রাত ১২:৩৯ বুধবার ১৩ নভেম্বর, ২০১৯


প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে বিজেপি ছেড়ে কংগ্রেসে শক্রঘ্ন সিনহা

নিউজ ডেস্ক | সাহেব-বাজার২৪.কম
আপডেট : এপ্রিল ৬, ২০১৯ , ৯:০৮ অপরাহ্ণ
ক্যাটাগরি : বিদেশ
পোস্টটি শেয়ার করুন

সাহেব-বাজার ডেস্ক : প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর দিনে বিজেপি ছাড়লেন দলটির বিহারের পটনা সাহিব আসন থেকে নির্বাচিত সংসদ সদস্য এবং অভিনেতা শক্রঘ্ন সিনহা।

রোববার নয়াদিল্লিতে একটি বিশেষ অনুষ্ঠানে কংগ্রেসে যোগ দিলেন এই শক্তিমান অভিনেতা।

ভারতের আনন্দবাজার পত্রিকার খবরে বলা হয়, এদিন দলটি জাতীয় সম্পাদক কেসি বেণুগোপাল এবং দলের মুখপাত্র রণদীপ সুরজেওয়ালার উপস্থিতিতে শক্রঘ্ন সিনহা যোগ দেন কংগ্রেসে।

কংগ্রেসে যোগ দিয়েই শক্রঘ্ন সিনহা কটাক্ষ করে বলেন, বিজেপি এখন হয়ে গিয়েছে, ‘ওয়ান ম্যান শো’ এবং ‘টু-ম্যান আর্মি’।

বরাবর লালকৃষ্ণ আদভানি ঘনিষ্ঠ বলে পরিচিত এই বিজেপি সংসদ সদস্যকে নিয়ে দীর্ঘ দিন ধরেই চলছিল রাজনৈতিক জল্পনা।

মোদি-অমিত শাহ জুটির বিরুদ্ধে বরাবরই সরব ছিলেন তিনি। কিন্তু তাকে দল থেকে বের করেনি বিজেপি। তাই দলের মধ্যে থেকেই জারি ছিল তার বিরোধিতা। কিন্তু লোকসভা নির্বাচনে তাকে প্রার্থী না করায় বিরোধ চরমে ওঠে। তখনই পাওয়া গিয়েছিল দল ত্যাগের ইঙ্গিত। শেষ পর্যন্ত দল ছাড়ার জন্য বিজেপির ৩৯তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীকে বেছে নিলেন তিনি।

কংগ্রেসে যোগ দেওয়ার পরও শক্রঘ্ন সিনহার নিশানা ছিল মোদি-শাহ জুটিকে লক্ষ্য করেই। তিনি বলেন, ‘ইচ্ছাকৃতভাবে মার্গদর্শক মণ্ডলে পাঠিয়ে দেওয়া হয়েছে আদভানিকে। যশবন্ত সিংহ ও যশবন্ত সিনহার সঙ্গেও এমন আচরণ করা হয়েছে। অথচ তাদের নিয়ে এই মণ্ডলের এখনও পর্যন্ত একটাও বৈঠক হয়নি। সমালোচনায় সরব বলে আমাকেও মন্ত্রিত্ব দেওয়া হয়নি। যদিও আমার ভাবমূর্তি বরাবরই স্বচ্ছ।’

মোদি-শাহ জুটির নেতৃত্বাধীন বিজেপিকে ‘ওয়ান ম্যান শো’ এবং ‘টু-ম্যান আর্মি’ বলেও কটাক্ষ করেন শক্রঘ্ন। তার কথায়, ‘স্বাধীন ভাবে কাজ করার অধিকার নেই কারও। আমাদের চোখের সামনে গণতন্ত্র একনায়কতন্ত্রে পরিণত হয়েছে। এখন সবকিছুই প্রধানমন্ত্রীর দফতর থেকে হয়। নামেই মন্ত্রী হয়ে বসে রয়েছেন লোকজন।’

কংগ্রেসে যোগ দেওয়ার পর আসন্ন নির্বাচনে বিহারের পটনা সাহিব আসনে শক্রঘ্ন সিনহাকে প্রার্থী করা হতে পারে বলে জল্পনা। সে ক্ষেত্রে রাষ্ট্রীয় জনতা দলের সমর্থন পাওয়ার সম্ভাবনাও জোরাল।

এর আগে বিজেপির হয়ে সেখান থেকে দু’-দু’বার নির্বাচিত সংসদ সদস্য তিনি।

এবারে পটনা সাহিব থেকে কেন্দ্রীয় মন্ত্রী রবিশঙ্কর প্রসাদকে দাঁড় করাচ্ছে বিজেপি।

এসবি/এআইআর