রাত ১১:০৭ বৃহস্পতিবার ২১ নভেম্বর, ২০১৯


চুড়িহাট্টা ট্রাজেডি: এখনো নিখোঁজ ১৬

নিউজ ডেস্ক | সাহেব-বাজার২৪.কম
আপডেট : February 23, 2019 , 9:54 pm
ক্যাটাগরি : জাতীয়
পোস্টটি শেয়ার করুন

সাহেব-বাজার ডেস্ক : সন্তানের জন্য ওষুধ আনতে চুড়িহাট্টায় এসেছিলেন বিবি হালিমা বেগম শিলা। ঘটনার দুদিন পরেও পাঁচ বছর বয়সী কন্যা সানিনের অপলক দৃষ্টি মায়ের ফিরে আসার দিকে। কিন্তু মা যে আর ফিরবেন না সেটা তাকে বলা যাচ্ছে না।

রাত সাড়ে দশটায় জয়নাল আবেদিন বাবু চুড়িহাট্টাতে ছিলেন। ঘটনার পরদিন সকাল থেকে ছবি হাতে নিয়ে বাবাকে খুঁজে ফিরছে মেয়ে নাসরিন আক্তার। চোখের অশ্রু থামছে না। তাকে সান্ত্বনা দেয়ারও যেন কেউ নেই।

১৮ বছর বয়সী পারভেজকে রাতের খাবারের জন্য বাসায় পাঠান মুদি ব্যবসায়ী আলমগীর হোসেন। তারপরই চুড়িহাট্টাতে ঘটে ভয়াবহ বিস্ফোরণ। তারপর থেকে নিখোঁজ পারভেজ।

ডেকোরেটরের দোকানে কাজ করতেন বিল্লাল হোসেন। রাত সোয়া দশটায় স্ত্রীর সাথে মুঠোফোনে কথা বলেছিলেন। সাড়ে দশটার পর আর কোনো খোঁজ মেলেনি বিল্লালের।

চুড়িহাট্টাতে বিস্ফোরণের পর ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডে এভাবেই নিখোঁজ হয়েছেন ওই এলাকার ব্যবসায়ী, ক্রেতা আর পথচারীরা। বাংলাদেশ রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটির উদ্যোগে নিখোঁজ ব্যক্তিদের একটি তালিকা প্রস্তুত করা হয়েছে।

সংস্থাটির তথ্য মতে, বিস্ফোরণ ও আগুনের ঘটনায় ৭২ জন নিখোঁজ হয়েছে। স্বজনরা নিখোঁজ হওয়ার বিস্তারিত বর্ণনা দিয়ে ফরম পূরণ করেন। এরমধ্যে ৪৬ জনের মরদেহ উদ্ধার হয়েছে। জীবিত অবস্থায় পাওয়া গেছে আরও আটজনকে।

শুক্রবার পর্যন্ত নিখোঁজের তালিকায় ছিল ১৮ জন। সেদিন আরও দুজনের মরদেহ হস্তান্তরের পর এখন পর্যন্ত নিখোঁজ ১৬ জন। যাদের পরিচয় নিশ্চিত করতে এরমধ্যেই ডিএনএ পরীক্ষার প্রস্তুনি নেয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন বাংলাদেশ রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটির মাঠকর্মী শাকিলা আক্তার। তিনি বলেন, ‘সরকারি হিসাব ও আমাদের হিসাবের মধ্যে তেমন কোনো পার্থক্য নেই। এখন পর্যন্ত যে ১৬ জন নিখোঁজ রয়েছে ডিএনএ পরীক্ষার পর তাদের পরিচয় নিশ্চিত হবে। আমরা আশা করছি, কেউ নিখোঁজ থাকবে না।‘

এসবি/এআইআর