বিকাল ৪:০০ সোমবার ১৬ ডিসেম্বর, ২০১৯


ভারতের দুই ওপেনারকে ফেরাল বাংলাদেশ

নিউজ ডেস্ক | সাহেব-বাজার২৪.কম
আপডেট : নভেম্বর ২২, ২০১৯ , ৭:১২ অপরাহ্ণ
ক্যাটাগরি : খেলাধুলা,শীর্ষ খবর
পোস্টটি শেয়ার করুন

সাহেব-বাজার ডেস্ক : ভারতীয় পেসারদের গোলাপি বলের বিষে নীল হয়ে গেছে বাংলাদেশ। মাত্র ৩০.৩ ওভারে অলআউট হয়েছে মাত্র ১০৬ রানে। জবাব দিতে নামা ভারত শুরুতে ইন্দোর টেস্টের ডাবল সেঞ্চুরিয়ান মায়াঙ্ক আগারওয়ালকে হারায়। এরপর ফিরে যান জীবন পাওয়া রোহিত শর্মা।

ভারত ১৫ ওভারে ২ উইকেট হারিয়ে  ৫৬ রানে ব্যাট করছে। চেতেশ্বর পূজারা খেলছেন ১৬ রানে। তার সঙ্গী বিরাট কোহলি। মায়াঙ্ক আগারওয়াল আউট হয়েছেন ১৪ রান করে। রোহিত ফিরেছেন ২১ রানে।

টস জিতে বাংলাদেশ অধিনায়ক মুমিনুল এ ম্যাচেও ব্যাট করার সিদ্ধান্ত নেন। ইডেনসের সবুজ উইকেটে সাহসী  সিদ্ধান্ত নিলেও সাহস দেখাতে পারেননি মুমিনুলরা। শুরুর ৩৮ রানে ৫ উইকেট হারায় বাংলাদেশ। এর মধ্যে টপ অর্ডারের তিন ব্যাটসম্যান মুমিনুল হক, মোহাম্মদ মিঠুন এবং মুশফিকুর রহিম ডাক মেরে ফেরেন। ওপেনার সাদমান ইসলাম ব্যাটে রান পাচ্ছিলেন। কিন্তু তিনি ২৯ রানে আউট হলে চরম বিপর্যয়ে পড়ে বাংলাদেশ।

বিপর্যয়ের সেই চোখ রাঙানি থেকে রেহায় পায়নি বাংলাদেশ। ধসে গেছে ঠিক দলীয় রান একশ’ ছাড়াতেই। লিটন দাস খেলেন ২৪ রানের ইনিংস। ব্যাটে রান পাওয়া লিটন এক পুল শট খেলতে গিয়ে হেলমেটে বল লাগান। কনকাশন হয়ে মাঠ ছাড়েন তিনি। তার বদলি হিসেবে মাঠে নামা মেহেদি মিরাজ ৮ রানে আউট হয়ে ফেরেন। দলের হয়ে তৃতীয় সর্বোচ্চ ১৯ রান আসে টেলএন্ডার নাঈম হাসানের ব্যাট থেকে।

নিয়েছেন ভারতের তিন পেসার ইশান্ত ইর্শা, মোহাম্মদ শামি এবং উমেশ যাদব মিলে বাংলাদেশের দশ উইকেট তুলে নিয়েছেন। এরমধ্যে ইশান্ত শর্মা একাই তুলে নেন পাঁচ উইকেট। ১২ বছর পরে ঘরের মাঠে ইনিংসে পাঁচ উইকেট নিলেন তিনি। ২০০৭ সালে পাকিস্তানের বিপক্ষে ১১৮ রানে ঘরের মাঠে সর্বশেষ পাঁচ উইকেট নেন তিনি। এছাড়া উমেশ যাদব তিনটি এবং মোহাম্মদ শামি নিয়েছেন দুই উইকেট।

এসবি/জেআর