বিকাল ৪:২৮ মঙ্গলবার ১২ নভেম্বর, ২০১৯


নুসরাত হত্যা মামলার রায়ের কপি হাইকোর্টে

নিউজ ডেস্ক | সাহেব-বাজার২৪.কম
আপডেট : অক্টোবর ৩০, ২০১৯ , ১১:২২ পূর্বাহ্ণ
ক্যাটাগরি : আদালত
পোস্টটি শেয়ার করুন

সাহেব-বাজার ডেস্ক : ফেনীর সোনাগাজী উপজেলায় আলোচিত মাদ্রাসাছাত্রী নুসরাত জাহান রাফি হত্যা মামলায় ১৬ আসামির মৃত্যুদণ্ডের সাজা সম্বলিত নিম্ন আদালতের রায়ের কপি (যা ডেথ রেফারেন্স হিসেবে পরিচিত) হাইকোর্টে পৌঁছেছে।

মঙ্গলবার (২৯ অক্টোবর) বিকালে এই ডেথ রেফারেন্স পাওয়ার কথা নিশ্চিত করেছেন সুপ্রিম কোর্টের স্পেশাল অফিসার মোহাম্মদ সাইফুর রহমান।

এ বিষয়ে অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম জানান, এই মামলার সঙ্গে সারাদেশের মানুষের আবেগ জড়িত। সুতরাং এই মামলা সংক্রান্ত ডেথ রেফারেন্স দ্রুত শুনানির জন্য যে যে পদক্ষেপ নেওয়া দরকার তার সবই নেওয়া হবে।

গত ২৪ অক্টোবর ফেনীর নারী ও শিশু নির্যাতন দমন বিশেষ ট্রাইব্যুনালের বিচারক মামুনুর রশিদ নুসরাত হত্যা মামলার রায়ে ১৬ আসামিকে মৃত্যুদণ্ড দেন। আইন অনুযায়ী ফাঁসির রায় অনুমোদনের জন্য ফেনীর আদালত থেকে ডেথ রেফারেন্স হিসেবে রায়টি লাল কাপড়ে মুড়িয়ে হাইকোর্টে পাঠানো হয়। এরপর মঙ্গলবার বিকাল ৫টার দিকে রায়ের নথি হাইকোর্টে পৌছায়। প্রথমে হাইকোর্ট বিভাগের রেজিস্ট্রারের দপ্তরে নেওয়া হয়। এরপর তা সংশ্লিষ্ট আদান-প্রদান শাখায় পাঠিয়ে দেওয়া হয়। আদান-প্রদান শাখার কর্মকর্তা এই নথি (ডেথ রেফারেন্স) পাবার পর তা রেজিস্ট্রার বুকে এন্ট্রি করাসহ যাবতীয় কার্যাদি সম্পাদন করেন।

হাইকোর্ট বিভাগের প্রশাসনিক কর্মকর্তা (আদান-প্রদান শাখা) কেএম ফারুক হোসেন জানান, বিকাল ৫টার পর নথি পেয়েছি।

গত ৬ এপ্রিল পরীক্ষার হল থেকে ডেকে নুসরাতের শরীরে আগুন ধরিয়ে দেয় মুখোশধারী ও বোরকা পরা দুর্বৃত্তরা। অগ্নিদগ্ধ অবস্থায় প্রথমে নুসরাতকে স্থানীয় উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে পরে ফেনী সদর হাসপাতালে নেওয়া হয়। এরপর ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ১০ এপ্রিল রাতে মারা যায় নুসরাত।

এ ঘটনায় দায়ের করা মামলায় তদন্ত শেষে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই) গত ২৯ মে ১৬ আসামির বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র দেয়। এরপর ২০ জুন ফেনীর বিচার শেষে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন বিশেষ ট্রাইব্যুনালে আসামিদের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করা হয়। ২৭ জুন থেকে সাক্ষ্যগ্রহণ শুরু হয়। বিচার শেষে ২৪ অক্টোবর ফেনীর আদালত ১৬ আসামিকে মৃত্যুদণ্ড দিয়ে রায় দেন।

 

এসবি/এমই