ভোর ৫:৫২ শনিবার ২৩ নভেম্বর, ২০১৯


সুপ্রিমকোর্ট বার নির্বাচনে বিএনপি-জামায়াতপন্থীদের পৃথক প্যানেল

নিউজ ডেস্ক | সাহেব-বাজার২৪.কম
আপডেট : March 7, 2018 , 10:50 pm
ক্যাটাগরি : জাতীয়
পোস্টটি শেয়ার করুন

সাহেব-বাজার ডেস্ক : আসন্ন সুপ্রিমকোর্ট আইনজীবী সমিতির বার্ষিক নির্বাচনে বিএনপি-জামায়াতপন্থী আইনজীবীদের পাল্টাপাল্টি দুটি প্যানেল ঘোষণা করা হয়েছে। বর্তমান সভাপতি সিনিয়র অ্যাডভোকেট জয়নুল আবেদীনের নেতৃত্বে ঐক্য প্যানেল ঘোষণার ২৪ ঘন্টা পার না হতেই অ্যাডভোকেট তৈমুর আলম খন্দকারের নেতৃত্বে অপর একটি বিদ্রোহী প্যানেল ঘোষণা করা হয়েছে।

সূত্রে জানা গেছে, বিএনপি সমর্থিত প্যানেল ঘোষণাকে কেন্দ্র করে মঙ্গলবার রাত থেকে বুধবার বিকাল পর্যন্ত সুপ্রিমকোর্ট বারে দুপক্ষের আইনজীবীদের মধ্যে দফায় দফায় হাতাহাতির ঘটনা ঘটেছে। এতে বেশ কয়েকজন আইনজীবী লাঞ্চিত, অপমানিত ও আহত হয়েছেন। মনোনয়ন বোর্ডের আহবায়ক ব্যারিস্টার মুহম্মদ জমির উদ্দীন সরকারের দোতলায় চেম্বারের সামনে তার বিরুদ্ধে স্বজনপ্রীতির অভিযোগে স্লোগান দিয়েছেন মনোনয়ন বঞ্চিতরা। এ সময় তাকে অশ্রাব্য ভাষায় গালিগালাজ করা হয়েছে বলে আইনজীবীরা অভিযোগ করেছেন।

এর আগে মঙ্গলবার রাতে আগামী ২১-২২ মার্চ অনুষ্ঠিতব্য আইনজীবী সমিতি নির্বাচনে বর্তমান সভাপতি জয়নুল আবেদীনকে সভাপতি ও বর্তমান সম্পাদক ব্যারিস্টার মাহবুব উদ্দিন খোকনকে পুনরায় সম্পাদক প্রার্থী করে জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ঐক্য প্যানেল ঘোষণা করা হয়।

এই প্যানেলের অপর প্রার্থীরা হলেন, সহ-সভাপতি আব্দুল জব্বার ভুইয়া, এমডি গোলাম মোস্তফা, কোষাধ্যক্ষ নাসরিন আক্তার, সহ-সম্পাদক কাজী জয়নুল আবেদীন, আনজুমান আরা বেগম মুন্নী, সদস্য ব্যারিস্টার সাইফুর আলম মাহমুদ, জাহাঙ্গীর জমাদ্দার, এমদাদুল হক, মাহফুজ বিন ইউসুফ, সৈয়দা শাহীনারা লাইলী, নাসরিন খন্দকার শিল্পী।

অপরদিকে মনোনয়ন বঞ্চিতের অভিযোগ এনে বুধবার বিকেলে বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা তৈমুর আলম খন্দকারকে সভাপতি এবং এ বিএম রফিকুল হক তালুকদার রাজাকে সম্পাদক প্রার্থী করে বিএনপিপন্থী আইনজীবীদের আরেকটি বিদ্রোহী প্যানেল ঘোষণা করা হয়েছে। আইন বিষয়ক সাংবাদিকদের সংগঠন ল’ রিপোর্টার্স ফোরামের কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলন করে পাল্টা (বিদ্রোহী) প্যানেল ঘোষণা করা হয়।

এই প্যানেলের অপর প্রার্থীরা হলেন, সহ-সভাপতি ড. মো. গোলাম রহমান ভুইয়া ও মুহাম্মদ মোসলেম উদ্দিন, কোষাধ্যক্ষ আইয়ুব আলী আসরাফী, সহ-সম্পাদক শরিফ ইউ আহমেদ ও আবু হানিফ, সদস্য পদে মোহাম্মদ নাজমুল হাসান, মমিন উল্লাহ পাটোয়ারী, সাবিনা ইয়াসমিন লিপি, মো. শফি-উর-রহমান, ইকবাল হোসেন, মো. আকবর হোসেন ও আবদুস সামাদ।

এবিএম রফিকুল হক তালুকদার রাজা পাল্টা কমিটি ঘোষণার বিষয়ে সাংবাদিকদের বলেন, বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে মুক্তির জন্য যারা আন্দোলন করছেন, যারা আন্দোলন সংগ্রামে ছিল তাদের বাদ দিয়ে নিজেদের পছন্দের ব্যক্তিকে প্রার্থী করা হয়েছে। প্রতি বছরই একই ব্যক্তিদেরকে প্রার্থী করা হচ্ছে। এতে বিএনপিপন্থি ও সাধারণ আইনজীবীদের মধ্যে চাপা ক্ষোভ বেড়ে চলেছে। ক্ষোভের প্রতিফলন আমাদের এই প্যানেল। এই প্যানেল থেকে আমরা নির্বাচনে যাবো।

জানতে চাইলে মনোনয়ন বোর্ড মনোনীত সভাপতি প্রার্থী জয়নুল আবেদীন সাংবাদিকের বলেন, মনোনয়ন বোর্ড যে প্যানেল ঘোষণা করেছে তার বাইরে অন্য কোনো প্যানেলকে আমরা গুরুত্ব দিচ্ছি না। এগুলো আওয়ামী লীগ করাচ্ছে।

আর তৈমুর আলম খন্দকার বলেন, সুপ্রিমকোর্ট বারের আইনজীবী ফোরাম গত দশ বছর যাবত দুজন ব্যক্তির কাছে জিম্মি। জাতীয়ভাবে কোনো কমিটি করা হয় না। এতে অনেকেরই মধ্যে চাপা ক্ষোভ রয়েছে। তাছাড়া বারবারই একই লোককে মনোনয়ন দেওয়া হচ্ছে।

এদিকে এই নির্বাচনে সিনিয়র অ্যাডভোকেট ইউসুফ হোসেন হুমায়নকে সভাপতি ও এস কে মোরশেদকে সম্পাদক প্রার্থী করে আওয়ামীপন্থী আইনজীবীদের একক প্যানেল ঘোষণা করা হয়েছে।

সুপ্রিমকোর্ট বারের প্রধান তত্বাবধায়ক নিমেশ চন্দ্র দাস সমকালকে জানান, বিএনপির দু’ গ্রপের মধ্যে কয়েকদফা মারামারি হয়েছে। এখন কিছুটা চুপচাপ আছে।

তিনি বলেন, আগামী ১১ মার্চ পর্যন্ত মনোনয়ন সংগ্রহ ও দাখিল এবং ১৪ মার্চ মনোনয়ন প্রত্যাহারের তারিখ ধার্য করা রয়েছে। ২১ ও ২২ মার্চ দুই দিনব্যাপী ভোটগ্রহণ করা হবে। এবারের নির্বাচনে মোট ভোটার হচ্ছে ৬ হাজার ১৫২ জন। কার্যনির্বাহী কমিটির মোট ১৪টি পদে এ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে।

এসবি/এসএস