রাত ৯:৪৯ মঙ্গলবার ১৯ নভেম্বর, ২০১৯


সাবরেজিষ্ট্রার-দলিল লেখকদের দ্বন্দ্বে বাঘায় অর্ধদিবস কলম বিরতি!

নিউজ ডেস্ক | সাহেব-বাজার২৪.কম
আপডেট : November 12, 2018 , 9:30 pm
ক্যাটাগরি : রাজশাহীর সংবাদ
পোস্টটি শেয়ার করুন

নিজস্ব প্রতিবেদক, বাঘা : রাজশাহীর বাঘা উপজেলা দলিল লেখকদের কাছে জিম্মি হয়ে পড়েছেন সাব রেজিষ্ট্রারসহ জমি ক্রেতা-বিক্রেতারা। কোন গ্রাহক জমি ক্রয় করতে এলে তাকে গুনতে হয় সরকারি (ফি) অর্থের বাইরে সমিতির নামে অতিরিক্ত অর্থ। আর এ ঘটনার প্রতিবাদ জানানোসহ সপ্তায় পাঁচদিন অফিস করার দাবি সাব-রেজিস্টারদের। কিন্তু দলিল লেখকদের দাবি এক থেকে দু’দিন। এ নিয়ে সাব-রেজিস্টারের বিরুদ্ধে নানা অভিযোগ এনে ভূমি মন্ত্রণালয়ে অভিযোগ করেছেন দলিল লেখক সমিতি। এ খবর জেনে সোমবার সকালে অফিস কক্ষের বাইরে বিধি মোতাবেক কাজ করার বিজ্ঞপ্তি ঝুলিয়েছেন সাব-রেজিস্টার। এর ফলে অর্ধদিবস কলম বিরতিসহ ফুঁসে উঠেন দলিল লেখক সমিতি।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, বাঘা উপজেলা সাব-রেজিস্টার তিথি রানী মন্ডল বিধি মোতাবেক জমির দলিল সম্পাদন করতে চান। এ জন্য তিনি অর্জিনাল (প্রকৃত) কাগজ পত্রসহ দলিল লেখকদের জমি রেজিস্টারীর কথা বলে আসছেন। কিন্তু দলিল লেখক সমিতি ফটোকপিসহ নানা অজুহাতে হাত কপি দিয়ে দলিল সম্পাদনের চেষ্টা করেন। এ নিয়ে প্রায়শ: দলিল লেখকদের সাথে তার বাক বিতন্ডের ঘটনা ঘটে আসছে।

দলিল লেখকদের দাবি, দলিল করতে আসা ব্যক্তিরা অনেক সময় যথাযথ কাগজপত্র নিয়ে আসেন না। তাই তারা তাদের সহযোগিতা করতে পারেন না। তা ছাড়া সাব-রেজিস্ট্রার তিথি রানী মন্ডল তফশিল অফিসের হাতে লেখা কাগজ দিয়ে জমি রেজিস্ট্রি করতে রাজি না হওয়ায় সমস্যা দেখা দেয়। তারা আরো জানান, আগের সাব-রেজিস্ট্রাররা দলিল লেখক সমিতির সঙ্গে সমন্বয় করে কাজ করতেন। কিন্তু তিথি রানী মন্ডল তাতো করেনই না, বরং সরকারি সময়ের মধ্যে তিনি অফিস ত্যাগ করেন। এ সব কারণে সাব-রেজিস্টারকে বদলির জন্য তারা আবেদন করেছেন।

অপর দিকে সাব রেজিস্টার তিথি রানী মন্ডল জানান, দলিল রেজিস্টশন আইন অনুযায়ী দলিল লেখকদের কাজ হলো দলিল লেখে দেয়া। এরপর সেই দলিল ক্রেতা-বিক্রেতাগণ তার কার্যালয়ে নিয়ে যাবেন। এরপর তিনি সেটি দেখে শুনে সম্পাদন করবেন। কিন্তু এখানে সে নিয়ম না মেনে কোন কোন সপ্তায় একদিন আবার কোন সপ্তায় দু’দিন অফিস করেন দলিল লেখক সমিতি। এরপর তারা এক যোগে অফিসে ভিড় করে দলিল সম্পাদন করতে বাধ্য করেন। এতে করে অনেক সময় ভুল হওয়ার সম্ভাবনা থাকে। তাই সোমবার সকালে তিনি বিধি মোতাবেক দলিল সম্পাদন করার নোটিশ ঝুলিয়ে দেন।

বাঘা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শাহিন রেজা বলেন, দলিল লেখক ও সাব-রেজিষ্ট্রারের মধ্যে ভুল বুঝাবুঝি হয়েছিল। এক পর্যায়ে সাব-রেজিষ্ট্রার ও দলিল লেখক সমিতির নেতাদের ডেকে শীতকালিন সময় বিকেলে সাড়ে তিনটা পর্যন্ত অফিস চালানোর পরামর্শ দিয়ে বিষয়টি আপোশ করা হয়। এরপর কলম বিরতি প্রত্যাহার করে যথা নিয়মে অফিস করেন দলিল লেখক সমিতি।

এসবি/এনজেড/এআইআর