ। এমন চাওয়া থেকে আমরা বৈশাখের প্রথম দিন মাটির তৈজসপত্র ব্যবহার করে থাকি, যা আমাদের পান্তা ইলিশ পরিবেশনে নতুন মাত্রা যোগ করে। প্রতিবারের ন্যায় এবছরও আমরা দিনটি যথাযথভাবে পালনের প্রস্তুতি নিচ্ছি।
আসছে পহেলা বৈশাখ, প্রস্তুতি এখনই (2)
বাংলার আদিম সমাজ থেকে তৈজসপত্র ব্যবহৃত হয়ে আসছে। একটা সময় গ্রামের নিম্নবিত্ত বা নিম্ন-মধ্যবিত্তরা খাওয়ার জন্য মাটির তৈজসপত্র ব্যবহার করত, যা এখন প্রায় দেখাই যায় না। এনিয়ে আক্ষেপ আর হতাশা প্রকাশ করলেন অনেক শিক্ষার্থী।

ভাষা বিভাগের শিক্ষার্থী অলিভা মায়া বলেন, কালের পরিবর্তনে এটি হারিয়ে যেতে বসেছে। কিন্তু বৈশাখের প্রথম দিনে বাঙালিয়ানার সঙ্গে মিলিয়ে পান্তা ইলিশ পরিবেশনে মাটির তৈজসপত্র ব্যবহার করা হয়, যা আমাদের বাঙালী সত্বার শিকড়কে মনে করিয়ে দেয়।

Print Friendly, PDF & Email

Check Also

নাটোরে বৃদ্ধ দম্পতির রহস্যজনক মৃত্যু, দুই ছেলে আটক

নাটোর প্রতিনিধি : নাটোরের লালপুরের কদিম চিলান গ্রামে স্বামী আব্দুস সোবাহান (৭৫) ও স্ত্রী মানিকজান …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *