রাত ৯:৩৬ বৃহস্পতিবার ২১ নভেম্বর, ২০১৯


মিয়ানমারের ওপর নিষেধাজ্ঞা বাড়াবে ইইউ

নিউজ ডেস্ক | সাহেব-বাজার২৪.কম
আপডেট : April 26, 2018 , 10:37 pm
ক্যাটাগরি : জাতীয়
পোস্টটি শেয়ার করুন

সাহেব-বাজার ডেস্ক : রোহিঙ্গা নির্যাতনের জেরে মিয়ানমারের ওপর আরোপিত অস্ত্র নিষেধাজ্ঞা আরও এক বছর বাড়াবে ইউরোপীয় ইউনিয়ন (ইইউ)। এ ছাড়া এই ইস্যুতে অভিযুক্ত মিয়ানমারের কয়েকজন শীর্ষ জেনারেলের ওপর আরোপিত ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞাও জোরদার করা হতে পারে। ইইউর কূটনীতিক ও কর্মকর্তারা এ তথ্য জানিয়েছেন বলে খবর প্রকাশ করেছে রয়টার্স।

এদিকে যুক্তরাষ্ট্রও জানিয়েছে, রোহিঙ্গাদের ওপর নির্যাতন-নৃশংসতার তদন্ত করছে তারা। দেশটির দুই কর্মকর্তা রয়টার্সকে জানিয়েছেন, এরই মধ্যে তারা বাংলাদেশে আশ্রয় নেওয়া প্রায় এক হাজার রোহিঙ্গা নারী-পুরুষের সাক্ষাৎকার নিয়েছেন। গত ও চলতি মাসে অন্তত ২০ জন আন্তর্জাতিক আইন ও অপরাধ বিশেষজ্ঞ এই সাক্ষাৎকার সংগ্রহ করেছেন, যা এখন বিচার-বিশ্লেষণ করে দেখা হচ্ছে।

এ পরিস্থিতির মধ্যেই আগামী সোমবার মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্য পরিদর্শন করতে যাচ্ছে জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদের একটি উচ্চ পর্যায়ের প্রতিনিধি দল। এ ছাড়া জার্মানিতে নিযুক্ত সুইজারল্যান্ডের রাষ্ট্রদূত ক্রিস্টিন স্ক্রানার বার্গেনারকে মিয়ানমারে জাতিসংঘের বিশেষ দূত হিসেবে দায়িত্ব দিয়েছেন সংস্থার মহাসচিব আন্তোনিও গুতেরেস।

রয়টার্সের খবরে বলা হয়, মিয়ানমারের বিরুদ্ধে ইইউর চলতি অস্ত্র নিষেধাজ্ঞার মেয়াদ এ মাসেই শেষ হচ্ছে। কিন্তু রাখাইনে সন্ত্রাসবিরোধী অভিযানের নামে গত বছর চালানো সামরিক অভিযানে রোহিঙ্গাদের প্রতি গুরুতর ও পদ্ধতিগতভাবে যে মানবাধিকার লঙ্ঘন করা হয়েছে, তার এখনও মীমাংসা হয়নি। তাই মেয়াদ শেষ হওয়ার আগেই মিয়ানমারের প্রতি ইইউর অস্ত্র নিষেধাজ্ঞা আরও এক বছর বাড়ানো হতে পারে। চলতি সপ্তাহেই এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত হবে।

এ ছাড়া ইইউর সূত্রগুলো বলছে, মিয়ানমারের জেনারেলদের বিরুদ্ধে আরোপিত নিষেধাজ্ঞার মধ্যে ভিসা নিষিদ্ধ ও সম্পদ জব্দের মতো বিষয় থাকতে পারে। মে অথবা জুনের মধ্যে এসব নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হতে পারে। এ তালিকায় মিয়ানমারের মেজর জেনারেল মং মং সোসহ আরও কয়েকজন সামরিক কর্মকর্তার নাম রয়েছে।

এ ছাড়া যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক কর্মকর্তা জানিয়েছেন, তাদের প্রতিনিধিদের সংগ্রহ করা রোহিঙ্গাদের সাক্ষাৎকার বিশ্লেষণ করা হবে, যা প্রতিবেদন আকারে আগামী মাসে বা জুনের প্রথম দিকে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হবে। তবে যুক্তরাষ্ট্র সরকার এ প্রতিবেদন জনসমক্ষে প্রকাশ করবে কি-না বা মিয়ানমারের বিরুদ্ধে কোনো নিষেধাজ্ঞা আরোপ হবে কি-না, সে বিষয়ে তিনি স্পষ্ট করে কিছু বলেননি।

এদিকে, আগামী সোমবার রাখাইনে রোহিঙ্গা পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণে যাচ্ছে জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদের একটি প্রতিনিধি দল। এর আগে গত ফেব্রুয়ারিতে তাদের সেখানে যাওয়ার কথা থাকলেও মিয়ানমার তা বাতিল করে।

নিরাপত্তা পরিষদের এক কর্মকর্তা জানান, তাদের প্রতিনিধিরা ৩০ এপ্রিল রাখাইনের মংডু পৌঁছাবেন এবং পরের দিনই রাখাইনে যাবেন। সেখানে তারা সরকারি-বেসরকারি, সেনা কর্মকর্তাসহ সাধারণ মানুষের সঙ্গে কথা বলবেন।

এসবি/এসএস