বিকাল ৪:১৭ মঙ্গলবার ১০ ডিসেম্বর, ২০১৯


মারাত্মক এই ১০টি রোগ প্রতিরোধ করুন নিয়মিত শারীরিক ঘনিষ্ঠতার মাধ্যমে

নিউজ ডেস্ক | সাহেব-বাজার২৪.কম
আপডেট : December 8, 2017 , 5:38 pm
ক্যাটাগরি : জীবনশৈলী
পোস্টটি শেয়ার করুন

ভালবাসার মানুষের সঙ্গে শারীরিক ঘনিষ্ঠতা অবশ্যই শারীরিক এবং মানসিক ভাবে উপভোগ্য। কিন্তু জানেন কি, নিছক উপভোগ্যতার বাইরেও নিয়মিত শারীরিক ঘনিষ্ঠতার বেশ কিছু গুরুত্ব রয়েছে। এমনটাই জানাচ্ছে, ‘হেলথ বাডি’ নামক মেডিক্যাল জার্নালে প্রকাশিত একটি গবেষণা-রিপোর্ট।

আটলান্টা ইউনিভার্সিটির হেলথ ডিপার্টমেন্ট পরিচালিত এই গবেষণা দাবি করছে, এমন বেশ কিছু শারীরিক সমস্যা রয়েছে, যেগুলি প্রতি দিন সঙ্গমের মাধ্যমে প্রতিরোধ করা এবং ক্ষেত্র বিশেষে প্রতিকার করাও সম্ভব। কোন কোন অসুখ সেগুলি? আসুন, জেনে নেওয়া যাক—

১. হার্টের রোগ: নিয়মিত শারীরিক ঘনিষ্ঠতার ফলে মানুষের হৃদয় ভাল থাকে বলেই দাবি গবেষকদের। দৈনিক সঙ্গম হার্টের রোগকে দূরে রাখতে সাহায্য করে।

২. মাথাব্যথা: শারীরিক ঘনিষ্ঠতার সময়ে শরীরে অক্সিটোসিন ক্ষরণ হয়, এবং এন্ড্রোফাইন-এর বৃদ্ধি ঘটে। এর ফলে মাথাব্যথা থেকে প্রায় তাৎক্ষণিক ভাবে মুক্তি মেলে।

৩. প্রস্টেট ক্যানসার: চল্লিশোর্ধ্ব পুরুষদের শরীরে এই রোগের সম্ভাবনা যথেষ্ট বেশি থাকে। কিন্তু নিয়মিত সঙ্গম প্রস্টেটকে সক্রিয় রাখতে সাহায্য করে, ফলে দূরে থাকে প্রস্টেট ঘটিত রোগও।

৪. ব্রেস্ট ক্যানসার: নিয়মিত শারীরিক ঘনিষ্ঠতা শুধু যে স্তনের ক্যানসারকে দূরে রাখে তা-ই নয়, পাশাপাশি এই রোগ শরীরে বাসা বাঁধলে তাকে চিহ্নিত করাও সহজ হয়।

৫. অবসাদ: গবেষণা জানাচ্ছে, দৈনিক শারীরিক ঘনিষ্ঠতা মানুষকে মানসিক অবসাদ থেকে মুক্তি দিতে সক্ষম।

৬. নিদ্রাহীনতা: যাঁরা ইনসোমনিয়া বা নিদ্রাহীনতায় ভোগেন, তাঁদের জন্য নিয়মিত শারীরিক ঘনিষ্ঠতার দাওয়াই অত্যন্ত কার্যকর। সঙ্গম শরীরকে সম্পূর্ণ রিল্যাক্সড অবস্থায় পৌঁছতে সাহায্য করে, ফলে ঘুমও চলে আসে তাড়াতাড়ি।

৭. প্রস্রবাঘটিত সমস্যা: সঙ্গমের ফলে পেলভিস এলাকা সুগঠিত হয় ও মাংসপেশিগুলি দৃঢ় হয়ে ওঠে। ফলত, প্রস্রাবঘটিত সমস্যা, যেমন হঠাৎ করে প্রস্রাব বেরিয়ে যাওয়ার সমস্যা থেকে মুক্তি মেলে।

৮. ফ্লু: বিশ্বাস হওয়া কঠিন, কিন্তু এটা সত্যি যে, সঙ্গমের আনন্দের সময়ে শরীরে অ্যান্টিবডি প্রোডাকশন বেড়ে যায়। এর ফলে সাধারণ রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতার উন্নতি হয়। পরিণামে ইনফ্লুয়েঞ্জার মতো রোগকে দূরে রাখা সম্ভব হয়।

৯. মাংসপেশির স্ফীতি: শারীরিক মিলন কিন্তু দারুণ এক্সারসাইজও। এতে মাংসপেশির স্ফীতি হ্রাস পায়, এবং গাঁটের ব্যয়াম হয়। ফলে শরীরের ব্যথা-বেদনা থেকে অনেকটাই মুক্তি পাওয়া যায়।

১০. ত্বকের নিষ্প্রাণ অবস্থা: সঙ্গমের ফলে ত্বকে জমে থাকা টক্সিনস বেরিয়ে যায়। ফলে ত্বকে ঔজ্জ্বল্য ফিরে আসে।
অতএব বোঝাই যাচ্ছে, দৈনিক শারীরিক ঘনিষ্ঠতার প্রতি যাঁরা বিমুখ, তাঁদের মধ্যে এই ১০টি রোগের সম্ভাবনা বাড়ছে।