রাত ৯:৪৯ বৃহস্পতিবার ২১ নভেম্বর, ২০১৯


মন্ত্রিসভায় পরিবর্তন আসছে!

নিউজ ডেস্ক | সাহেব-বাজার২৪.কম
আপডেট : January 1, 2018 , 3:20 pm
ক্যাটাগরি : রাজনীতি
পোস্টটি শেয়ার করুন

দীর্ঘদিনের জল্পনা কল্পনা শেষে সরকারের শেষ বছরে মন্ত্রিসভায় পরিবর্তনের আভাস মিলেছে। প্রতিমন্ত্রী থেকে পদোন্নতি পেয়ে পুর্নমন্ত্রী হচ্ছেন মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ প্রতিমন্ত্রী নারায়ণ চন্দ্র চন্দ।

এছাড়া মন্ত্রীসভায় যুক্ত হতে পারে একাধিক নতুন মুখ। তবে এ বিষয়ে মন্ত্রিপরিষদ সচিব স্পষ্ট করে কিছু বলেননি। সোমবার তিনি সাংবাদিকদের বলেন, ‘এটা কালই (মঙ্গলবার) জানতে পারবেন।’

মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ সূত্র জানায়, মৎস্য ও প্রাণিসম্পদমন্ত্রী মুহাম্মদ ছায়েদুল হক মারা যাওয়ার পর গত মাসের মাঝামাঝি সময় থেকে পদটি শূন্য হয়ে আছে। উক্ত মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করে আসা নারায়ন চন্দ্রকে তার পদে পদোন্নতি দেওয়া হচ্ছে। ইতিমধ্যে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ থেকে তার কাছে ফোন গেছে।
সোমবার বিকালে সচিবালয়ে কর্মকর্তা কর্মচারিদের মধ্যে প্রতিমন্ত্রী নারায়ন চন্দ্রের প্রমোশন নিয়ে ব্যাপক আলোচনা করতে দেখা গেছে। তার মন্ত্রণালয়েও ছিল দিনভর এ নিয়ে আলোচনা।  প্রতিমন্ত্রীর কক্ষ বদলের তৎপরতাও লক্ষ্য করা গেছে। ৭২ বছর বয়সের নারায়ন চন্দ্র চন্দ খুলনা-৫  আসন থেকে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়েছেন তিনবার। ২০১৪ সালে আওয়ামী লীগ টানা দ্বিতীয় দফায় সরকার গঠন করলে নারায়ন চন্দ্রকে দেওয়া হয় প্রতিমন্ত্রীর দায়িত্ব।

সোমবার দুপুরে তিনি সাংবাদিকদের জানান,  ‘মন্ত্রিপরিষদ সচিব দুপুরে আমাকে ফোন করেছিলেন। আগামীকাল সন্ধ্যায় রাষ্ট্রপতি ভবনে যাওয়ার জন্য বলেছেন।

কয়েকজনের শপথ ছাড়াও মন্ত্রিসভায় আরও কিছু রদবদল আসতে পারে বলে গুঞ্জন রয়েছে সচিবালয়ে।

এখনই চূড়ান্ত করে বলা যাচ্ছে না নতুনদের মধ্যে সৌভাগ্যবান কারা মন্ত্রিসভায় স্থান পেতে যাচ্ছেন। মঙ্গলবারই বিষয়টি স্পষ্ট হয়ে যাবে বলে ধারণা করা হচ্ছে। ইতিমধ্যে রাজবাড়ীর এমপি কাজী কেরামত আলী, লক্ষ্মীপুরের সাংসদ এ কে এম শাহজাহান কামালের কথা শোনা যাচ্ছে।

মন্ত্রিসভায় দেখা যেতে পারে বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশন অব সফটওয়্যার অ্যান্ড ইনফরমেশন সার্ভিসেসের (বেসিস) সভাপতি মোস্তাফা জব্বারকে।  তাকে টেকনোক্র্যাট কোটায় মন্ত্রিসভায় আনা হতে পারে বলে জানা গেছে। মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ থেকে তাদের ফোন করা হয়েছে বলেও  নতুনদের ঘনিষ্টরা জানিয়েছেন।

মন্ত্রিসভার রদবদলের মধ্যে দুর্নীতির অভিযোগে বাদ পড়া সাবেক যোগাযোগমন্ত্রী আবুল হোসেন, সাবেক পররাষ্ট্রমন্ত্রী দিপুমনিসহ আরো বেশ কজন নতুন করে মন্ত্রিসভায় অন্তভূর্ক হতে পারে বলে জানা গেছে।

তবে নাম প্রকাশ না করার শর্তে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের একজন কর্মকর্তা সাংবাদিকদের জানিয়েছেন, সামনে জাতীয় নির্বাচন। বিভিন্ন কর্মকাণ্ডে বিতর্কিত হয়েছেন এমন দুই-একজনকে বাদ দিয়ে নতুন দুই-একজনকে আনা হতে পারে। কারো কারো দপ্তরও বদল হতে পারে। তবে সবকিছুই প্রধানমন্ত্রীর সিদ্ধান্তের উপর নির্ভর করছে।

গত দুই বছরও বিভিন্ন সময়ে মন্ত্রিসভায় রদবদলের সম্ভাবনা নিয়ে গুঞ্জন শোনা গেছে। তবে শেষ পর্যন্ত বড় কোনো পরিবর্তনে হাত দেননি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

এর আগে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক দলীয় অনুষ্ঠানে যে কোন সময় মন্ত্রিসভা রদবদলের আভাস দিয়েছিলেন।